বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

প্রতিকারের উপায়

রোগ হওয়ার আগেই সাবধান হওয়া উচিত। অনেকে লম্বা ট্রাফিক জ্যামে বসে গাড়িতে ঘুমান। এটা কোনো ভালো অভ্যাস নয়। গাড়িতে ঘুম এলে অবশ্যই ঘাড়ে সার্ভাইক্যাল কলার ব্যবহার করতে হবে। নিচু বালিশ ব্যবহার করতে হবে, শক্ত বিছানায় ঘুমাতে হবে। নিয়মিত ঘাড়ের ব্যায়াম করতে হবে। উপুড় হয়ে ঘুমানো উচিত নয়। ঘাড়ে ভারী জিনিস নেওয়া যাবে না। ঘাড়ব্যথার আরও গুরুত্বপূর্ণ কিছু কারণ আছে। ঘাড় ব্যথা হলে সঠিক কারণ নির্ণয় করে সে অনুযায়ী চিকিৎসা নিতে হবে।

সাধারণত ঘাড়ব্যথার প্রাথমিক পর্যায়ের চিকিৎসা হলো, ঘাড়ে কলার পরা, ব্যথার ওষুধ ভরা পেটে খাওয়া, সঙ্গে ফিজিওথেরাপি। কোনো কারণে রোগ থেকে মুক্তি না মিললে ঘাড়ের অপারেশন করা লাগতে পারে।

ডা. হারাধন দেবনাথ, অধ্যাপক, নিউরোসার্জারি বিভাগ, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়, ঢাকা

সুস্থতা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন