রোগ প্রতিরোধে ভিটামিন ডি

বিশ্ব ভিটামিন ডি দিবস উপলক্ষে ইউনিমেড ইউনিহেলথ ও প্রথম আলোর স্বাস্থ্যবিষয়ক বিশেষ আয়োজনে আজকের বিষয় ছিল ‘সুস্থ থাকতে ভিটামিন ডির প্রয়োজনীয়তা’। অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের অধ্যক্ষ ডা. খান আবুল কালাম আজাদ। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের এন্ডোক্রাইনোললি অ্যান্ড মেটাবলিজম ডিপার্টমেন্টের সহযোগী অধ্যাপক ডা. শাহজাদা সেলিম এবং এভারকেয়ার হাসপাতাল, ঢাকার ডায়বেটিকস ডিপার্টমেন্টের প্রিন্সিপাল ডায়টিশিয়ান তামান্না চৌধুরী। সঞ্চালক হিসেবে ছিলেন ডা. জান্নাতুল ফেরদৌস।

default-image

ডা. খান আবুল কালাম আজাদ শরীরে ভিটামিন ডি বিষয়ে প্রথমেই বলেন, ‘ভিটামিন ডি শরীরের জন্য একটি গুরুত্বপূর্ণ উপাদান। শরীরের হাড় ও দাঁত সুস্থ রাখতে যে ক্যালসিয়াম ও ফসফরাসের মেটাবোলিজম দরকার হয়, সেখানে ভিটামিন ডি একটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।’

বিজ্ঞাপন

দেহে ভিটামিন ডি প্রবেশের ক্ষেত্রে খান আবুল কালাম আজাদ বলেন, ভিটামিন ডি মূলত আল্ট্রাভায়োলেট রে, অর্থাৎ সূর্যালোকে থাকে এবং চামড়ার ওপরের ভাগ থেকে শরীরে প্রবেশ করে। কোনো কারণে ব্যক্তি সূর্যের আলোর সংস্পর্শে না এলে ভিটামিন ডির অভাব হয়ে থাকে। এর বাইরে জেনেটিক এবং অঙ্গের সমস্যার কারণেও হতে পারে। যেমন লিভার ও কিডনি সুস্থ না থাকলে ভিটামিন ডি ডেফিসিয়েন্সি হতে পারে।

দেহের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধিতে ভিটামিন ডির প্রভাব সম্পর্কে ডা. শাহজাদা সেলিম বলেন, ‘কোভিড–১৯–এর প্রভাব শুরু হওয়ার পরে ভিটামিন ডি নিয়ে আলোচনা বেড়েছে। আমাদের দেহের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা দুই ধরনের। জন্মগতভাবে এই ক্ষমতা মানুষ নিয়ে আসে। এটি এর মধ্যে একটি। অন্যটি জীবাণুঘটিত রোগ প্রতিরোধ সক্ষমতা। ভিটামিন ডির ঘাটতি থাকলে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কমে যায়। ইমিউনিটি ভালো হলে কোভিডে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা কম। এ জন্য করোনার সময়ের প্রথম থেকেই চিকিৎসক বয়স্ক এবং অন্য রোগে আক্রান্ত ব্যক্তিদের লো ডোজ ভিটামিন ডি সাপ্লিমেন্ট গ্রহণ করতে বলা হয়েছে। কারণ, রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা এর ওপরে নির্ভর করে।’

আমাদের দেশে ৮০ শতাংশ মানুষের দেহে ভিটামিন ডির অভাব। দৈনন্দিন জীবনে বাইরের থেকে অভ্যন্তরে আমরা সময় বেশি কাটাচ্ছি। সূর্যালোকের সংস্পর্শে আসছি না। বেলা ১১টা থেকে ১টা সূর্যালোকের সংস্পর্শে থাকলে দেহ পর্যাপ্ত পরিমাণ ভিটামিন ডি গ্রহণের সুযোগ পায়।

গবেষণায় জানা যায়, আমাদের দেশে ৮০ শতাংশ মানুষের দেহে ভিটামিন ডির অভাব। এ বিষয়ে তামান্না চৌধুরী বলেন, ‘দৈনন্দিন জীবনে বাইরের থেকে অভ্যন্তরে আমরা সময় বেশি কাটাচ্ছি। সূর্যালোকের সংস্পর্শে আসছি না। বেলা ১১টা থেকে ১টা সূর্যালোকের সংস্পর্শে থাকলে দেহ পর্যাপ্ত পরিমাণ ভিটামিন ডি গ্রহণের সুযোগ পায়। কিন্তু কাজের চাপে অনেকেই সময় পান না। এর বাইরে অনেকেই ইমব্যালেন্স ডায়েট করে থাকেন। এর ফলে কিডনির ওপরে চাপ তৈরি হয়। ওজন কমানোর উদ্দেশ্যে কার্ব কম এবং প্রোটিন বেশি এই রীতিতে ডায়েট করার কারণে, কিডনিতে চাপ তৈরি হয়। এর ফলে রোগী কিডনির সমস্যায় আক্রান্ত হন এবং দেহ কম ভিটামিন ডি গ্রহণে অভ্যস্ত হয়। এ ছাড়া আর একটি কারণ হচ্ছে অনেকেই ডাক্তারের পরামর্শের বাইরে নিউট্রিশন গ্রহণ করে থাকেন। যেমন নিজের মতো করে অনেকেই ক্যালসিয়াম গ্রহণ করে।

default-image

দেহে পর্যাপ্ত ভিটামিন ডি না থাকলে ক্যালসিয়াম শরীরে নেতিবাচক ভূমিকা রাখতে পারে। চতুর্থ কারণ হিসেবে আমি ওবিসিটির কথা বলব। এর ফলে দেহের ইমিউন সিস্টেম নাজুক হয়ে যায়। ভিটামিন ডির ঘাটতিও হয়। এর ফলে দেহের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কমে যায়। খাবার থেকে মানবদেহ ৩০ শতাংশ ভিটামিন ডি গ্রহণ করে, কিন্তু বর্তমানে ডায়েটসচেতন অনেকেই কোলেস্টরেলসমৃদ্ধ খাবার পুরোপুরি ত্যাগ করেন। কিন্তু সূর্যালোকের সংস্পর্শে চামড়ার নিচের কোলেস্টরেল থেকেই শরীর ভিটামিন ডি গ্রহণ করে থাকে। আর আমাদের দেশের বাজারে স্নেহজাতীয় খাবারের দাম বেশি। তাই ডিমের কুসুম, তেল, ঘি, সামুদ্রিক মাছ থেকে ভিটামিন ডি পাওয়া যায়, কিন্তু এ ধরনের খাবারের মূল্য বেশি হওয়ার কারণে সবাই এ ধরনের খাবার নিয়মিত গ্রহণ করতে পারেন না।’

বিজ্ঞাপন

তামান্না চৌধুরী জানান কীভাবে দেহ ভিটামিন ডি পেতে পারে। তিনি বলেন, ‘সপ্তাহে তিন দিন ১৫ থেকে ২০ মিনিট সকাল ১০টা থেকে বেলা ৩টা পর্যন্ত সূর্যালোকের সংস্পর্শে থাকলে ১০ হাজার থেকে ২০ হাজার ইউনিট ভিটামিন ডি দেহ গ্রহণ করে।’
শরীরে ভিটামিন ডির ঘাটতি বুঝতে পারার বিষয়ে অধ্যাপক খান আবুল কালাম আজাদ বলেন, ‘মনে রাখতে হবে, ভিটামিন ডির অভাব প্রথমেই বোঝা যায় না। আক্রান্ত ব্যক্তিরা দুর্বল হয়ে পড়েন, কাজে আগ্রহ কমে যায়, ক্লান্তি এবং বিষণ্নতা দেখা দেয়, চুল পড়ে যায়, মাংসপেশিতে ব্যথা হয়। বয়স্কদের চামড়ার নিচে কোলেস্টেরল কমে যায়, তাঁরা দ্রুতই ভিটামিন ডির ঘাটতিতে আক্রান্ত হন। আর ত্বকে মেলানিন বেশি থাকলে আল্ট্রা ভায়োলেট ঢুকতে পারে না, এ ক্ষেত্রেও ভিটামিন ডির ঘাটতি হয়। আবার সব সময় দেহ অতিরিক্ত আবৃত থাকলেও ভিটামিন ডি শরীরের সংস্পর্শে আসতে পারে না। এর বাইরে দীর্ঘদিন মৃগী রোগে আক্রান্ত ব্যক্তিদের শরীরেও ভিটামিন ডির অভাব হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।’

default-image

দর্শকের সরাসরি প্রশ্নের উত্তরে ডা. শাহজাদা সেলিম বলেন, ‘ভিটামিন ডি যথেষ্ট পরিমাণ গ্রহণ করলে কি করোনার আশঙ্কা কমবে—এ কথাটি এখনো গবেষণায় প্রমাণিত না হলেও আমি মনে করি ভিটামিন ডির সঙ্গে যেহেতু রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতার সরাসরি যোগাযোগ রয়েছে, তাই এ ক্ষেত্রে সহায়ক ভূমিকা এই ভিটামিন ডি পালন করে।’

‘অতিরিক্ত ভিটামিন ডি শরীরে নেতিবাচক প্রভাব দ্রুত তৈরি করে কি?’ প্রশ্নের উত্তরে শাহজাদা সেলিম বলেন, ‘আমাদের দেশের মানুষের জন্য দেহে ভিটামিন ডির পরিমাণ ত্রিশের কম হলে সমস্যা তৈরি হতে পারে। নিজে থেকে পরীক্ষা করানোর সেভাবে দরকার নেই। শারীরিক সমস্যা অনুভূত হলে চিকিৎসকের পরামর্শ নিয়ে তবেই পরীক্ষা করতে হবে।’

default-image

তামান্না চৌধুরী বলেন, ‘দেহে ভিটামিন ডি পর্যাপ্ত পরিমাণ রাখতে হলে ব্যালেন্স ডায়েটে থাকতে হবে। আমাদের নিত্যদিনের খাবারে পরিবর্তন আনতে হবে। আমরা স্নেহজাতীয় খাবার গ্রহণের মাধ্যমে ভিটামিন ডি পাব। খাবার গ্রহণের ক্ষেত্রে সময়ের দিকেও নজর রাখতে হবে। খাবারে তেলের ব্যবহারের দিকে নজর রাখতে হবে। সকালের খাবার ৮টা থেকে ৮টা ৩০ মিনিটের মধ্যে শেষ করে বেলা ১১টার দিকে একটি ফল খেতে পারেন এবং ডিনার যতটা সম্ভব তাড়াতাড়ি গ্রহণ করতে হবে।’ তিনি আরও বলেন, ‘ডায়াবেটিস আক্রান্তদের ক্ষেত্রে সচেতনতা আবশ্যক। সূর্যালোকের সংস্পর্শে থাকার বিষয়টি মাথায় রেখে তাদের রুটিন করতে হবে।’

খাবারে ভিটামিন ডির উৎস সম্পর্কে খান আবুল কালাম আজাদ বলেন, ‘খাবারের তালিকায় ভিটামিন ডি নিয়মিত রাখতে হবে এবং জীবনযাত্রার পরিবর্তন করে সূর্যালোকের সংস্পর্শে আসতে হবে। দরকারে চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে।’

মন্তব্য পড়ুন 0