রান্নার সঙ্গে রুচির যোগাযোগ

একটি গবেষণায় দেখা গেছে, কেউ যদি সপ্তাহে অন্তত ছয়বার রাতের খাবার নিজে রান্না করেন, তাহলে তার কম ক্যালরি ও চর্বি খাওয়া হবে।

default-image

কারণ, সরাসরি রান্নায় জড়িত থাকার কারণে খাওয়ার প্রবণতা কমে আসে। নিয়মিত রান্না করলে শরীরে সেরোটোটিন নামে একধরনের হরমোন তৈরি হয়, যা বিষণ্নতা কমাতে ও উদ্বেগ নিয়ন্ত্রণ করতে সাহায্য করে।

দুপুরের খাবারের বিরতি উৎপাদনশীলতা বাড়ায়

সুরক্ষা ও স্বাস্থ্যবিষয়ক প্রতিষ্ঠান টার্কের একটি গবেষণায় জানা গেছে, ২০ শতাংশ কর্মী মনে করেন, নিয়মিত মধ্যাহ্নভোজের পর বিরতি নিলে বস তাঁদের সম্পর্কে খারাপ ভাবেন। অন্যদিকে যুক্তরাষ্ট্রের দ্য ইউনিভার্সিটি অব ইলিনয়ের একটি গবেষণা বলছে, মধ্যাহ্নভোজের বিরতি কর্মীদের উৎপাদনশীলতা বাড়ায় ও কাজে মনোযোগী করে।

default-image

কাজের গতি বাড়ায় যে খাবার

কর্মক্ষেত্রে কাজের গতি বাড়াতে পারে সঠিক খাবার। পাস্তা, রুটি, সিরিয়াল ও সোডার মতো খাবার শরীরে দ্রুত গ্লুকোজ তৈরি করে, যা কাজের গতি বাড়াতে সাহায্য করে। অন্যদিকে বেশি চর্বিযুক্ত খাবার পাকস্থলীর কাজ বাড়িয়ে দেয় এবং মস্তিষ্কে অক্সিজেনের মাত্রা কমায়। এ ধরনের খাবার ক্ষুধা বাড়ায়।

সূত্র: হার্ভার্ড বিজনেস রিভিউ, হেলথলাইন, এইচআরডি, লিভলাইভ ২৪ ও হেলথলাইন

সুস্থতা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন