বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

শিশুদের কাশির কারণ
বিভিন্ন কারণে শিশুদের কাশি হতে পারে, তবে এগুলোর মধ্যে প্রধান হচ্ছে ফ্লু বা ঠান্ডা লাগা। গলায় জমে থাকা শ্লেষ্মা এবং গলা ও শ্বাসনালি ফুলে যাওয়ায় সৃষ্ট অস্বস্তির কারণে কাশি হয়ে থাকে।

  • ২. সর্দি বা ঠান্ডা লাগা
    শিশুদের সর্দি লাগার ফলে নাক বন্ধ হয়ে যায়। নাক ও চোখ থেকে পানি পড়ে। প্রচণ্ড মাথাব্যথা হয়। এমনকি কখনো কখনো সর্দির কারণে জ্বরও আসতে পারে।

  • ৩. ফ্লু
    ফ্লুর সংক্রমণ হলে সাধারণ সর্দি কাশির মতোই লক্ষণ দেখা দেয়। এ অবস্থায় শিশুর নাক দিয়ে পানি পড়ে। কখনো কখনো জ্বর এমনকি ডায়রিয়া বা বমিও হতে পারে। ফ্লুর কারণে কাশি সাধারণত শুষ্ক হয়ে থাকে।

default-image

কখন চিকিৎসকের কাছে যাবেন
ঠান্ডা লাগা, জ্বর, সর্দি, কাশি—এগুলো শিশুদের খুবই সাধারণ সমস্যা। তাই অধিকাংশ সময়ই এসব সমস্যায় চিকিৎসকের কাছে যাওয়ার প্রয়োজন পড়ে না। যথাযথ যত্ন ও বিশ্রামেই শিশু সুস্থ হয়ে ওঠে। তবে যদি নিম্নোক্ত লক্ষণগুলো দেখা দেয়, সে ক্ষেত্রে শিশুকে চিকিৎসকের কাছে নিতে হবে।

  • সাত দিনের বেশি সময় ধরে শিশু যদি শুকনা কাশিতে ভোগে।

  • যদি কাশির সঙ্গে সর্দি ও জ্বর থাকে।

  • শ্বাস নেওয়ার সময় যদি কোনো ধরনের আওয়াজ হয় এবং বার বার কাশি হতে থাকে।

default-image
  • যদি আক্রান্ত শিশুর ক্ষুধা এবং ওজন কমে যায়।

  • কাশির কারণে যদি শিশু ঘুমাতে না পারে।

  • শ্বাসকষ্ট দেখা দিলে, যেমন—দ্রুত শ্বাস বা বুকের নিচের অংশ ভিতরের দিকে ঢুকে যেতে থাকলে।

ঠান্ডাজনিত সমস্যা প্রতিরোধের উপায়
নিম্নলিখিত উপায়ে আপনার শিশুকে ঠান্ডাজনিত সমস্যার প্রকোপ থেকে রক্ষা করতে পারেন।

  • ঠান্ডা আবহাওয়ায় শিশুর শরীর চাদর বা গরম জামাকাপড় দিয়ে ঢেকে রাখুন।

  • হাঁপানির কারণে যদি বারবার কাশি হয়, তবে হাঁপানির জন্য চিকিৎসার ব্যবস্থা করতে হবে।

  • শিশুকে সংক্রমণ প্রতিরোধের টিকা দিন।

  • সাধারণ পরিচ্ছন্নতা বজায় রাখুন। যেমন—নিয়মিত বিরতিতে হাত ধোয়া, নাকে–মুখে হাত না দেওয়া ইত্যাদি।

default-image

শিশুর কাশিতে বাড়িতে করণীয়

  • বুকের দুধসহ স্বাভাবিক খাবার চালিয়ে যাওয়া।

  • শিশুকে গরম রাখার জন্য পর্যাপ্ত কাপড় পরিধান করানো।

  • হালকা গরম শর্ষের তেল বা অলিভ-ওয়েল দিয়ে শরীর ম্যাসাজ করা।

  • ভিটামিন সি-জাতীয় খাবার বেশি খাওয়ানো।

    অধ্যাপক আবদুল মান্নান, নবজাতক ও শিশুরোগ বিশেষজ্ঞ
    সাবেক চেয়ারম্যান, নবজাতক বিভাগ, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল ইউনিভার্সিটি, ঢাকা।

সুস্থতা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন