বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

মানসিক স্বাস্থ্যে পরিবারের ভূমিকা

একটা গাছের জন্য যেমন মূল জরুরি, মানুষের জন্য পরিবারও তাই। তাই মানুষের শিকড়ের সঙ্গে সম্পর্কটা খুবই গভীর হওয়া প্রয়োজন। আমাদের দিনের শুরুটা হয় পরিবারের সঙ্গে। তাই পরিবারের সঙ্গে সম্পর্কটা ভালো হলে দিনটা ভালো কাটার সম্ভাবনা থাকে অনেক বেশি। আবার কাজ শেষে আমরা পরিবারের কাছে ফিরে আসি। তাই পরিবারের সঙ্গে সম্পর্ক ভালো থাকলে আমাদের মানসিকভাবে সুস্থ থাকা সহজ হয়।

default-image

শিশুর মানসিক বিকাশে মা–বাবা


বলা হয়ে থাকে, মা সুস্থ তো সন্তান সুস্থ। সাইকিয়াট্রিস্ট পামেলা লেভিনের গবেষণায় দেখা গেছে, প্রথম ছয় মাস বাচ্চার প্রয়োজন পূরণ না হলে পরে সেই বাচ্চা সিদ্ধান্তহীনতায় ভোগে। মানুষকে আর বিশ্বাস করতে পারে না। এর পরে ১৮ মাস পর্যন্ত বাচ্চারা যদি স্বীকৃতি, অনুপ্রেরণা (রিকগনিশন, ইন্সপিরেশন) না পায়, তাহলে সেই বাচ্চার ভেতরে উদ্বেগ আর হীনম্মন্যতা তৈরি হয়। এ রকম সাতটা স্টেজ আছে, যেখানে পরিবার ওই শিশুর মানসিক বিকাশের ক্ষেত্রে সরাসরি খুবই গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। চিকিৎসকদের কাছে এমন অনেক রোগী আসে, যাদের সমস্যার গোড়াটা ছোটবেলায় গেঁথে আছে। বাচ্চার সঙ্গে পরিবারের সদস্যদের নির্ভরতার সম্পর্ক থাকতে হবে। সেখানে যেন ভয়ের কোনো দেয়াল না থাকে। বাচ্চা যেন কোনো ভুল করে এসেও মা–বাবাকে নির্ভয়ে বলতে পারে। যেন আস্থার সম্পর্ক থাকে। এটা যদি সে পারে, তাহলে তার সুপ্ত প্রতিভা বিকশিত হওয়ার সম্ভাবনা অনেক। একটা বাচ্চার শুরুর পাঁচ বছর বলে দেয়, তার ব্যক্তিত্ব কেমন হবে।

এখন অনেক পরিবারেই মা–বাবা দুজনই কাজ করছেন। তবে যে সময় তাঁরা বাসায় থাকছেন, সেই সময়েই বাচ্চার জন্য আলাদা করে সময় রাখতে হবে। সেই সময়ে অন্য কোথাও মনোযোগ দেওয়া যাবে না। সময় দেওয়া মানেই যে অনেক সময় লাগবে এমন নয়। তবে সেই সময়টা যেন ‘কোয়ালিটি টাইম’ হয়। সেটা হলে দিনে ১৫ মিনিটও যথেষ্ট হতে পারে। জীবনে রুটিন খুবই জরুরি। সম্পর্কে সম্মান খুবই জরুরি। সেটা যে কেবল সন্তান মা–বাবাকে করবে, তা–ই নয়; মা–বাবাকেও তাঁর সন্তানকে সম্মান করতে হবে।

default-image

বয়ঃসন্ধিকালে মানসিক বিকাশ ও মা–বাবার ভূমিকা


বয়ঃসন্ধিকালকে তুলনা করা যেতে পারে একটা ভেজা সাবানের সঙ্গে। সেটাকে আপনি শক্ত করে ধরলেও পড়ে যাবে। আবার আলগা করে ধরলেও পড়ে যাবে। একেক বয়সে সন্তানদের একেক রকম দাবি থাকে। বয়ঃসন্ধিকালের পরিবর্তনকে উদ্‌যাপন করতে হবে। গলার স্বর বদলে গেলে, পিরিয়ড হলে, মনের বদল হলে সেই সময় সন্তানের পাশে পূর্ণ সমর্থন নিয়ে থাকতে হবে। কাদের সঙ্গে মিশছে, সেটাও খুবই জরুরি। ধরুন, আপনার বাচ্চা হয়তো এমন বন্ধুদের সঙ্গে মিশছে, যাদের প্রতিদিনের হাতখরচ ৫০০ টাকা। কিন্তু আপনি আপনার সন্তানকে সেটা দিতে পারছেন না। ফলে আপনি জোর করে আপনার সন্তানকে তাদের থেকে দূরে সরিয়ে রাখলেন। এতে তার ভেতরে একধরনের রাগ, ক্ষোভ, হতাশা জন্ম নেবে। সেই সময় তাই আপনাকেই বন্ধু হয়ে যেতে হবে। সেগুলো মা–বাবাকেই সামাল দিতে হবে। সেই সময়টা বাচ্চাকে আদর করে বোঝাতে হবে। ওই শূন্যতা, ফাঁকা জায়গাটা পূরণ করতে হবে।


আপনি চাইলে আপনার মুঠোফোনে ডিজিটাল হাসপাতালের অ্যাপ নামিয়ে নিতে পারেন (ডাউনলোড) পারেন। নিবন্ধনে পাবেন এক হাজার টাকা ছাড়ের কুপন।

সুস্থতা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন