default-image

১৭৭৫ সালের এক হিসাবে দেখা যাচ্ছে, ঢাকা জেলে ১১০ জন কয়েদি ছিলেন। তাঁদের মধ্যে ৮৭ জন ডাকাত, ১৫ জন হত্যার আসামি এবং ৮ জন চোর। অধিকাংশ কয়েদিকে দিয়ে সড়ক মেরামত ও নির্মাণকাজ করানো হতো। ১৮৩৩ সালের দিকে ঢাকা জেলের ধারণক্ষমতা ছিল ৮০০ জন। গড়ে তখন সেখানে থাকতেন ৫২৬ জন। পূর্ববঙ্গের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে এসব কয়েদিকে আনা হতো। ১৮৩৬ সাল পর্যন্ত এখানে কোতোয়ালি থানাও ছিল। থানা সরিয়ে ভবনটিকে জেল হাসপাতালে পরিণত করা হয়।

default-image

১৮৬৪ সালে ঢাকা ও চট্টগ্রাম বিভাগের জন্য একটি কেন্দ্রীয় কারাগার গঠনের প্রয়োজন হয়ে পড়ে। ঢাকার তৎকালীন কমিশনার চার্লস বাকল্যান্ড কুমিল্লায় সেটি স্থাপনের প্রস্তাব করেন। অবশ্য তাঁর প্রস্তাব কার্যকর হয়নি। ১৮৭৯ সালে ঢাকা জেলকেই কেন্দ্রীয় কারাগারে রূপান্তরিত করা হয়।

default-image

পাকিস্তান আমল পেরিয়ে স্বাধীন বাংলাদেশ আমলেও জায়গাটি কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে যায়। প্রয়োজনের তাগিদে সম্প্রসারণ করা হলেও দিনে দিনে কেন্দ্রীয় কারাগারে পুরোনো ভবনগুলো জরাজীর্ণ ও বসবাসের অযোগ্য হয়ে পড়ে। ধারণক্ষমতার চেয়ে বন্দিসংখ্যা বেড়ে যায়। তাই কেরানীগঞ্জের রাজেন্দ্রপুরে নতুন আরেকটি কারাগার নির্মাণ করে সরকার। ২০১৬ সালের জুলাইয়ে সেখানে চলে যায় কেন্দ্রীয় কারাগার। তখন এখানে আটক ছিলেন ৬ হাজারের বেশি বন্দী।

সূত্র: বাংলাপিডিয়া, ঢাকা: স্মৃতি বিস্মৃতির নগরী ও কিংবদন্তির ঢাকা

জীবনযাপন থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন