যোগব্যায়াম বিশেষজ্ঞ ও লেখক আশরাফুন নাহারের সঙ্গে ফার্মে দেখা। বেড়াতে এসেছেন? জানতে চাইলেই বললেন, ‘পরিবার, বন্ধুদের নিয়ে ঘুরতে এসেছি। প্রতিবছর এই সময়ে আমরা এখানে আসি। বিশাল জায়গাজুড়ে একসঙ্গে নানা রঙের বিপুল টিউলিপ দেখে মন জুড়িয়ে যায়। হৃদয় প্রসারিত হয়। যেদিকে চোখ যায় দিগন্তবিস্তৃত কেবল টিউলিপ। এসব দেখে আমি আবার সৃজনশীল কাজের ধারাবাহিকতায় ফিরি। নতুন উদ্যমে শুরু করি লেখালিখি।’

default-image

খামারের পাশেই আছে ডাচ ঐতিহ্যে নির্মিত টিউলিপচাষিদের বাড়ি। বাড়ির সামনে পরিচ্ছন্ন উন্মুক্ত উঠান। চেরি ফুলসহ নানান ফুল-ফলের বড় বড় গাছের নিচেও লাগানো হয়েছে এক-দেড় ফুট উচ্চতার সব টিউলিপগাছ। ভাস্কর্য করে রাখা হয়েছে টিউলিপ চাষে ব্যবহৃত তাদের পূর্বপুরুষের কাঠের হলুদ জুতা। হলুদ জুতা পায়ে দিয়ে ছবি তোলার ব্যবস্থাও আছে। মাঠ থেকে ফুল তুলে এনে দিলে তারা সুন্দর করে প্যাকেট করে দেয়। তার জন্য ফুলপ্রতি গুনতে হয় এক ডলার। অনলাইনে অর্ডার করলে আছে ডেলিভারির ব্যবস্থা। খামারে যাঁরা কাজ করেন, তাঁরা ডাচ বংশোদ্ভূত। তাঁদের আচরণ অমায়িক।

default-image

নিউইয়র্কের জ্যাকসন হাইটস থেকে ফার্মটির দূরত্ব ৭০ মাইল। গাড়িতে করে যেতে লাগে দেড় ঘণ্টা। বাগানে প্রবেশের আগে হাজার দুয়েক গাড়ি পার্কিংয়ের সুপরিকল্পিত ব্যবস্থা আছে। তেরো ডলারে টিকিট কেটে বাগানে প্রবেশের সময় এক পাতার একটি ব্রুসিয়ার ধরিয়ে দিয়েছে হাতে। তাতে লেখা, এটি যুক্তরাষ্ট্রের সবচেয়ে বড় টিউলিপ ফার্ম। দেওয়া আছে ফার্মের যাবতীয় দিকনির্দেশনা। ফার্মটি দর্শনার্থীদের জন্য সকাল ৯টায় খোলে, বন্ধ হয় বিকেল ৫টায়।

default-image

লাল, নীল, সাদা, হলুদ, বেগুনি, গোলাপি, কমলা—প্রকৃতির সব রং যেন টিউলিপ ফুলে আছে। এক রঙের টিউলিপেও আছে নানান ধরন। তাই এটি একাই একটি রঙের উৎসব। এ সপ্তাহে টিউলিপ ফুটতে শুরু করেছে। সপ্তাহ পাঁচেকের স্বল্প জীবন নিয়ে এ ফুল বর্ণময় করে তোলে পুরো প্রকৃতি। তাই আমেরিকাজুড়ে এখন টিউলিপ উৎসব। ভিন্ন বর্ণের টিউলিপ উপহার দিয়ে ইউরোপ-আমেরিকার মানুষ তাদের অনুভূতি প্রকাশ করে।

default-image

পশ্চিমা জনজীবনে আনন্দ-বেদনা সব উপলক্ষে টিউলিপ যেন এক অবিচ্ছেদ্য অংশ। সুবাসহীন এ ফুল পৃথিবীব্যাপী এত জনপ্রিয় হবে, তা আর কেউ না জানলেও জানতেন অটোমান সুলতানরা। ষোড়শ শতাব্দীর অটোমান সাম্রাজ্যের সুলতান তাঁর শাসনামলে মনোরঞ্জনের জন্য টিউলিপ চাষাবাদ বাধ্যতামূলক করেছিলেন। তুরস্কে ১৮ শতাব্দীর প্রথম দিকে  শুরু হয়েছিল ‘টিউলিপ যুগ’। এই অঞ্চলে টিউলিপের ব্যাপক জনপ্রিয়তার প্রমাণ আফগানিস্তানের জাতীয় ফুল টিউলিপ। ইতিহাসবেত্তারা ধারণা করেন, অটোমান সাম্রাজ্য পেরিয়ে ইউরোপে এই ফুল প্রবেশ করে ভিয়েনার একজন জীববিজ্ঞানীর মাধ্যমে। মধ্য এশিয়ায় জন্ম নেওয়া এ ফুলকে আপন করে নেয় ইউরোপের দেশ হল্যান্ড। দান করে জাতীয় ফুলের মর্যাদা। হল্যান্ডের নতুন নাম নেদারল্যান্ডস। এটিই এখন বিশ্বের বুকে সর্বাধিক টিউলিপ উৎপাদন ও রপ্তানিকারী দেশ।

default-image
ভ্রমণ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন