বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

মাড়ির প্রদাহ থেকে জীবাণু রক্তের মাধ্যমে সঞ্চালিত হয়ে হৃদ্‌যন্ত্রের অতি গুরুত্বপূর্ণ ভাল্‌ভগুলোকে আক্রান্ত করতে পারে। হৃদ্‌যন্ত্রের ভেতরের স্তরের প্রদাহের সঙ্গেও মাড়ির রোগের যোগসূত্র রয়েছে।

এ ছাড়া হৃদ্‌যন্ত্রের ওষুধ মুখের স্বাস্থ্যের ওপর প্রভাব ফেলে। যেমন উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে কিছু ওষুধের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ায় মুখ শুষ্ক বা মাড়ি ফুলে যাওয়ার আশঙ্কা থাকে। রক্ত তরলকারী ওষুধ সেবন করলে কারও কারও মাড়ি দিয়ে রক্তও পড়তে পারে।

মুখের সুস্থতায় যা করবেন

● সকালের নাশতা ও রাতে খাওয়ার পর দুই মিনিট নিয়ম করে দাঁত পরিষ্কার করুন।

● ব্রাশের পর আঙুল দিয়ে আলতো করে মাড়ি ম্যাসাজ ও জিব পরিষ্কার করুন।

● চিনির তৈরি খাবার এড়িয়ে চলুন। ফরমালিনমুক্ত মৌসুমি তাজা ফল, শাকসবজি, দুধ, টক দই, ডিম, সামুদ্রিক মাছ, ছোট মাছ খেতে পারেন।

● অন্যান্য রোগ যেমন ডায়াবেটিস, রক্তচাপ, গ্যাস্ট্রিক ইত্যাদি নিয়ন্ত্রণে রাখতে হবে।

● ছয় মাস অন্তর বা মুখের মধ্যে যেকোনো অস্বাভাবিক কিছু লক্ষ করলে দ্রুত অনুমোদিত চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে।

● ধূমপান ও পান–জর্দা পরিহার করুন।

স্বাস্থ্য থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন