বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

যাঁদের ৩০ বছর বয়সের আগেই ডায়াবেটিস শনাক্ত হয়েছে, তাঁরা রেটিনোপ্যাথির ঝুঁকিতে থাকেন বেশি। অনিয়ন্ত্রিত ডায়াবেটিসে রেটিনোপ্যাথির ঝুঁকি সবচেয়ে বেশি।

উচ্চ রক্তচাপ, হৃদ্‌যন্ত্রের সমস্যা ও হাইপার লিপিডেমিয়া বা কোলেস্টেরোলের উচ্চমাত্রা রেটিনোপ্যাথির ঝুঁকি বাড়ায়। কিডনি সমস্যায়ও রেটিনোপ্যাথির ঝুঁকি বেশি। গর্ভাবস্থার প্রথম চার মাসে এই ঝুঁকি থাকে। এ ছাড়া স্থূলতা, ধূমপান ও রক্তশূন্যতা রেটিনোপ্যাথিকে ত্বরান্বিত করে।

রেটিনোপ্যাথির প্রভাবে কী হয়

রেটিনোপ্যাথির প্রাথমিক অবস্থায় অক্সিজেন–স্বল্পতার কারণে রক্তনালির গায়ে যে ভঙ্গুরতা দেখা দেয়, তার প্রভাবে রক্তনালি থেকে প্লাজমা বের হয়ে রেটিনার কোষে জমতে থাকে। এ ছাড়া ছোট ছোট রক্তক্ষরণের মতো ঘটনা ঘটে। দৃষ্টিশক্তি ক্রমান্বয়ে কমে যায়।

চিকিৎসা

  • রেটিনোপ্যাথি ঠেকানোর প্রধানতম উপায় হলো ডায়াবেটিস ভালোভাবে নিয়ন্ত্রণ করা। ব্যায়ামের অভ্যাস করা। উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে রাখা। কিডনির সমস্যার প্রতিকারে ব্যবস্থা নেওয়া। ধূমপান পরিহার করুন।

  • রেটিনোপ্যাথি হলে দ্রুত চিকিৎসার ব্যবস্থা নিতে হবে।

ডা. মো. ছায়েদুল হক, চক্ষুবিশেষজ্ঞ ও সার্জন, সাবেক সহযোগী অধ্যাপক, জাতীয় চক্ষুবিজ্ঞান প্রতিষ্ঠান ও হাসপাতাল

সুস্থতা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন