মাথা ঘুরছে বনবন

মাঝেমধ্যেই বিপুল অবসাদ ভর করে শরীরে। হুট করে মাথা চক্কর দিয়ে ওঠে। বনবন ঘোরে মাথা, ঘোরে চারপাশ। এমন হওয়া কিন্তু ভালো নয়। দেহের ভারসাম্যহীনতার জন্য এমন হয়ে থাকে। এটি হতে পারে জটিল কোনো রোগের পূর্বসংকেতও। এ অবস্থায় চিকিৎসকের কথা বলতে হবে। পাশাপাশি কতগুলো ঘরোয়া নির্দেশনা অনুসরণ করতে পারেন, যা দেহের ভারসাম্য রক্ষার সমাধান হিসেবে কাজ করতে পারে।

খাওয়ার আগে পানি পান

খাবার গ্রহণের পর অনেকের রক্তচাপ অস্বাভাবিকভাবে কমে যায়। চিকিৎসাবিজ্ঞানের পরিভাষায় একে বলা হয় ‘পোস্টপেন্ড্রিয়াল হাইপোটেনশন’। এ সময় মাথাঘোরা বা অবশ লাগার মতো ব্যাপার ঘটতে পারে। এ সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে খাবার খাওয়ার অন্তত ১৫ মিনিট আগে এক গ্লাস পানি পান করুন। এই পানি আপনার দেহে তরল সরবরাহের মাধ্যমে দৈহিক ভারসাম্য রক্ষা করবে।

পান করুন পর্যাপ্ত পানি

যখনই একটু অবসন্ন লাগবে, মাথা ঘুরতে শুরু করবে, সঙ্গে সঙ্গে বসে পড়ুন। এটি নিম্ন রক্তচাপের লক্ষণ। অনেকক্ষণ দাঁড়িয়ে থাকলে বা বসা থেকে হুট করে উঠে দাঁড়ালে এমন হতে পারে। অধিকাংশ ক্ষেত্রেই পানিস্বল্পতার কারণে এমনটি হয়ে থাকে। বিশেষত, এখন যেকোনো সময়ই এমন হতে পারে। এ জন্য পর্যাপ্ত পানি পান করা জরুরি।

দৃষ্টিকে কেন্দ্রীভূত করুন

যখন আপনি বুঝতে শুরু করবেন যে আপনার মাথা এবং চারপাশ ঘুরতে শুরু করেছে, সঙ্গে সঙ্গে স্থির হয়ে যান। কোনো কাজ করলে তা বন্ধ রাখুন। এবার কোনো একটি স্থির বস্তু, যেমন দেয়াল, ঘড়ি বা ঘরের কোনো নির্দিষ্ট আসবাবে দৃষ্টি নিবদ্ধ করুন। এভাবে কিছুক্ষণ অপলক তাকিয়ে থাকুন। ধীরে ধীরে গতিজনিত জটিলতা কমে যাবে।

গরম পানিতে গোসল করা এড়িয়ে চলুন

গরম পানি রক্ত-শিরাগুলোকে প্রসারিত করে দেয়, যা রক্তচাপ কমিয়ে দিতে পারে। এ অবস্থায় মাথায় ঝিমুনি তৈরি হয়ে থাকে। এ জন্য যথাসম্ভব গরম পানিতে গোসল করা এড়িয়ে চলুন। বিশেষ কারণে গরম পানি ব্যবহার করলেও গোসলে ১০ মিনিটের বেশি সময় নেবেন না।

পান করুন আদা-চা

আদা বিস্ময়কর উপকারী উপাদানসমৃদ্ধ মসলাজাতীয় উদ্ভিদ। মাথাঘোরা, বমি প্রভৃতি গতিজনিত অসুস্থতা (মোশন সিকনেস) কমাতে আদা খুব কার্যকর। নিয়মিত আদা-চা পান করলে এ সমস্যা থেকে অনেকটাই মুক্তি পেতে পারেন।

নিয়মিত খান শস্যদানা

ভাত, আলু, প্রক্রিয়াজাত ময়দা বা চিনিযুক্ত ভারী খাবার দ্রুত হজম হয়ে যায়। ব্যাপারটি রক্তচাপ কমিয়ে দেওয়ার ক্ষেত্রে ভূমিকা রাখে। ফলে মাথাঘোরা বা ঝিমুনি তৈরি হতে পারে। এ থেকে মুক্তি পেতে উচ্চ আঁশযুক্ত ও ধীর হজমের খাবার খেতে পারেন। নিয়মিত বিভিন্ন শস্যদানা ও মটরশুঁটি-জাতীয় খাবার খেলে উপকার পাবেন।

খেতে পারেন আপেল সিডার ভিনেগার

মাথাঘোরা সমস্যার সমাধান হিসেবে আপেল সিডার ভিনেগার বেশ কার্যকর। এটি রক্তচাপ কমে যাওয়ার ঝুঁকি হ্রাস করে।

দ্য হেলদি ডটকম অবলম্বনে