default-image

বাংলাদেশে প্রতিবছর প্রায় সাড়ে ১২ হাজারের বেশি নারী নতুন করে স্তন ক্যানসারে আক্রান্ত হয়ে থাকেন। তাঁদের মধ্যে প্রায় সাত হাজারের বেশি নারী স্তন ক্যানসারে মারা যান। এ বছর স্তন ক্যানসার দিবসের প্রতিপাদ্য বিষয় ছিল ‘স্থূলতা স্তন ক্যানসারের ঝুঁকি বাড়ায়’।

যেসব কারণ স্তন ক্যানসারের ঝুঁকি বাড়ায়

* বয়স বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে স্তন ক্যানসারের ঝুঁকি বাড়ে। অধিকাংশ ক্ষেত্রে ৫০ বছর বয়সের পর স্তন ক্যানসার শনাক্ত হয়েছে।

* যদি কম বয়সে মাসিক শুরু হয় (১২ বছর বয়সের আগে) এবং তা ৫৫ বছর বয়সের পর বন্ধ হয়, তাহলে হরমোনের কারণে স্তন ক্যানসারের ঝুঁকি বেড়ে যায়।

* বংশগত কারণে স্তন ক্যানসার হতে পারে।

* ক্যানসার ছাড়াও যাঁরা স্তনের অন্যান্য অসুখে ভুগছেন, তাঁদের ক্ষেত্রে স্তন ক্যানসারের ঝুঁকি রয়েছে।

* যাঁদের বুকে অথবা স্তনে রেডিয়েশন থেরাপি দেওয়া হয়েছে, তাঁদের স্তন ক্যানসার হওয়ার সম্ভাবনা থাকে।

* যেসব মহিলা শারীরিক পরিশ্রম করেন না, তাঁদের স্তন ক্যানসার হওয়ার ঝুঁকি বেশি।

* অতিরিক্ত ওজন স্তন ক্যানসার ঝুঁকি বাড়ায়।

* অধিক বয়সে প্রথম সন্তান ধারণ করলে এবং সন্তানকে বুকের দুধ না খাওয়ালে স্তন ক্যানসারের ঝুঁকি থাকে।

* গবেষণায় দেখা গেছে অ্যালকোহল পানে স্তন ক্যানসারের ঝুঁকি বাড়ে।

বিজ্ঞাপন

স্তন ক্যানসার প্রতিরোধে করণীয়

default-image

এমন কোনো ম্যাজিক্যাল খাবার অথবা সাপ্লিমেন্ট নেই যা সরাসরি খুব দ্রুত ক্যানসার প্রতিরোধ করতে পারে অথবা সারিয়ে তুলতে পারে। তবে স্বাস্থ্যকর খাদ্যাভ্যাস, ব্যায়াম ও মানসিক প্রশান্তি রোগ প্রতিরোধক্ষমতা বাড়াতে ও ক্যানসার প্রতিরোধ করে সুস্থ থাকতে সহায়তা করে। ন্যাশনাল ক্যানসার ইনস্টিটিউট ক্যানসার প্রতিরোধে যে নির্দেশনা দিয়েছে, তা স্তন ক্যানসার ঝুঁকি কমাতে সাহায্য করে। যেমন:

* ফল, সবজি ও হোল গ্রেইন (পুরো শস্যদানা) বেশি খেতে হবে।

* তেল ও চর্বি জাতীয় খাবার গ্রহণের পরিমাণ কমাতে হবে (৩০ শতাংশ)।

* ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখতে হবে।

* ভাজাপোড়া ও ঝলসানো খাবার কম খেতে হবে।

স্তন ক্যানসার প্রতিরোধে প্রয়োজনীয় খাবার

default-image

* বিভিন্ন ধরনের ফল ও সবজিতে প্রচুর ফাইটোকেমিক্যাল ও অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট থাকে, যা ক্যানসার প্রতিরোধে সাহায্য করে। তাই স্তন ক্যানসার প্রতিরোধে বেশি পরিমাণে ফল ও সবজি খাওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়।

* ক্রসিফেরাস সবজি যেমন ফুলকপি, বাঁধাকপি, ব্রকলি ইত্যাদিতে ফাইটোকেমিক্যালস ও ইনডোলস থাকে, যা ক্যানসার প্রতিরোধ করে।

* হোল গ্রেইন বা পুরো শস্যদানা, যা প্রসেস করা থাকে না, এতে উচ্চমাত্রায় জটিল শর্করা, খাদ্যআঁশ, ভিটামিন, মিনারেলস ও ফাইটোকেমিক্যালস থাকে। এই অধিক আঁশসমৃদ্ধ খাবার হরমোনজনিত ক্যানসার প্রতিরোধে সহায়তা করে। তাই প্রতিদিনের খাদ্যতালিকায় ২৫ থেকে ৩০ গ্রামের বেশি আঁশ জাতীয় খাবার রাখা উচিত।

* গাঢ় রঙিন শাকসবজিতে ক্যারোটিনয়েড থাকে, যা ক্যানসার প্রতিরোধ করে; যেমন টমেটো, গাজর, পালংশাক ইত্যাদি।

* শর্ষে, ফুলকপি, বাঁধাকপি, ব্রকলি ইত্যাদিতে আইসোথিওসায়ানেট থাকে, যা ক্যানসারের বিরুদ্ধে কাজ করে।

* রসুনে ফেনোলিক কম্পাউন্ড থাকে, যা স্তন ক্যানসার প্রতিরোধে সাহায্য করে।

* হলুদের অ্যান্টিইনফ্ল্যামেটরি কার্যকরিতা থাকায় এটি স্তন ক্যাসার কোষ বৃদ্ধিতে বাধাদান করে।

* গ্রিন টিতে ফেনোলিক কম্পাউন্ড ও অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট থাকায় এটি ক্যানসারের বিরুদ্ধে কাজ করে।

* সয়াবিন ও অন্যান্য বিচি জাতীয় খাবারে আইসো ফ্ল্যাভনস থাকে, যা ক্যানসারের ঝুঁকি কমায়।

* মাছ, মুরগি, উদ্ভিজ্জ প্রোটিন যেমন ডাল বাদাম ও বিচি জাতীয় খাবার ক্যানসারের ঝুঁকি কমাতে সাহায্য করে।

* সামুদ্রিক তৈলাক্ত মাছ যেমন স্যামন, ইলিশ এবং বাদামে ওমেগা-থ্রি ফ্যাটি অ্যাসিড থাকে, যা স্তন ক্যানসারের ঝুঁকি অনেকটাই কমাতে সাহায্য করে।

* ভিটামিন ডি ক্যানসার প্রতিরোধে কাজ করে। ভিটামিন ডি ফর্টিফায়েড খাবার, সূর্যের আলো ইত্যাদি থেকে ভিটামিন ডি পাওয়া যায়।

* অলিভ অয়েল, অ্যাভোক্যাডো, বাদাম ও বিচি জাতীয় খাবারের পলি আনস্যাচুরেটেড ও মনো আনস্যাচুরেটেড ফ্যাটি অ্যাসিড পাওয়া যায়, যা স্তন ক্যানসারের ঝুঁকি কমায়।

বিজ্ঞাপন

স্তন ক্যানসার প্রতিরোধে যেসব খাবার কম খেতে হবে

default-image

* অতিরিক্ত চিনি জাতীয় খাবার
* ভাজাপোড়া খাবার
* ফাস্ট ফুড
* প্রসেসড মিট যেমন সসেজ
* স্যাচুরেটেড ফ্যাটসমৃদ্ধ খাবার যেমন গরুর মাংস, ভেড়ার মাংস, অর্গান মিট, বাটার, আইসক্রিম ইত্যাদি কম খেতে হবে।
* ট্রান্স-ফ্যাটি অ্যাসিডসমৃদ্ধ খাবার যেমন ক্র্যাকার্স, ডোনাটস, কুকিজ, পেস্ট্রি ইত্যাদিও কম খেতে হবে।

নিয়মিত ব্যায়াম স্তন ক্যানসারের ঝুঁকি কমাতে অনেকটা সাহায্য করে। এ জন্য একটি স্বাস্থ্যকর খাদ্য পরিকল্পনা ও শারীরিক ব্যায়াম খুবই জরুরি। তাই স্তন ক্যানসার প্রতিরোধে খাদ্যাভ্যাস ও ওজন নিয়ন্ত্রণে সচেতন হতে হবে।

লেখক: পুষ্টিবিদ, লেকসিটি ডায়াগনস্টিক অ্যান্ড কনসালটেশন সেন্টার, খিলক্ষেত, ঢাকা

মন্তব্য পড়ুন 0