বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

ঈদে যেহেতু এবার গরম থাকবে, তাই কাফতান, মিডি, ঢোলা কামিজ ইত্যাদি পছন্দের তালিকায় রাখার পরামর্শ দেন ভায়োলা বাই ফারিহার স্বত্বাধিকারী ও নকশাকার ফারিহা তাশমীন। তিনি বলেন, পোশাক নির্বাচনের ক্ষেত্রে সাটিন, সিল্ক, নরম জর্জেট, ভিসকস কাপড় নির্বাচন করতে পারেন। পোশাকে পুঁতি, পাথর, মুক্তা, সিল্ক সুতার কাজ থাকলে দারুণ লাগবে।

ঈদের রাতে একটু গাঢ় রঙের ঝলমলে পোশাক বেছে নিতে পারেন জানিয়ে তাসনুভা আহমেদ বলেন, সেমি ডার্ক, লেমন, সি গ্রিন, পিচ, সামুদ্রিক নীল রঙের রঙের পোশাক পরা যেতে পারে। এগুলো চোখকে আরাম দেবে।

এ তো গেল পোশাক নির্বাচনের বিষয়। এসব পোশাকের সঙ্গে সাজটা কেমন হবে? উত্তরে পারসোনার ব্যবস্থাপনা পরিচালক নুজহাত খান জানান, কোভিড-১৯ আসার পর সবকিছুতে একটি ডাউন টু আর্থ ব্যাপার এসেছে। প্রকৃতির দিকে ঝুঁকছে মানুষ। সাজের ক্ষেত্রেও তা-ই চলছে। এখন ন্যুড বা ন্যাচারাল সাজের একটি চল দেখা যাচ্ছে গোটা বিশ্বে। ন্যুড সাজের ভেতর কতটা জমকালো লুক আনা যায়, সেই নিয়ে চলছে জল্পনাকল্পনা। ঈদের রাতে এ ধরনের লুকেও নিজেকে সাজিয়ে তুলতে পারেন। চোখে হয়তো গাঢ় করে আইলাইনার না লাগিয়ে একটু কাজল দিয়ে ব্লেন্ড করে নিলেন, লিপস্টিকটা হালকা রঙের ব্যবহার করলেন, দেখতে ভালো লাগবে।

মূলত পোশাক অনুযায়ী ভারী ও হালকা সাজতে পারেন। চোখ হালকা করলে লিপস্টিক গাঢ়, আবার চোখ গাঢ় তো লিপস্টিক হালকা। মেকআপ করার আগে ত্বকে বরফ ঘষে নিন। এতে মেকআপ দীর্ঘক্ষণ থাকবে। পরে প্রাইমার ব্যবহার করে নিতে পারেন। তৈলাক্ত ত্বকের জন্য ম্যাট, শুষ্ক ত্বকের জন্য সাধারণ প্রাইমার ব্যবহার করুন। বেজ মেকআপ করে কনসিলার, ফাউন্ডেশন, কন্ট্যুর ও পাউডার দেওয়ার পরই ফিনিশিং স্প্রে লাগিয়ে নিন। সাজটা ভালোভাবে বসবে। ক্রিম-জাতীয় ফাউন্ডেশন, ব্লাশন ইত্যাদি এড়িয়ে ম্যাট ধরনের পণ্য ব্যবহার করুন। এতে ঘেমে গেলেও সাজটা নষ্ট হবে না, জানালেন নুজহাত খান।

বর্তমানে গ্রাফিক আইলাইনারের বেশ চল রয়েছে। সেটাও ব্যবহার করতে পারেন। অনেকে চোখের ওপরে আইলাইনার না দিয়ে নিচে দিচ্ছেন। সাজটা ভারী করতে চাইলে চোখের কোণে গ্লিটার, শাইনি মেটালিক আইলাইনার ব্যবহার করা যেতে পারে। চোখের কোণে পাথরও লাগাতে পারেন। আবার নিচে মোটা করে ভিন্ন রঙের আইলাইনার ব্যবহার করা যায়। লিপস্টিকের ক্ষেত্রে ম্যাটই স্বস্তিদায়ক হবে। লিপস্টিকের রঙের বেলায় লাল, গাঢ় বেগুনি, হট পিংক, কোরাল পিংক, সফট পিংক ব্যবহার করা যায়।

default-image

ঈদের রাতের সাজে চুল নিয়ে কিছুটা খেলা করতে পারেন। সামনেটা বেঁধে পেছনটা খোলা রাখা যায়। সামনের দিকে ক্লিপ দিয়ে আটকে নিতে পারেন। এতে চুল এলোমেলো কম হবে। চুল কোঁকড়ানো বা সোজা করা যায়। পাশ সিঁথি করে ফোলানো বা টুইস্ট করতে পারেন। এতেও ভালো লাগবে দেখতে।

ঈদের রাতটা বিশেষ, তাই সাজটাও বিশেষ হবে, এটাই তো চাওয়া। ঈদের রাতে এমনভাবে সাজুন, যাতে একটি জমকালো ভাব আসে আবার আপনার ব্যক্তিত্বও ফুটে ওঠে শতভাগ।

ফ্যাশন থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন