বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
default-image

তবে কথা–কাটাকাটি যে হয়েছে, সে কথা সত্যি। সেটি স্বীকার করে টুইটে ৩ কোটি ১০ লাখ অনুসারীর সঙ্গে বিষয়টি ভাগ করে নিয়েছেন জায়ান। সেখানে তিনি লিখেছেন, ‘হ্যাঁ, তাঁর (ইয়োলান্ডা হাদিদের) সঙ্গে আমার কথা–কাটাকাটি হয়েছে। জিজি তখন কাজে সপ্তাহখানেকের জন্য বাইরে ছিল। আর তিনি আমাদের সঙ্গে থাকছিলেন। খাই নিরাপদে আছে। আমি আর জিজি আপাতত আলাদা আছি। আশা করি, দ্রুতই এই পারিবারিক সংকটের সমাধান হবে।’
হাদিদের এক পারিবারিক বন্ধু দ্য গার্ডিয়ানকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে বলেন, ‘ওরা (জিজি ও জায়ান) আলাদা হয়ে গেছে। তবে ওরা দুজনই খুব ভালো অভিভাবক। দুজনই সমানভাবে তাদের সন্তানকে বড় করার দায়িত্ব নেবে। ইয়োলান্ডা জিজির ব্যাপারে খুবই রক্ষণশীল। যেটা তাঁর মেয়ে আর নাতনির জন্য সবচেয়ে ভালো হবে, তিনি তাই করবেন।’

default-image

তবে জিজি আর জায়ানের জন্য বিচ্ছেদের ঘটনা নতুন নয়। ২০১৫ সাল থেকে প্রেম করছেন এই জুটি। ২০১৮ সালে ঘোষণা দিয়ে আলাদা হয়ে গিয়েছিলেন তাঁরা। কিন্তু কেউ কাউকে ছাড়া থাকতে পারেননি। আবার একসঙ্গেও বেশি সময় থাকতে পারেননি। তাই সম্পর্ক ভাঙা আর জোড়া লাগার নিয়মিত ঘটনায় পরিণত হয়। তবে ২০১৯ সালে এক ইনস্টাগ্রাম পোস্টের মাধ্যমে তাঁরা জানান, সব মিটমাট করে আবার একসঙ্গে আছেন তাঁরা। এরপর এক ছাদের নিচে তাঁদের সঙ্গে যুক্ত হলো আরও একজন। মেয়ে কোলে নিয়ে বিয়েটাও সেরে ফেলার কথা ছিল শিগগিরই। তার আগেই হয়ে গেল বিচ্ছেদ। তবে এটা তাঁদের কততম বিচ্ছেদ বলা মুশকিল।

default-image

২০১৫ সালে ২১ বছর বয়সী জিজির জীবনে বিচ্ছেদের ঘটনা ঘটেছে দু-দুবার। প্রথমে মার্কিন গায়ক ও অভিনেতা জো জোনাসের সঙ্গে তাঁর ছাড়াছাড়ি হয়। এরপর জিজির সম্পর্ক হয় অস্ট্রেলীয় সংগীতশিল্পী কডি সিম্পসনের সঙ্গে। কিন্তু সে সম্পর্কটিরও ইতি ঘটে সেই বছরেই। একই বছরে নতুন করে সম্পর্কে জড়ান জায়ান মালিকের সঙ্গে।
৫ ফুট সাড়ে ১০ ইঞ্চি উচ্চতার জিজি হাদিদ আড়াই বছর বয়স থেকেই শুরু করেন মডেলিং।

ফ্যাশন থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন