বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

কী করবেন

জ্বর হলে প্রচুর বিশ্রাম নিতে হবে। প্রচুর পরিমাণ পানি খেতে হবে। চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী বুকের এক্স-রে ও রক্তের কমপ্লিট কাউন্ট করে চিকিৎসকের কথামতো অ্যান্টিবায়োটিক সেবন করতে হবে। কখনো কফ পরীক্ষাও লাগতে পারে। মনে রাখবেন, সাধারণ ফ্লু বা সর্দি-কাশি আর নিউমোনিয়া এক নয়। ফ্লু হলে সাধারণত অ্যান্টিবায়োটিক লাগে না। বুকের এক্স-রেতেও তেমন কোনো পরিবর্তন দেখা যায় না।

নিউমোনিয়া থেকে রেহাই পেতে সুষম ও পুষ্টিকর খাবার খান। ভালোভাবে হাত ধুতে হবে। পর্যাপ্ত বিশ্রাম নিতে হবে। ধূমপান পরিহার করুন। অন্যের সামনে হাঁচি-কাশি দেওয়া থেকে বিরত থাকতে হবে। হাঁচি-কাশি দেওয়ার সময় মুখ হাত দিয়ে ঢাকতে হবে বা রুমাল ব্যবহার করতে হবে। ডায়াবেটিস ও অন্যান্য ক্রনিক রোগ নিয়ন্ত্রণ করা খুব জরুরি। বয়স্ক ব্যক্তিরা শীতে প্রয়োজন অনুযায়ী উষ্ণ থাকার চেষ্টা করবেন। যাঁদের অ্যাজমা ও ফুসফুসের রোগ আছে, তাঁরা শীত এলে সতর্ক থাকবেন। ঝুঁকিপূর্ণ ব্যক্তিদের শীতের শুরুতেই ইনফ্লুয়েঞ্জার টিকা নিতে হবে। নিউমোনিয়ার প্রতিরোধী টিকাও আছে।

আগামীকাল পড়ুন: শীতকালে মধুর উপকারিতা

সুস্থতা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন