বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

চায়ের ব্যাগে হিরের টুকরা

পিজি টিপস নামটি অনেকের কাছেই পরিচিত। এটা একটা ব্রিটিশ চায়ের কোম্পানি। ৯১ বছর বয়সী এই কোম্পানিটি বিখ্যাত বাজারে ডায়মন্ডের টি-ব্যাগ আনার জন্য। চায়ের কাপে ডায়মন্ডের টি ব্যাগ ভিজিয়ে খেতে প্যাকেটপ্রতি খরচ পড়বে ১২ লাখ টাকা। পিজি টিপসের চা বিরল প্রজাতির সিলভার টিপস ইম্পোরিয়াল চা। আর এর প্রতিটি টি ব্যাগে রয়েছে ২৮০টি ছোট্ট ছোট্ট হিরের টুকরা। সেই হিরের টুকরা আবার সাধারণ হিরের টুকরা নয়। এর কারুকার্য করেছে বিখ্যাত হিরের কোম্পানি বুডলেস জুয়েলার্স। অবশ্য চায়ের এই সংস্করণটি কেবল একবারই বের হয়েছিল। ২০০৫ সালে, কোম্পানিটির ৭৫ বছর পূর্তি উপলক্ষে। এই চায়ের ব্যাগ বিক্রির টাকার একটি অংশ খরচ হয়েছিল ইংল্যান্ডের বিশেষ চাহিদাসম্পন্ন শিশুদের জন্য তহবিল গঠনে।

default-image

কাঠ, ফুল আর চকলেট ফ্লেভার দিয়ে পোড়ানো হয় এই চা


এই চা-ও চীনের উয়ি পাহাড়েই প্রথম পাওয়া যায়। গাছের হলুদ কুঁড়ি সংগ্রহ করার পর ৬০ শতাংশ জারণ করে সংরক্ষণ করা হয়। স্তরে স্তরে এই চায়ের স্বাদ বদলায়। আর চা যত পুরোনো হয়, ততই এর স্বাদ বাড়ে, সুপেয় হয়। দুই বছর পর পর তাপ দিয়ে এই চায়ের সঙ্গে কাঠ, ফুল আর চকলেট ফ্লেভার দিয়ে পোড়ানো হয়। সাধারণত ৫০ বছর পর বিক্রির জন্য বের করা হয়। প্রতি কেজি চায়ের দাম ৫ লাখ টাকা।

default-image

সোনার চা খেয়েছেন কখনো?

অবশ্য সরাসরি সোনার নয়, সোনার প্রলেপ দেওয়া। ঘটনা হলো, এই চা–গাছে যখন নতুন কুঁড়ি গজায়, তখন পুরো পাতায় ২৪ ক্যারেট স্বর্ণের প্রলেপ দেওয়া হয়। এই ইয়েলো গোল্ড-টি বাডস বছরের একটি বিশেষ দিনেই সংগ্রহ করা হয়। এই চায়ের কুঁড়ি সংগ্রহ করতেও ব্যবহার করা হয় স্বর্ণের কাঁচি। সাতবার প্রক্রিয়াজাত করার পর বাজারজাত করা হয় দুর্লভ প্রজাতির এই চা। এটিও চীনা চা।

default-image

চা–গাছের কেবল তিন নম্বর পাতার চা

আরেক পদের চা হলো ব্রোকেন লিফ টি। ইউরোপের এই চায়ের বিশেষত্ব হলো চা–গাছের কেবল তিন নম্বর পাতা দিয়েই এই চা হয়। নাম ব্রোকেন লিফ টি হওয়ার কারণ, ইউরোপের এক চা ব্যবসায়ী চীনে এই বিশেষ চা রপ্তানি করতে গিয়ে বুঝতে পারেন, চায়ের পাতা যদি আস্ত না রপ্তানি করে ভেঙে দেওয়া হয়, তাহলে জাহাজে দেড় গুণ চা বেশি ধরে। তখন থেকেই চা–পাতা ভেঙে রপ্তানি করার প্রচলন শুরু হলো। এক কেজি ব্রোকেন লিফ টির দাম ৩৫ হাজার টাকা।

default-image

ফ্যাট ঝরানোর চা

তিয়েগুয়ানিন চা স্বাদে গ্রিন-টির চেয়ে কড়া। এতে ব্ল্যাক টির চেয়ে কম ক্যাফেইন থাকে। এই চা প্রস্তুত করতে হয় একটু সাবধানে। পুরোপুরি ফার্মেন্টেশন করা হয় না। রং বদলানো শুরুর আগেই বন্ধ করে দিতে হয় ফারমেন্ট করা। এই চা খেতে দারুণ। আবার মেদ ঝরাতেও বেশ কার্যকর। তিয়েগুনানিন চা হয় দুই রকম। ৬০ ঘণ্টা ঠান্ডায় রেখে দেওয়া হয়। এতে ঘ্রাণ হালকা আর সুগন্ধী হয়। অথবা ৬০ ঘণ্টা উচ্চ তাপমাত্রায় রেখে দেওয়া হয়। সেখানে এটি কালো হয়ে আসে। এটা বেশ কড়া আর ধোঁয়াটে স্বাদের হয়।

default-image

প্রতি কেজি চায়ের দাম এক লাখ

প্রতিবছর দামের রেকর্ড ভেঙে নতুন রেকর্ড গড়ে ভারতের আসামের মনোহরি গোল্ড টি। এ বছর প্রতি কেজি চায়ের দাম ধরা হয়েছে এক লাখ রুপি বা ১ লাখ ১৪ হাজার টাকা। গত বছর এই চায়ের দাম ছিল ৭৫ হাজার রুপি। এই চা তৈরির সময় যখন বলক ওঠে, তখন সোনালি আভা ফুটে ওঠে। তা থেকেই এই নামকরণ। এই ভ্যারাইটির চা কেবল মনোহরি টি এস্টেটেই উৎপাদিত হয়। এই চা নিজের বিশেষ সুগন্ধের জন্যও প্রসিদ্ধ। অন্যান্য চায়ের তুলনায় এই চায়ে অ্যান্টি-অক্সিডেন্টের পরিমাণ বেশি। বার্ধক্য আর স্থূলতা নিয়ন্ত্রণে এই চায়ের বিশেষ নামডাক আছে। ভোর চারটা থেকে ছয়টার ভেতর যখন প্রথম সূর্যরশ্মি পাতার ওপর পড়ে, তখন এই চা সংগ্রহ করা হয়। ফার্মেন্টেশন প্রক্রিয়ায় রং বদলানো হয়। শুকানোর পর সোনালি রঙের দেখায়।

default-image
রসনা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন