বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

মাইগ্রেনের প্রকারভেদ

মাইগ্রেন মূলত দুই প্রকার। দুটিতেই আধকপালি মাথাব্যথা হয়। হয় ডান দিকে বা বাঁ দিকে ব্যথা করে। একটিতে আলোর ভীতি বা শব্দের ভীতি থাকে। বমি বমি ভাব বা বমি হয়। মাইগ্রেন শুরু হওয়ার আগে আলো আলো বা তারা তারা দেখে। একে আমরা বলি ক্ল্যাসিক্যাল মাইগ্রেন। আর আরেকটা হলো কমন মাইগ্রেন।

default-image

রক্তক্ষরণজনিত স্ট্রোক

স্ট্রোকের কারণে যে হতাশা আর দুশ্চিন্তা কাজ করে, সেখান থেকে মাইগ্রেন হতে পারে। একে পোস্ট–স্ট্রোক হেডেক বলে। স্ট্রোকের কারণে মুখ এক দিকে বেঁকে যায়, ডান দিকে বা বাঁ দিকে। শরীরের এক পাশ অবশ হয়ে যায়, কথা জড়িয়ে যায়—এগুলো দেখে আমরা বুঝব যে স্ট্রোক হয়েছে। এর সঙ্গে যদি মাথাব্যথা, বমি, খিঁচুনি হয়, তাহলে ধরে নিই যে সেটা রক্তক্ষরণজনিত স্ট্রোক।

স্ট্রোকের চিকিৎসা

কী ধরনের স্ট্রোক, কোন অবস্থায় রয়েছে—এর ওপর নির্ভর করে চিকিৎসা দেওয়া হয়। টেস্ট, এনজিওগ্রাম, ওষুধ, সেবা, ফিজিওথেরাপি—এগুলো দেওয়া হয়। রক্তনালির ভেতরে যদি অস্বাভাবিক কিছু থাকে বা কোনো ত্রুটি থাকে, তাহলে সেটা আধুনিক চিকিৎসাব্যবস্থার মাধ্যমে ঠিক করে দিই, না হলে আবারও হতে পারে। সাধারণত একটু বেশি বয়সের মানুষ, যাঁদের হাই প্রেশার, ডায়াবেটিস আছে, তাঁদের এই আশঙ্কা বেশি। স্ট্রোক মানুষকে কেবল শারীরিকভাবে নয়, মানসিক, পারিবারিক, সামাজিক, আর্থিকভাবে পঙ্গু করে দেয়।

স্ট্রোকের চিকিৎসা বাংলাদেশে আছে, তবে তা অত্যন্ত ব্যয়বহুল। স্বাস্থ্যকর জীবনযাপন, খাদ্যাভ্যাস ও ব্যয়ামের মাধ্যমে স্ট্রোক এড়ানো যেতে পারে। স্ট্রোক মানেই হঠাৎ। দেশে মৃত্যু ও পঙ্গুত্বের প্রধান তিনটি কারণের একটি স্ট্রোক। তবে মাত্রার ওপর নির্ভর করে চিকিৎসার মাধ্যমে পুরোপুরি সুস্থ হওয়া যায়।

মাথাব্যথা কিন্তু সঙ্গীও হতে পারে। বেশির ভাগ মাথাব্যথা টেনশনজনিত। তবে অনেক সময় বড় কোনো রোগ বা ব্রেন টিউমারের পূর্বলক্ষণ হিসেবেও মাথাব্যথা হতে পারে। তাই মাথাব্যথা নিয়ে দুশ্চিন্তার কিছু নেই। আবার একেবারে হালকাভাবে নেওয়ারও কিছু নেই।

স্বাস্থ্য থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন