default-image

সময়টাই উত্সবমুখর। বইমেলা, বসন্তবরণ, ভালোবাসা দিবস—সব কটি উত্সবই তারুণ্যে ভরপুর। প্রস্তুতিটাও তাই জোরালো। তরুণ-তরুণীদের জন্য ফাল্গুন ও ভালোবাসা দিবসের পোশাকের পসরা সাজিয়েছে ফ্যাশন হাউসগুলো। কেমন হবে তারুণ্যের এবারের উত্সবের পোশাক— জানিয়েছেন ডিজাইনাররা।
কে ক্র্যাফটের ডিজাইনার নাদিরা ফেরদৌসি জানালেন, তাঁদের সংগ্রহের পোশাকগুলো সাধারণত ঐতিহ্যবাহী নকশার হয়ে থাকে। তবে টিনএজ এবং তরুণদের পোশাকে দেশীয় ও পাশ্চাত্য নকশার মিশেল দেওয়া হয়েছে। ফাল্গুন ও ভালোবাসা দিবসের পোশাকগুলোয় স্ক্রিন প্রিন্ট, ব্লক প্রিন্ট, এমব্রয়ডারি এবং হাতের কাজ করা হয়েছে।
ডিজাইনাররা জানালেন, বসন্ত বরণ করে নিতে তরুণীরা বেছে নিতে পারেন হলুদ, ম্যাজেন্টা, জলপাই সবুজ এবং চাপা সাদা রং। চাপা সাদা রংটি হালকা হলেও এর সঙ্গে উজ্জ্বল রংগুলো ফুটে ওঠে। 

default-image

আড়ংয়ের ডিজাইনার ঈশিতা আজিম জানালেন, লম্বা, খাটো, ফাঙ্কি কাটিং—সব ধরনের কুর্তা ও টপই বেশি চলছে। কেবল লাল ও হলুদে সীমাবদ্ধ না থেকে পোশাকে এবার দেখা যাবে নানা রঙের সমাবেশ। বেগুনি ও নীলের নানা শেড এমনকি কালো রংও থাকছে পোশাকে।
পোশাকের কথা তো গেল, বিশেষ দিনে কিশোরী নিজেকে কীভাবে সাজাবে, তা জানালেন মিউনিজ ব্রাইডালের রূপবিশেষজ্ঞ তানজিমা শারমিন। বললেন, ‘চেহারায় বৈচিত্র্য আনা যেতে পারে নানা রকম হেয়ারস্টাইলের মাধ্যমে। উঁচু পনিটেল করে তার থেকে কিছু চুল নিয়ে বেণি করে নানা রকম আকৃতি দিতে পারেন। চুলের সাজে টুইস্ট এখন খুব জনপ্রিয়। সামনের চুল ব্যাক কোম্ব করে এক পাশের চুলগুলো টুইস্ট করে অন্য পাশে এলোমেলো করে রেখে একটা খোঁপা করে নেওয়া যেতে পারে। ফ্রেঞ্চ বেণি, খেজুর বেণিসহ নানা রকম বেণিতে এই বয়সী মেয়েদের মানিয়ে যাবে। দিনের বেলায় অনেক ঘোরাঘুরি হয়, তাই এ সময় সানস্ক্রিন বা সানস্ক্রিন সমৃদ্ধ মেকআপ ব্যবহার করা উচিত। চোখ আইলাইনার, কাজল, নানা রঙের পেনসিল লাইনার দিয়ে সাজানো যেতে পারে।

বিজ্ঞাপন
ফ্যাশন থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন