ঘরের হালকা আসবাব ফিরিয়ে আনতে পারে অন্দরের সৌন্দর্য
ঘরের হালকা আসবাব ফিরিয়ে আনতে পারে অন্দরের সৌন্দর্যছবি: প্রথম আলো

‘সিম্পল ইজ দ্য বেস্ট’ বলে একটি কথা আছে। সৌন্দর্যবর্ধনের জন্য আমরা কখনো কখনো একটু বাড়াবাড়ি করে ফেলি। তখন আর কোনো কিছুরই প্রকৃত সৌন্দর্যটা থাকে না। কোথায় যেন একটু ছন্দপতন হয়ে যায়। বাড়ি সাজানোর সময় সেটা বেশি হয়।

বাড়ির অন্দরে যদি বাড়তি জায়গা না থাকে, তবে অতিরিক্ত আসবাব সৌন্দর্যে খানিকটা বিঘ্ন ঘটায়। যেহেতু শহরের বাসাবাড়িতে পছন্দমতো বাড়তি জায়গা পাওয়া একটু কষ্টকর, তাই আয়তন বুঝে যদি অল্প আসবাবেই সাজানো যায় ঘর; তবে তা হয়ে ওঠে আরও নান্দনিক, আরও আপন। আপনার ঘরের হালকা আসবাব ফিরিয়ে আনতে পারে অন্দরের সৌন্দর্য।

বিজ্ঞাপন
default-image

জানালার সামনে দুটি চেয়ার যুক্ত করে আনা হয়েছে সোফার আদল। পাশের বেঞ্চেও আছে বসার আয়োজন। দেয়ালে সাদা রং, সঙ্গে কন্ট্রাস্ট নীল কুশন কভার। এদিকে মেঝেতে শতরঞ্জির ওপর রাখা হয়েছে নিচু টেবিল। বসার ঘরে আসবাব বলতে শুধু এটুকুই। হালকা ছিমছাম অল্প আসবাবেই যেন ঘরে এসেছে আভিজাত্য।

default-image

শোয়ার এই ঘরে নেই কোনো বাড়তি আসবাবের বাহুল্য। মেঝেতেই থাকছে ঘুমানোর আয়োজন। ঘরের এক কোণে সবুজের আয়োজনে কোনো ধরনের আসবাবের ব্যবহার ছাড়াই সতেজ হয়েছে ঘরটি।

default-image

বসার ঘরে চর্তুভুজাকৃতিতে সাজানো হয়েছে সোফা। আসবাবে নেই কোনো জমকালো কারুকাজ। দিনের আলো যাতে বাধাগ্রস্ত না হয়, সে জন্য জানালা, দরজায় নেই পর্দার আয়োজন। ঘরটি যদিও এমনিতেই বেশ বড়, তারপরও হালকা আসবাব আর দিনের আলোর ব্যবহারে তা পেয়েছে বিশালতা।

default-image

ডিভান আর বড় টুলে বসার আয়োজন ছাড়া আর কোনো আসবাব নেই এই ঘরে। খাবার পরিবেশনের জন্য থাকছে শতরঞ্জির ওপর ছোট টুলের ব্যবস্থা। হালকা আসবাবে ঘর সাজাতে গাছের জুড়ি মেলা ভার। এখানে কর্নারে থাকছে গাছের আয়োজন, সঙ্গে বাড়তি নান্দনিকতা যোগ করেছে পটারিতে রাখা গাছের ডালটি।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0