বিজ্ঞাপন

খুশকির আরেকটি কারণ হচ্ছে মানসিক দুশ্চিন্তা। হতাশা কিংবা মানসিক চিন্তা থেকে মাথার ত্বক শুকিয়ে পড়ার আশঙ্কা বেড়ে যায়। অনিয়মিত পরিচর্যা ও অবহেলায় মাথার ত্বকে খুশকির পরিমাণ বাড়ে এবং ছত্রাকের সৃষ্টি হয়। ফলে ত্বকে ঘা–সহ নানা রোগ দেখা দেয়। এ ছাড়া খাদ্যাভ্যাসের কারণেও খুশকি হতে পারে। মূলত ভিটামিন বি ও জিংকের অভাবে খুশকি হয়।

ম্যালেসেজিয়া নামের একধরনের ছত্রাক খুশকির কারণ। এ ছত্রাক সবার ত্বকেই কমবেশি থাকে। কিন্তু এটির পরিমাণ ত্বকে বেশি হলে তা ত্বক শুষ্ক করে তোলে। ফলে খুশকির সৃষ্টি হয়। আবার ত্বকের নানা সমস্যায় এবং কিছু ওষুধের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ায় খুশকি হতে পারে। যাঁদের রোগ প্রতিরোধক্ষমতা কম, তাঁদের খুশকি হতে পারে। খুশকি হতে পারে আরও নানা কারণে। যদি এর প্রতিকার না করা যায়, তবে চুল পড়া রোধ সম্ভব নয়।

নিয়ন্ত্রণের উপায়: খুশকি একেবারে গোড়াতেই নিয়ন্ত্রণ করা খুব জরুরি। কারণ, একবার বাড়তে শুরু করলে তা নিরাময় করা কঠিন। কেন এত খুশকি হচ্ছে, সেটা জানার চেষ্টা করতে হবে। এর চিকিৎসা না করালে চুলের স্বাস্থ্যহানি হবে। মাথার তালু চুলকাবে বেশি, চুল পড়া শুরু হবে। চুল যদি অতিরিক্ত ময়লা হয় বা নিয়মিত না ধোয়া হয়, তাহলে খুশকি হয়। তাই যাঁরা নিয়মিত বাইরে যান বা ধুলাবালুতে চলাফেরা করেন, তাঁদের নিয়মিত চুল পরিষ্কার রাখা আবশ্যক। যেহেতু মানুষের ত্বক ও চুল খুবই স্পর্শকাতর, তাই এগুলোর জন্য মানসম্পন্ন পণ্যসামগ্রী ব্যবহার করা প্রয়োজন। নিম্নমানের পণ্য ব্যবহারে বিরত থাকতে হবে। পরিবারের কারও মাথায় খুশকি থাকলে তাঁর ব্যবহৃত তোয়ালে বা চিরুনি ব্যবহার করা উচিত নয়। মন প্রফুল্ল রাখতে হবে, মানসিক চাপ থেকে দূরে থাকতে হবে। মনে রাখবেন, একবার খুশকি সেরে গেলে এবং মাথার তালু ফাঙ্গাসমুক্ত হলে আবার চুল গজাবে। এ ছাড়া চিকিৎসকের পরামর্শে খুশকিপ্রতিরোধী ওষুধ ও অ্যান্টিফাঙ্গাল শ্যাম্পু ব্যবহার করুন।


আগামীকাল পড়ুন: থাইরয়েডে নারীর ভোগান্তি

স্বাস্থ্য থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন