বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

রিফ্রেকশনের ত্রুটির কারণে আলোকরশ্মি আপতিত হয়ে রেটিনার ওপরে মিলিত না হয়ে সামনে অথবা পেছনে মিলিত হয়। আপতিত আলোকরশ্মি রেটিনার সামনে মিলিত হলে তাকে মায়োপিয়া এবং পেছনে মিলিত হলে হাইপারমেট্রোপিয়া বলে। মায়োপিয়ায় মাইনাস পাওয়ারের লেন্স বা চশমা এবং হাইপারমেট্রোপিয়ায় প্লাস পাওয়ারের লেন্স বা চশমা ব্যবহার করতে হয়। এ ছাড়া একধরনের রিফ্রেকটিভ এরর বা ত্রুটি আছে, যেখানে কিছু মিলিত বিন্দু রেটিনার সামনে এবং কিছু মিলিত বিন্দু রেটিনার পেছনে থাকে। এ সমস্যাকে বলা হয় এস্টিগমাটিজম। এ ক্ষেত্রে সিলিনড্রিক্যাল লেন্স ব্যবহার করতে হয়।

পরিবারে কারও দৃষ্টিত্রুটি থাকলে কিংবা পরিবেশের প্রভাবে দৃষ্টিত্রুটি হতে পারে। টানা দীর্ঘ সময় ধরে কাছের কাজ করলে যেমন টানা দীর্ঘ সময় পড়াশোনা, ছবি আঁকা ইত্যাদি শিশুদের ক্ষেত্রে দৃষ্টি সমস্যার কারণ হতে পারে। সময়ের আগে শিশুর জন্ম হলে তার মায়োপিয়ার ঝুঁকি বেশি।

লক্ষণ

দৃষ্টিত্রুটির প্রধান লক্ষণ ঝাপসা দেখা। শিশুদের বেলায় স্কুলে বোর্ডের লেখা, টিভির স্ক্রলের লেখা বা স্কোর দেখা, রাস্তার পাশে সাইনবোর্ডে লেখা বা ছবি ঝাপসা দেখা, খুব কাছ থেকে টিভি দেখা; পড়তে পড়তে লেখা ঝাপসা হয়ে আসা, চোখব্যথা বা মাথাব্যথা কিংবা চোখ জ্বালাপোড়া ইত্যাদি লক্ষণ থেকে অনুমান করা হয়, শিশুর দৃষ্টিসমস্যা থাকতে পারে।

দৃষ্টি সমস্যা সন্দেহ হলে অবশ্যই বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের কাছে যেতে হবে। দৃষ্টি সমস্যা থাকলে ছোট–বড় সবারই উচিত চশমা ব্যবহার করা। বিষয়টি শিশুদের বেলায় অধিকতর জরুরি। কারণ, শিশুদের দৃষ্টি সমস্যায় চশমা ব্যবহার না করলে অনেক সময় এমব্লায়োপিয়া বা স্থায়ী দৃষ্টি সমস্যা এবং ট্যারা চোখ বা স্কুইন্টের মতো দীর্ঘমেয়াদি জটিলতা দেখা দিতে পারে। ৬ থেকে ১২ মাস পরপর নিয়মিত দৃষ্টি পরীক্ষা করাতে হবে।

ডা. মো. ছায়েদুল হক, সাবেক সহযোগী অধ্যাপক, জাতীয় চক্ষুবিজ্ঞান ইনস্টিটিউট ও হাসপাতাল

স্বাস্থ্য থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন