বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

তাঁবুর ওপর ছোট ছোট গাছে খেলা করছে ভোমরার চেয়ে একটু বড় আকৃতির হামিংবার্ড। শীতের সকালের সূর্যের আলোয় তাদের মধ্যেও দেখা গেল চঞ্চলতা। রাতের দুটি মশাল এখানো জ্বলছে। গোল হয়ে বসে আমরা রাতের বারবিকিউ চুলার জেগে থাকা কয়লার অল্প আঁচে শরীর উষ্ণ করি। নতুন করে আগুন জ্বেলে রাতে বেঁচে যাওয়া ল্যাম্ব চপ আর চিকেন গ্রিল করা হচ্ছে। আদনান বের করল স্থানীয় আমিশ জাতিগোষ্ঠীর তৈরি কেক। আমিশ এমন এক জাতি, যারা সভ্য সমাজে বাস করছে কোনো ধরনের আধুনিক সুযোগ-সুবিধা ছাড়াই। থাকা–খাওয়া বলুন, কি রোগবালাই, সবকিছুর জন্য ওরা প্রকৃতির ওপর নির্ভর করে। দূরে কোথাও যেতে কিংবা ভারী জিনিস বহন করতে হলে ঘোড়ার গাড়ি ব্যবহার করে।

default-image

আমিশদের সবাই চিনুক বা না চিনুক, আদনাদের ডেজার্টের ওপর সবাই আস্থাবান। রাতে সে আমাদের মার্শমেলো নামের একটি মিষ্টান্ন খাইয়েছে। মার্শমেলো আগুনে গ্রিল করে একধরনের বিস্কুটের ভেতর পুরে চকলেট দিয়ে স্যান্ডউইচের মতো করে খেয়েছি সবাই। আমাদের জিহ্বায় তখন অমৃতের স্বাদ। এখানে জীবনে প্রথমবার ডেজার্ট খেলাম। সকালের নাশতা শেষে অনীক সওদাগর আগের রাতের মতোই ধূমায়িত কফি আর চায়ের ব্যবস্থা করে ফেলল। নাশতা করতে করতে তাঁবু গোটানো শুরু করেছেন সুপন ভাই। তাঁর তাঁবুতে অনায়াসে চারজন থাকতে পারে। ভালো মানের সেই তাঁবু তিনি ওয়ালমার্ট থেকে কিনেছেন ২০০ ডলারে। সামিউল শানের তাঁবুটি সবচেয়ে বড়। সহজে টাঙানো ও গোটানো যায়। ছয়জনে থাকার মতো এই তাঁবুর দাম প্রায় ৩০০ ডলার। সাদি কিনেছে তিনজন থাকার মতো একটা তাঁবু, ৮৭ ডলারে।

এবার আমাদের ফিরতে হবে। জহির খান পিয়ার ভাই তুলে নিচ্ছেন সবুজ ঘাসের ওপর পড়ে থাকা নানান প্যাকেট, যাকে আদর করে নাগরিক জঞ্জাল ডাকা চলে। আমরা সবাই হাত লাগাই, এই সবুজ পাহাড়চূড়া আমরা নাগরিক জঞ্জালে মলিন করতে চাই না। নতুন দিনের জন্য মানুষ তাঁবু নিয়ে আসতে শুরু করেছে। আমাদের চেয়ে খানিক দূরে আছে ওরা। কেউ কেউ হাতুড়ি–শাবল দিয়ে বড় পাথর ভেঙে হীরে, অ্যামাজনিট, রুবি, প্লরিট ও ক্রিস্টাল পয়েন্টের মতো মূল্যবান পাথর খুঁজছে। আমাদের মধ্যে পিয়ার ভাই ছোট একটি হীরের টুকরো পেয়েছেন। ক্রিস্টাল হীরা। হীরা পেয়ে জানিয়েছেন, স্ত্রীকে সঙ্গে করে আনতে পারেননি। তবে স্ত্রীর জন্য সঙ্গে করে কিছু একটা নিয়ে যেতে পারছেন। এতে তিনি মহানন্দিত। অ্যাচ অব ডায়মন্ড মাইন নামের এই পাহাড়চূড়ায় তাঁবুতে বাস করার পাশাপাশি দামি পাথর খুঁজে নেওয়ারও সুযোগ আছে!

default-image

সূর্যের আলো তীব্র হতে শুরু করেছে। আমরা চলে যাচ্ছি পাহাড় ছেড়ে। একটি দিন আর রাত যেন প্রকৃতির সন্তান হয়ে তার কোলে কাটিয়েছি। রাতে প্রাণভরে দেখেছি আকাশভরা তারা, নিউইয়র্ক শহরে যা খালি চোখে দেখা যায় না। নিউইয়র্ক শহর থেকে ৩০০ মাইল দূরে ৭০০ ফুট উঁচু পাহাড়ে বসে আমরা গলা ছেড়ে গেয়েছি লালন ফকির, আবদুল করিম আর জেমসের গান। এ তল্লাট যেন আমাদেরই। আমার সঙ্গে গেয়েছে সাইফুর সানি, স্বপন আহমেদ, মাহি মান্না আর সাদি।

default-image

শীতের রাতের মতো নির্জন হিমেল রাত। সুগন্ধি চেরি কাঠের আগুনের পাশে গোল হয়ে বসে আমরা গল্পে মেতেছি। আমাদের সঙ্গে আছে সুপন ভাইয়ের ছেলে সারিম, নবীন কিশোর। একদিন সে আমাদের এই তাঁবুতে থাকার গল্প শোনাবে তার অনুজদের কাছে। শোনাবে দিনের বেলা খরগোশ শিকার অথবা আদিম মানুষের মতো মাংস পুড়িয়ে খাবার কথা। আজ যদিও অনেক কিশোরকে দড়ি বেঁধেও এখানে আনা যাবে না। ওদের দিন কাটে যন্ত্রে যন্ত্রে, নতুন পৃথিবীর নতুন মন্ত্রে।
লেখক: নাট্যকার ও সাংবাদিক।

ভ্রমণ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন