default-image
বিজ্ঞাপন

মাস্ক এখন বাধ্যতামূলক। নো মাস্ক, নো সার্ভিসের যুগ এটি। এর কারণ করোনা সংক্রমণ থেকে রক্ষা পাওয়া। এই করোনাকালে সব বয়সের মানুষকেই মাস্ক ব্যবহার করতে হবে, সব সময়। করোনাকালে স্বাস্থ্য ঠিক রাখা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। এর সঙ্গে খাদ্যাভ্যাসের যেমন গভীর যোগাযোগ আছে, তেমনি নিবিড় যোগাযোগ আছে শরীর চর্চার।

কিন্তু একটি প্রশ্ন প্রায়ই সামনে চলে আসে, মাস্ক পরে শরীরচর্চা করা যাবে কি? কারণ, মাস্ক পরে ব্যায়াম করা ও হাঁটাহাঁটি করার সময় কারও কারও শ্বাস নিতে সমস্যা হয়। তা ছাড়া নাক ও মুখ ঢাকা থাকায় শ্বাস টেনে ফুসফুসে বাতাস নিতে অতিরিক্ত শক্তি ব্যয় করতে হয় বলে মনে করা হয়।

এ বিষয় নিয়ে যে বিজ্ঞানী বা বিশেষজ্ঞরা ভাবছেন না, তা নয়। বরং করোনাভাইরাস সংক্রমণের শুরু থেকেই সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা এ ব্যাপারে চিন্তাভাবনা করছেন। এদিকে, ব্যায়াম করার সময় মাস্ক না পরার নির্দেশনা দিয়েছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা। কারণ, তাদের বক্তব্য এতে করে মানুষ স্বাভাবিকভাবে শ্বাস নিতে পারবে না। যদিও বিজ্ঞানীরা দ্বিমত পোষণ করেছেন এই বক্তব্যের সঙ্গে।

default-image

কিন্তু বিষয়টা কি এতটাই সহজ? এমন প্রশ্নও উঠছে। কায়িক পরিশ্রমে কার্ডিওভাস্কুলার সিস্টেমে (হৃৎপিণ্ড, ফুসফুস আর রক্তনালি) মাস্কের প্রতিক্রিয়া নিয়ে সাম্প্রতিক গবেষণায় বলা হয়েছে, অনেকেই মাস্ক পরেই স্বচ্ছন্দে ব্যায়াম করছেন, কোনো সমস্যা হচ্ছে না। সে ক্ষেত্রে মাস্ক পরে থাকলে কোনো ঝামেলা হবে না।

বিজ্ঞাপন
মাস্ক পরে যেকোনো সুস্থ সবল ব্যক্তির, নারী কিংবা পুরুষ, ব্যায়াম করতে কোনো সমস্যা হবে না।

ইউনিভার্সিটি অব ক্যালিফোর্নিয়া সান দিয়েগোর এক্সারসাইজ ফিজিওলজিস্ট সুসান হপকিনস মনে করেন, ব্যায়াম, শরীরচর্চা বা কোনো কায়িক পরিশ্রমের সময় মাস্ক পরে থাকলে রক্তে অক্সিজেন ও কার্বন ডাই-অক্সাইডের প্রভাব পড়ে সামান্যই, যা ধর্তব্যের মধ্যে পড়ে না।

সুসান হপকিনস ও তাঁর সহগবেষক বিভিন্ন ধরনের আচ্ছাদনে মুখ ঢেকে নিরীক্ষা করেছেন। এর মধ্যে সার্জিক্যাল মাস্ক, এননাইন্টিফাইভ ও কারখানায় ব্যবহৃত মাস্ক রয়েছে। তবে উভয়েই মনে করেন এই ধরনের নিরীক্ষার অবকাশ আরও রয়ে গেছে।

সুসান হপকিনস ও তাঁর সহগবেষকের অভিমত হলো, স্বাস্থ্যবান মানুষেরা মাস্ক পরে ব্যায়াম করলে তাঁদের কোনো সমস্যা হবে না। কারও কারও হয়তো অস্বস্তি হতে পারে। বিশেষত যাঁরা মাস্ক পরায় অভ্যস্ত নন, তাঁদের। তবে মাস্ক পরা অবস্থায় অক্সিজেন গ্রহণের পাশাপাশি কিছুটা কার্বন ডাই-অক্সাইডও নেওয়া হলেও তাতে চিন্তার কিছু নেই বলেই গবেষকেরা আশ্বস্ত করেছেন।

default-image

যদিও শ্বাসকষ্ট বা হাঁপানির মতো অসুখে যাঁরা ভুগছেন, তাঁদের কথা আলাদা। তাঁরা স্বাভাবিকভাবেই যথেষ্ট শঙ্কার মধ্যে আছেন।

অতএব মোদ্দা কথা হলো, মাস্ক পরে যেকোনো সুস্থ সবল ব্যক্তির, নারী কিংবা পুরুষ, ব্যায়াম করতে কোনো সমস্যা হবে না।

সূত্র: সায়েন্স অ্যালার্ট

স্বাস্থ্য থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন