বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
default-image

খুবই নিম্নমধ্যবিত্ত, সাধারণ একটা পরিবারে জন্ম নেন ক্যাতরিওনা। তাঁর পরিবার আর্থিক সংকটে পড়ে, যখন তিনি সবে ১৮। তখন থেকেই মডেলিং শুরু করেন এই বিশ্বসুন্দরী। সমানতালে চলত উপস্থাপনা। মাত্র ২০ বছর বয়সেই তিনি অর্থ উপার্জন করে পুরো পরিবারের দায়িত্ব নেন। তবে পড়াশোনা থেমে থাকেনি। নিজেই নিজের স্নাতকের পড়াশোনার খরচ জুগিয়েছেন। যুক্তরাষ্ট্রের ‘ইউনিভার্সিটি অব ম্যাসাচুসেটস বোস্টনে’র ‘বার্কলে কলেজ অব মিউজিক’ থেকে স্নাতক করেন তিনি। এ ছাড়া কারাতে ব্ল্যাক বেল্ট আছে তাঁর।

default-image

ক্যাতরিওনা গ্রে সব সময় চেয়েছিলেন দরিদ্রদের অধিকার আদায়ের অগ্রদূত হতে। বঞ্চিতদের পাশে দাঁড়াতে। স্বরহীনদের আওয়াজ হতে। তাঁর সেই উদ্দেশ্য পূরণের মঞ্চ হিসেবে তিনি বেছে নেন মিস ইউনিভার্সকে। প্রথমবার মিস ফিলিপিনোর মঞ্চে ব্যর্থ হন। ব্যর্থ হয়ে আরও বেশি মরিয়া হয়ে ওঠেন। সেরাদের সঙ্গে শুরু করেন মডেলিংয়ের কোচিং। পরেরবার ঠিকই তাঁর মাথায় ওঠে জয়ের মুকুট। এরপর মিস ইউনিভার্সের মুকুট। এরপরই কাজে ঝাঁপিয়ে পড়েন ক্যাতরিওনা। তিনি হাজার হাজার ডলার জড়ো করেছেন দরিদ্র শিশুদের মৌলিক অধিকার নিশ্চিত করতে। নারী অধিকার আন্দোলনেও ক্যাতরিওনার অবস্থান প্রথম সারিতে।

default-image

সম্প্রতি ক্যাতরিওনা খুলেছেন নিজের একাডেমি। সেখানে তিনি শেখাবেন, ‘কীভাবে রানি হওয়া যায়, সত্যিকারের রানি’। যাঁরা সত্যিকারের রানি হতে চান, তাঁরাই ভর্তি হবেন এই স্কুলে।

default-image
ফ্যাশন থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন