বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

* খাবারকে ছোট ছোট বেশ কয়েকভাগে ভাগ করে নিন। অল্প অল্প করে খান। কিছুক্ষণ পর পর খান। যে খাবারের গন্ধ ভালো, দেখতেও ভালো— এমন কিছু নিন। রঙিন টাটকা ফল খান। ফল খেতে ইচ্ছে না করলে ফলের জুস বানিয়ে অল্প অল্প করে খান। যে খাবার আগে কখনো খাননি এমন কিছু চেখে দেখতে পারেন।

default-image

* ঠান্ডা বা হালকা গরম পানি দিয়ে ভালোভাবে গোসল করুন। দেখবেন ক্লান্তি আর অবসাদ কিছুটা হলেও দুর গেছে। নিজের প্রিয় খাবার নিয়ে বসে পড়ুন। দুশ্চিন্তা, বিষণ্নতাকে চেপে বসতে দেবেন না। গা ঝাড়া দিয়ে ঝেড়ে ফেলতে হবে। স্বাভাবিক দৈনন্দিন কাজ চালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করতে হবে।

* তেলে ভাজা খাবার বাদ দিন। কম মশলাযুক্ত, সহজপাচ্য খাবার খান। সেদ্ধ ভাত, আলু ভর্তা, সালাদ, পাস্তা সালাদ, হালকা গরম স্যুপ খেতে পারেন। স্মুদি, মিল্কশেক বা সতেজ অনুভূতি দেয় এমন পানীয় খেতে পারেন। দুধ খেতে ইচ্ছা না করলে দুধের তৈরি জিনিস এই যেমন দই, পনীর বা আইসক্রিম খান। এগুলো প্রেটিনে ভরপুর হওয়ায় শরীর দুর্বল হয়ে পড়বে না। অতিরিক্ত চিনি সমৃদ্ধ খাবার এড়িয়ে চলা উচিত।

default-image

* মুখের স্বাদ ফিরিয়ে আনতে পুদিনার জুড়ি মেলা ভার। ১০ থেকে ১৫ টি পুদিনা পাতা গরম পানিতে ভেজান। তারপর সেই পানি দিনে দু’‌বার খান। সুন্দর ঘ্রাণ আছে এমন মশলা যেমন আদা, রসুন, গোলমরিচ বা ভিনিগার, লেবুর রস, টমেটো, জোয়ান— এগুলো যোগ করতে পারেন আপনার খাবারে। আদায় রয়েছে অ্যান্টিভাইরাল আর অ্যান্টিব্যাক্টেরিয়াল গুণ। আদার গন্ধে নাকের কোষগুলি খুলে যায়, ফলে ঘ্রাণশক্তি ফেরত আসে। এমনকি জিভে স্বাদও চলে আসে।

default-image

* প্রচুর পানি পান করতে হবে। পানি ভালো না লাগলে লেমন টি, লেবু পানি, ডাবের পানি খাওয়া যেতে পারে। এছাড়া, বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিতে পারেন।

স্বাস্থ্য থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন