ল্যাকমে ফ্যাশন উইকে অমিত আগারওয়ালের সংগ্রহের ভার্চুয়াল উপস্থাপনা
ল্যাকমে ফ্যাশন উইকে অমিত আগারওয়ালের সংগ্রহের ভার্চুয়াল উপস্থাপনাছবি: ল্যাকমে ফ্যাশন উইক

ল্যাকমে ফ্যাশন উৎসব মানেই চরম ব্যস্ততা। প্রতিদিনই এই মঞ্চে একঝাঁক ডিজাইনার তুলে ধরেন তাঁদের স্বপ্নের ক্যানভাস। তবে ল্যাকমের এবারের ডিজিটাল আসরের তৃতীয় দিনে ছিল না ডিজাইনারদের সমারোহ। তাই এদিন ল্যাকমের ডিজিটাল প্রাঙ্গণজুড়ে ছিল হালকা মেজাজ।

default-image

২১ অক্টোবর থেকে ডিজিটাল আঙিনায় শুরু হয়েছে 'ল্যাকমে ফ্যাশন উইক ২০২০'। তবে এবারের আসরে ডিজাইনারের সংখ্যা নেহাতই হাতে গোনা। ২৩ অক্টোবর শুক্রবার ল্যাকমের মঞ্চ উজ্জ্বল ছিল মিশরু এবং ফারহা সাঞ্জনার ব্যতিক্রমী আয়োজনে। এই দুই তরুণ ডিজাইনার সপ্তমীর সন্ধ্যায় পরিবেশন করেন হালফ্যাশনের গরমের পোশাক থেকে উৎসবের রাতের ঝলমলে পোশাক। 'মিশরু' এবার ফ্যাশনপ্রেমীদের জন্য নিয়ে এসেছিলেন 'দ্য লস্ট সামার'।

এই সংগ্রহ দিয়ে 'মিশরু' নতুন আঙ্গিকে ফিরিয়ে আনেন হারিয়ে যাওয়া নানা ফ্যাশন ট্রেন্ডকে। ইন্দো-ফিউশন স্কার্ট, অপ্রতিসম টিউনিক, পালাজো জাম্পস্যুট, বেলবটম প্যান্ট, হারেম প্যান্ট, কুর্তাসহ আরও নানা পোশাকের ওপর সিকুইন এবং এমব্রয়ডারির কাজ ছিল অভিনব। উৎসবের রাতের জন্য 'মিশরু' মঞ্চে আনেন ফ্রিল দেওয়া পালাজো, লং জ্যাকেট, লেহেঙ্গা-চোলি, ডবল লেয়ার পালাজোর সঙ্গে ডবল লেয়ার টপসহ আরও নানা বাহারি পোশাক।  

বিজ্ঞাপন

ফারহা সাঞ্জনার কালেকশনের নাম ছিল 'রিসেট রিস্টার্ট'। শুধু নারীর নয়, পুরুষের পোশাকের বৈচিত্র্য ছিল তাঁর এই সম্ভারে। বাইকার জ্যাকেট, ডবল ব্রেস্টেড ক্রপড জ্যাকেট, জগিং প্যান্ট, মিলিটারি স্টাইলের ট্রাউজার, মিডি স্কার্ট, এমনকি মাস্কের বাহারও ছিল এই আয়োজনে। এদিনের সংবাদ সম্মেলনে 'মিশরু'র ডিজাইনার স্বপ্না আনুমলু বলেন, ‘অন্যবার আমার শোর সময় ব্যাকস্টেজে থাকি। তাই নিজের শো বসে দেখার উপায় থাকে না। এবার সপরিবার বসে আমার শো দেখেছি।’ তরুণী এই ডিজাইনার আরও বলেন, ‘আমার মাথায় প্রথম নকশা আসে। তারপর তার ক্যানভাস নিয়ে ভাবনাচিন্তা করি। ফ্রেঞ্চ নট, অ্যাপ্লিকে, সিকুইন, এমব্রয়ডারি এই সবকিছু নিয়ে আমার খেলা করতে ভালো লাগে।’

এই সম্পর্কে একই মত পোষণ করেন ডিজাইনার ফারহা সাঞ্জনা। তিনি বলেন, ‘আমিও প্রথম কোনো নকশাকে কল্পনায় আঁকি। এরপর সেটা নোটে লিখি। তবে সব সৃষ্টির ক্ষেত্রে আমাকে প্রকৃতি প্রেরণা দেয়।’

ল্যাকমের তৃতীয় দিনের শেষ আয়োজন ছিল ডিজাইনার অমিত আগরওয়ালের 'ফার্স্ট লাইট' কালেকশন। হাতে বোনা অরগ্যানিক ভারতীয় চান্দেরি, মটকা সিল্কের শাড়ি, লেহেঙ্গা-চোলি সঙ্গে দোপাট্টা নিয়ে এক জমকালো সংগ্রহ প্রদর্শন করেন তিনি। ল্যাকমের মঞ্চে গাঢ় সবুজ, নীল, মেরুন রঙের সঙ্গে সোনালি রং মিশিয়ে এক স্বপ্নের ক্যানভাস আঁকেন অমিত। অনুষ্ঠানের শেষে ভার্চ্যুয়াল সংবাদ সম্মেলনে অমিত বলেন, ‘আমি আমার সৃষ্টির মাধ্যমে সবাইকে চমক দিতে ভালোবাসি। প্রতিনিয়ত নতুন সৃষ্টির খেলায় আমি মেতে থাকি। ভারতের সাবেকি শিল্পকলাকে আধুনিক রঙে রাঙাতে আমি ভালোবাসি।’

default-image

ল্যাকমে ফ্যাশন উৎসবের আরও রঙিন আয়োজনের অপেক্ষায় আছেন ফ্যাশনপ্রেমীরা। এই উৎসবের আর মাত্র দুই দিন বাকি। নামীদামি ডিজাইনাররা এই দুই দিন আরও নতুন চমক, নতুন সৃষ্টি নিয়ে আসতে চলেছেন ল্যাকমের ডিজিটাল প্রাঙ্গণে।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0