বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

ত্বকের রং তৈরিতে কাজ করে ত্বকের ডার্মাল প্যাপিলা। এর ইউনিট মাথায়ও থাকে। এ ক্ষেত্রে একটি মেলানোসাইট কোষের সঙ্গে পাঁচটি কেরাটিনোসাইট কোষ সংযুক্ত থাকে। কোনো কারণে এটি ঠিকমতো কাজ করতে না পারলে অর্থাৎ মেলানোসাইট কোষ রঞ্জক পদার্থ তৈরি করতে না পারলে বিপত্তি দেখা দেয়। চুল সাদা হতে শুরু করে।

অকালে চুল পাকার ক্ষেত্রে বংশগত প্রভাবও আছে। অর্থাৎ পূর্বপুরুষ কারও অকালে চুল পাকলে বংশপরম্পরায় কারও না কারও এ সমস্যা হয়। আবার কিছু কিছু রোগে যেমন থাইরয়েড গ্রন্থির অস্বাভাবিকতা, শ্বেতী, অ্যাটপিক এনার্জি, অটোইমিউন ডিজিজ, প্রোজেরিয়া ও প্যানজেরিয়া রোগে চুলের অকালপক্বতা দেখা যায়। যাদের খাবার হজমের সমস্যা আছে, তাদেরও কম বয়সে চুল পাকার ঝুঁকি থাকে।

রক্তশূন্যতা, ভিটামিন বি১২, আয়রন, কপার, ভিটামিন ডি৩-এর অভাবেও অকালে চুল পাকে। বেশির ভাগ ক্ষেত্রে রক্তের ভালো চর্বি বা এইচডিএল কমে গেলে অকালে চুল পাকার ঝুঁকি বেড়ে যায়। কিছু কিছু ওষুধ যেমন ক্যানসার চিকিৎসায় ব্যবহার হয় এমন কেমোথেরাপি, ম্যালেরিয়া রোগের ওষুধের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ায় চুল সাদা করে ফেলতে পারে। এ ছাড়া যাঁরা অ্যালকোহল সেবন করেন, অতিরিক্ত ধূমপান করেন, তাঁদের মধ্যেও অকালে চুল পাকার প্রবণতা দেখা যায়।

রোগ বা বংশগতির ক্ষেত্রে তেমন কিছু করার না থাকলেও কিছু জীবনাচরণ পরিবর্তন করলে এ ক্ষেত্রে সুফল পাওয়া যায়। পরিমিত ঘুম, ব্যায়াম, সুষম খাবার এবং প্রচুর শাকসবজি খেতে হবে। পাশাপাশি অতিরিক্ত ধূমপান বা মদ্যপানের মতো অভ্যাসগুলো ত্যাগ করতে হবে। সুনিয়ন্ত্রিত জীবনযাপনের মাধ্যমে এই সমস্যা এড়ানো সম্ভব।

চুল অকালে পাকতে থাকলে আপনি চাইলে আধুনিক চিকিৎসা গ্রহণ করতে পারেন। যেমন গ্রোথ ফ্যাক্টর ফর হেয়ার, স্টেম সেল থেরাপি, পিআরপি ইত্যাদি এ রোগ প্রতিরোধে অনেকটাই কার্যকর।

ডা. জাহেদ পারভেজ, সহকারী অধ্যাপক, চর্ম ও যৌন বিভাগ, শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতাল

স্বাস্থ্য থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন