default-image

হার্নিয়া থাকলেই যে সবার উপসর্গ থাকবে তা নয়, বিশেষ করে ছোট হার্নিয়ার ক্ষেত্রে। আপনার কোনো নির্দিষ্ট উপসর্গ থাকুক বা না থাকুক, হার্নিয়া আপনার কাজে বা অবসরে যেকোনো সময় ব্যাঘাত ঘটাতে পারে। উপসর্গগুলোর মধ্যে সচরাচর ব্যথাই প্রধান। এ ছাড়া পেটে বা কুঁচকিতে ভারী ভাব অনুভূত হতে পারে। আপনার যদি হার্নিয়ার কারণে নির্দিষ্ট উপসর্গ থেকে থাকে, বিশেষ করে ব্যথা থাকে, তবে সার্জন আপনাকে অপারেশন করতে বলবেন। যদি কোনো উপসর্গ না থাকে, তবে সার্জন হয়তো আপনাকে সতর্কতার সঙ্গে পর্যবেক্ষণের কথা বলবেন।

কাজেই অত্যন্ত সততার সঙ্গে আপনার সার্জনকে জানান, হার্নিয়ার উপস্থিতির কারণে আপনার শারীরিক কী কী অসুবিধা হচ্ছে। অধিকাংশ ক্ষেত্রেই দেখা যায়, হার্নিয়া বড় হতে থাকে এবং পারিপার্শ্বিক কোষ কলাগুলো দুর্বল করতে থাকে। এ কারণে উপসর্গের তীব্রতার ঝুঁকি বাড়তে থাকে, যেমন ব্যথা বাড়তে থাকে এবং এর ফলে আপনার জীবনযাত্রায় সমস্যা বাড়তে পারে।

আগে কিংবা পরে হার্নিয়ার অপারেশন লাগবেই; আপনার যদি হার্নিয়ার উপসর্গ না-ও থাকে, আপনি দেরি না করে এখনই অপারেশন করে ফেলার সিদ্ধান্ত নিতে পারেন। অপারেশন দেরি করার কারণে হার্নিয়া বড় হতে থাকে। পারিপার্শ্বিক কোষকলা ও মাংসপেশি দুর্বলতর হয়ে পড়ায় অপারেশন জটিলতর হতে পারে এবং অপারেশন–পরবর্তী সুস্থতা বিলম্বিত হতে পারে।

বিজ্ঞাপন

হার্নিয়া অপারেশনের মাধ্যমে ঠিক না করলে এটি পেটের দেয়ালের বাইরে আটকে গিয়ে ঘায়ের সৃষ্টি করতে পারে, যাকে ইনকার্সেরেটেড হার্নিয়া বলা হয়। এর কারণে হার্নিয়াতে রক্ত সরবরাহ বন্ধ হয়ে যেতে পারে এবং অন্ত্রের মধ্যে খাদ্য চলাচলে বাধা সৃষ্টি হতে পারে। যাকে প্যাঁচালো বা স্ট্র্যাংগুলেটেড হার্নিয়া বলা হয়। সব হার্নিয়াই যে এই ঝুঁকিতে পড়বে তা নয়, তবে এটি একেবারে উড়িয়ে দেয়া যায় না। এ ধরনের একটি অতি জরুরি অবস্থা, যা আপনার নিয়ন্ত্রণের বাইরে যে ক্ষেত্রে অপারেশন জরুরি, সে অবস্থায় যেন আপনি না পড়েন, সে জন্য হলেও হার্নিয়া অপারেশনে বিলম্ব করা উচিত নয়।

হার্নিয়া অপারেশনের মাধ্যমে ঠিক না করলে এটি পেটের দেয়ালের বাইরে আটকে গিয়ে ঘায়ের সৃষ্টি করতে পারে, যাকে ইনকার্সেরেটেড হার্নিয়া বলা হয়।

হার্নিয়া অপারেশনে দেরি করলে তা ঝুঁকিপূর্ণ হবে কি না, তা নির্ধারণ করতে পারে আপনার বয়স। হার্নিয়া অপারেশনকে কয়েক মাস বা কয়েক বছরের জন্য বিলম্বিত করলে এখনকার মতো তুলনামূলক ভালো স্বাস্থ্য–সামর্থ্য বা শারীরিক সতেজতায় পরবর্তী সময়ে আপনি না-ও থাকতে পারেন, যা আপনার অপারেশনকে জটিলতর করে তুলতে পারে এবং ভালো হয়ে ওঠাকে ব্যাহত করতে পারে।

বিজ্ঞাপন

হার্নিয়া নিজে নিজে ভালো হয়ে যায় না। অপারেশনের মাধ্যমেই হার্নিয়া রিপেয়ার করা সম্ভব। হার্নিয়া অপারেশনের সময় শরীরের স্বস্থান থেকে বিচ্যুত অঙ্গ বা অঙ্গের কোনো অংশকে আবার এর যথাস্থানে ফিরিয়ে দিয়ে দুর্বল পারিপার্শ্বিক মাংসপেশি ও কোষকলাগুলোকে শক্ত ও টানটান করে দেওয়া হয়। ছোট আকারের হার্নিয়া অপারেশন করে ঠিক করা একটি বড় আকারের হার্নিয়া অপারেশনের চেয়ে কম জটিল। কাজেই হার্নিয়া অপারেশন করে না ফেলে অপারেশন বিলম্বিত করলে, উপসর্গগুলো আরও অবনতি হতে পারে। অপারেশন দ্রুত করে ফেললে আপনার কর্মব্যস্ত দিনগুলো বা অবসরের সময় অকারণে নষ্ট হবে না।

হার্নিয়া অপারেশন পেট না কেটে ল্যাপারোস্কোপির মাধ্যমে করা যায়, যাতে অনেক দ্রুততর সময়ে সুস্থ হয়ে কর্মক্ষম জীবনে ফিরে আসা সহজতর হয়।

লেখক: সিনিয়র কনসালট্যান্ট, জেনারেল অ্যান্ড ল্যাপারোস্কপিক সার্জারি, ইউনাইটেড হসপিটাল লিমিটেড

মন্তব্য পড়ুন 0