default-image

হয়তো অনেক দিন ধরেই অপেক্ষায় আছেন সেই শুভদিনের জন্য। মনে মনে কত স্বপ্ন বুনেছেন। কবে, কোথায়, কীভাবে বলবেন সেই কথাটি! ফাগুন তো এসেই গেল... এ বসন্তেই কী সে বলবে! যদি গোলাপ হাতে দুয়ারে কড়া নেড়ে সে এসে দাঁড়ায়, যদি সবচেয়ে বুদ্ধিদীপ্ত হাসি হেসে বলেই ফেলে সেই কথা! কী বলবেন তাঁকে? বসন্ত বাতাসে মন ভাসানোর আগে ভালো করে ভেবে নিন, কী বলবেন তাঁকে।
আপনি হয়তো ‘হ্যাঁ’ বলবেন। হয়তো কিছুই না বলে লাজরাঙা হাসিতে অপেক্ষায় থাকবেন আরেকবার ওই মধুরবচন শোনার। আর নিজে প্রস্তুত না থাকলে তাঁকে হয়তো আরও অপেক্ষা করতে বলবেন কিংবা বলবেন ‘না’। কিন্তু উত্তর দেওয়ার আগে কিছু বিষয় শেষবারের মতো ভালো করে ভেবে নিন-
এই কি সময়?
ভালোবেসে গাছতলায় থাকা আর বিয়ের পিঁড়িতে বসা এক কথা নয়। দাম্পত্যের সম্পর্কে দায়িত্ব, কর্তব্য, প্রত্যাশা সবই কেবল বাড়তে থাকে। আপনি ভালো করে ভেবে দেখেছেন কি জীবনের এই সময়ে এমন সম্পর্কে জড়ানোর জন্য আপনি প্রস্তুত কি না। আপনার আটপৌরে জীবনের বেশির ভাগ সময় সংসারের চার দেয়ালে দিতে, এমন একটা পারস্পরিক প্রত্যাশার সম্পর্কে জড়াতে আপনি কি প্রস্তুত?
সে-ই কি সেই জন?
প্রকৃতির ঋতু পরিক্রমার মতোই জীবনের পরিক্রমাতেও অনেকটা পথ হয়তো আপনাকে এরই মধ্যে পাড়ি দিতে হয়েছে। বন্ধুত্ব হয়েছে, ভালোবেসেছেন, প্রেমে পড়েছেন। জীবনের স্বাভাবিক নিয়মেই আমাদের পথ চলতে হয়। আমরা পথ ভুল করি, আবার পথ চিনে নিই। কিন্তু পথের মোড়ের এই বাঁকটা পেরোতে সাবধানে পা বাড়ানো চাই। এই বাঁক পেরোলেই যে হাতে সংসারের চাবির গোছা! যাকে নিয়ে ভাবছেন, তাঁকে নিয়ে সারাটা জীবন পাড়ি দিতে পারবেন তো? নিশ্চিত হয়ে নিন ইনিই কি সেই জন!
আবেগ আর বুদ্ধিমত্তা
তাঁর অনেক আনাড়িপনায় হেসে গড়াগড়ি খেয়েছেন। তাঁর অনেক আবেগ দেখে ভালোবাসায় বুক ভরে গেছে, ভেবেছেন, আহা! এমন কাউকেই তো খুঁজছিলেন যে এভাবে ভালোবাসায় জীবন ভরিয়ে দেবে! কিন্তু সাবধান, সংসারের পথটা সব সময় গাছতলার মতো অত ফুল ছড়ানো নয়। আবেগের সঙ্গে সঙ্গে তাঁর বুদ্ধিমত্তার কথাও ভাবুন। চিন্তা-চেতনা আর কর্মক্ষেত্রে তিনি বাস্তবেই কতটা বিচার-বুদ্ধি খাটাতে পারেন, সেগুলোও দেখুন। নইলে সংসারযাত্রায় পথ হারানোর মাশুল দিতে হতে পারে।
ভবিষ্যতের গল্পটা
বিয়ের সিদ্ধান্তের সঙ্গে সঙ্গেই যেন সব পাল্টে যেতে শুরু করে। নিজেকেই জিজ্ঞেস করুন তাঁর পরিবারের সঙ্গে আপনি কতটা খাপ খাওয়াতে পারবেন। ভালো করে ভাবুন, আপনার পরিবারের সঙ্গে তিনি কতটা খাপ খাওয়াতে পারবেন। আর আপনাদের নিজের পরিবার গড়ার স্বপ্ন, আপনারা স্বপ্নের একই দৃশ্যে আছেন তো? এসব নিয়ে খোলাখুলি কথা বলেছেন তো তাঁর সঙ্গে?
নিজেকেও দেখুন
আপনি হয়তো বলবেন ‘প্রথাগত’ এসব ধ্যান-ধারণা নিয়ে আপনি পথ চলেন না! জীবনের পথে হয়তো নিজের যোগ্যতা আপনি প্রমাণও করেছেন। কিন্তু আপনারও তো কিছু ‘সীমাবদ্ধতা’ থাকতে পারে, সব মানুষের যেমন থাকে। আর নিজেদের দুর্বলতাগুলোর কথা আমরা প্রত্যেকে নিজেরাই হয়তো সবচেয়ে ভালো জানি। ভালোবাসার বিচার শুধু হৃদয় দিয়ে না করে মাথা দিয়েও করুন। নিজের কাছেই আগে নিজে স্পষ্ট হোন।
এই ফাগুনে আপনার জন্য অনেক শুভ কামনা। এই ফাগুনেই ভ্রমরের গুঞ্জনে সবচেয়ে মধুরতম কথাটি আপনার কানে বাজুক। আপনি হৃদয়-মনে সবচেয়ে ভালো সিদ্ধান্তটি নিন।

বিজ্ঞাপন
সম্পর্ক থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন