বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

টি ট্রি তেলও পায়ের যত্নের একটা ভালো সমাধান। শুষ্ক ত্বকের রুক্ষতা আর নিষ্প্রাণ ভাব দূর করতে টি ট্রি তেল খুব কাজের। টি ট্রি কিন্তু চা–গাছ নয়! উদ্ভিদটির উৎস অস্ট্রেলিয়ার কুইন্সল্যান্ড ও নিউ সাউথ ওয়েলস এলাকায়। অস্ট্রেলিয়ার আদিবাসীরা এ গাছের তেল ওষুধ হিসেবে ব্যবহার করে। সেখানকার লোককাহিনিতে প্রচলিত আছে, স্বর্গের এক দেবতা তাদের এ তেল উপহার দিয়েছেন। এই তেলে বেশ কিছু অ্যান্টি–অক্সিডেন্ট আর ভিটামিন আছে। একটা কাপে চার ভাগের এক ভাগ জলপাই তেল নিন। সেখানে ছয়–সাত ফোঁটা টি ট্রি তেল দিন। আঙুল দিয়ে মেশান। পায়ের গোড়ালিতে লাগান। ১৫ মিনিট পর টিস্যু দিয়ে মুছে ফেলুন বা ধুয়ে ফেলুন। ফাটা পা সেরে উঠবে।

default-image

খনিজ লবণও পা ফাটা সারাতে উপকারী। ১০০ গ্রাম লবণ কয়েক ফোঁটা মধুর সঙ্গে মেশান। ফাটা গোড়ালিতে ম্যাসাজ করুন। এতে পায়ের মৃত কোষগুলো উঠে যাবে। আর ত্বকের রুক্ষতাও কমে আসবে।

ঘৃতকুমারীও (অ্যালো ভেরা) পা ফাটা রোধ করতে উপকারী। দুই টেবিল চামচ অ্যালো ভেরার জেল নিন। এর সঙ্গে এক টেবিল চামচ গ্লিসারিন মেশান। এরপর সেই মিশ্রণ পায়ের গোড়ালিতে লাগান। প্রতিদিন গোসলের আগে একবার করে লাগাতে পারেন।

default-image

গোলাপজলের সঙ্গে কিছুটা গ্লিসারিন মেশান। এই মিশ্রণ পায়ের গোড়ালিতে লাগিয়ে সারা রাত রেখে দিন। এতে পা ফাটা ও ব্যথা কমবে। পা ফাটা সমস্যার সমাধানে তিলের তেল দারুণ কার্যকর। পায়ে তিলের তেল মাখলে পা ফাটা দূর হয়। এ ছাড়া ভ্যাসলিনের সঙ্গে কয়েক ফোঁটা লেবুর রস মিশিয়ে ফাটা স্থানে মালিশ করুন। এতে ওই মিশ্রণ সেখানে শোষিত হয় বলে পা ফাটা দ্রুত সেরে যায়।

লাইফস্টাইল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন