বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

অপরিণত মায়ের ক্ষেত্রে অপরিকল্পিত গর্ভধারণ বয়ে আনে মাতৃমৃত্যুঝুঁকি। অধিক বয়সী মায়ের ক্ষেত্রে হতে পারে উচ্চরক্তচাপ, ডায়াবেটিস, ইনফেকশনসহ বিভিন্ন জটিলতা। সেই সঙ্গে যেকোনো বয়সে শিশুর স্বাস্থ্যঝুঁকির পাশাপাশি অপরিকল্পিত গর্ভধারণ আনতে পারে বাচ্চা ও পরিবারের জন্য সামাজিক ও মানসিক চাপ। অনিয়ন্ত্রিত ডায়াবেটিক মায়ের গর্ভস্থ শিশুর হৃদ্‌রোগের ঝুঁকি বেশি থাকে। সাধারণ শিশুর তুলনায় তিন থেকে চার গুণ বেশি। এসব শিশুর জন্মগত হৃদ্‌পিণ্ডের ছিদ্র, ভাল্‌ভের ত্রুটি, গঠন ও রক্তনালির ত্রুটি, পেশির বাড়তি বৃদ্ধি (HCM) এবং পারসিসটেন্ট পালমোনারি হাইপারটেনশনের মতো হৃদ্‌রোগে আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা থাকে।

সাম্প্রতিক করোনা মহামারি শুরুর পর দ্য জার্নাল অব দ্য আমেরিকান মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশন (JAMA) ভারতসহ বিশ্বের ১৮টি দেশের ২১০০ গর্ভবতী নারীর তথ্য নিয়ে গবেষণা করেছে। সেখানে দেখা গেছে, করোনায় গর্ভবতী মায়েরা উচ্চ মৃত্যুঝুঁকিতে আছেন, এই মৃত্যুঝুঁকি যাঁরা গর্ভধারণ করেননি, তাঁদের চেয়ে ৭০% বেশি!
বিশ্ব জন্মনিয়ন্ত্রণ দিবস উপলক্ষে চিকিৎসক হিসেবে আমার চাওয়া, বিশ্বে প্রতিটি গর্ভধারণই যেন কাঙ্ক্ষিত হয়। প্রতিটি শিশু যেন তার সব সম্ভাবনা যতটা সম্ভব মেলে ধরে, বিকশিত করে বেড়ে উঠতে পারে।

লেখক: ইন্টার্ন ডাক্তার, যশোর মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, যশোর।

স্বাস্থ্য থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন