বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

যেভাবে হলো ডালগোনা নাম

default-image

কানাডিয়ান–মার্কিন সাময়িকী ভাইসে ‘ডালগোনা’ নিয়ে হয়েছে বিশেষ প্রতিবেদন। সেখানে বলা হয়েছে, ঐতিহাসিকদের মতে, শুরুতে নাকি এর নামই ছিল ফেঁতি হুই। ভারতীয় উপমহাদেশেই জন্ম। তবে জনপ্রিয়তায় হাত আছে দক্ষিণ কোরিয়ার। সেখানে একধরনের স্পঞ্জ টফিকে স্থানীয় ভাষায় আদর করে ডাকা হতো ডালগোনা। আবার সেই টফিকেই বিশ্বের অন্যান্য জায়গায় ডাকা হতো হানিকম্ব (মৌচাক) নামে। কেননা, এটায় একটা কামড় দেওয়ার পর এর ভেতরটা মৌচাকের মতো দেখায়। দক্ষিণ কোরিয়ার অভিনেতা ও ইউটিউবার জুং ইল উ চীনের ম্যাকাউতে বেড়াতে গিয়েছিলেন। সেখানে তাঁকে এই পানীয়টি খেতে দেওয়া হয়। সেই ভিডিও তিনি নিজের ইউটিউব চ্যানেলে শেয়ার করেন। সেই পানীয়টি অনেকটা তাঁদের দেশের স্ট্রিট কফি, টফি ডালগোনার মতো। বিধিনিষেধে ভাইরাল হয় সেই পানীয়। এরপর থেকেই ডালগোনা আর আলোচনা থেকে সরেনি।

কেন ডালগোনা এত বিখ্যাত

default-image

বিধিনিষেধে কফির মগে ঝড় তোলা ডালগোনার নামটা ভারিক্কি। তবে তৈরি করতে খুব একটা সময় বা উপকরণ লাগে না। আর এক মগ ডালগোনা হতে পারে আপনার নিঃসঙ্গতার সেরা সঙ্গী। সহজেই বানিয়ে ফেলা যায়। আর স্বাদেও সেরা। এ মুহূর্তে ডালগোনাকে বিশ্বের সবচেয়ে জনপ্রিয় কফি বললে বাড়াবাড়ি হবে না। এখন আবার এর নয়া নাম হয়েছে ‘কোয়ারেন্টিন কফি’।

ঝটপট বানিয়ে ফেলুন ডালগোনা

উপকরণ: ফুটিয়ে ঠান্ডা করা দুধ ১ কাপ, কফি ২ টেবিল চামচ, চিনি ২ টেবিল চামচ, গরম পানি ২ টেবিল চামচ (যেটুকু কফি, সেটুকু চিনি আর সমপরিমাণ পানি)

প্রণালি: একটি পাত্রে কফি, চিনি আর পানি নিন। হ্যান্ড বিটার দিয়ে বিট করুন। না থাকলে চামচ দিয়েও করতে পারেন। সে ক্ষেত্রে অনেকটা সময় লাগবে। ঘন ফেনা তৈরি হওয়া পর্যন্ত বিট করুন বা ফেটান। আরেকটি মগে দুই থেকে চার খণ্ড বরফ নিন। তাতে ফুটিয়ে ঠান্ডা করা এক কাপ দুধ ঢালুন। আর ওপরে ঢালুন বিট করা কফি, চিনি আর পানির মিশ্রণ। ব্যস, হয়ে গেল ডালগোনা কফি। গরম খেতে চাইলে বরফ বাদ দিন। আর গরম দুধ নিন। ফেটানোর সময় ব্যবহার করুন গরম পানি।

ছবি: পেকজেলসডটকম ও আনস্প্ল্যাশডটকম

লাইফস্টাইল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন