default-image

৫ মার্চ ছিল একাত্তরের উত্তাল মার্চের পঞ্চম আর লাগাতার হরতালের চতুর্থ দিন। ঢাকাসহ সারা দেশে পূর্ণ হরতাল, স্বাধিকারকামী জনতার বিক্ষুব্ধ মিছিল, গণজমায়েত ও শপথের মধ্য দিয়ে বাংলার মুক্তি আন্দোলনের দিনটি অতিবাহিত হয়। বিভিন্ন স্থানে ক্ষুব্ধ জনতা পাকিস্তানি পতাকা ও মোহাম্মদ আলী জিন্নাহর ছবিতে আগুন দেয়।

সকালে সেনাবাহিনীর গুলিতে টঙ্গী শিল্প এলাকায় ৪ জন শ্রমিকের মৃত্যু ও ২৫ জন আহত হন। এ ঘটনায় ঢাকায় মানুষ বিক্ষুব্ধ হয়ে ওঠে। ছাত্রলীগের উদ্যোগে ছাত্র-জনতা টঙ্গীর নিহত শ্রমিকদের লাশ নিয়ে ঢাকায় মিছিল বের করে। গুলিতে চট্টগ্রামে তিনজন নিহত হয়। বিগত ২৪ ঘণ্টায় চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে আরও ১৪ জন আহত ব্যক্তির মৃত্যু ঘটে। এদিন পর্যন্ত চট্টগ্রামে আন্দোলনে মোট মৃতের সংখ্যা দাঁড়ায় ১৩৮। গুলিতে খুলনায় দুজন ও রাজশাহীতে একজন নিহত হয়। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান জানান, কেবল ঢাকা ও আশপাশেই সেনাবাহিনীর গুলিতে কমপক্ষে ৩০০ জন প্রাণ হারিয়েছে এবং ২০০ জন আহত হয়েছে।

মসজিদে মসজিদে জুমার নামাজের পর শহীদদের আত্মার শান্তি কামনা করে বিশেষ মোনাজাত অনুষ্ঠিত হয়। ঢাকাসহ সারা দেশে প্রতিবাদ সভা ও শোভাযাত্রার আয়োজন করা হয়।

ছাত্রলীগ ও ডাকসুর উদ্যোগে বায়তুল মোকাররম প্রাঙ্গণ থেকে ছাত্রছাত্রীরা লাঠিসোঁটা নিয়ে মিছিল বের করেন। ছাত্র ইউনিয়নের (মতিয়া) উদ্যোগে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে অনুষ্ঠিত হয় ছাত্রজমায়েত। পাকিস্তান লেখক সংঘ গণহত্যার প্রতিবাদে দেশজুড়ে মিছিল বের করে। বিকেলে কবি, সাহিত্যিক ও বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকেরা রাজপথে মিছিল করেন।

লাহোরে আন্দোলনে নিহত শহীদদের গায়েবানা জানাজা ও বিভিন্ন মসজিদে সংকটময় মুহূর্তে দেশের সংহতির জন্য বিশেষ মোনাজাত অনুষ্ঠিত হয়।

বিজ্ঞাপন

ঢাকা নগরে শান্তিশৃঙ্খলা রক্ষার জন্য আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে একটি কন্ট্রোল রুম খোলা হয়। এক বিবৃতিতে সেনা কর্তৃপক্ষ বলে, শেখ মুজিব শান্তি বজায় রাখার আহ্বান জানানোয় পরিস্থিতির উন্নতি হয়েছে। সন্ধ্যায় সরকারি ঘোষণায় বলা হয়, ঢাকায় সেনাবাহিনীকে ব্যারাকে ফিরিয়ে নেওয়া হয়েছে।

তোফায়েল আহমেদ এদিন একটি বিবৃতি দিয়ে বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের রেসকোর্স ভাষণ ঢাকা বেতার কেন্দ্রকে সরাসরি সম্প্রচার করার আহ্বান জানান।

জাহানারা ইমাম তাঁর একাত্তরের দিনগুলি বইয়ে দিনটির বর্ণনা দিয়েছেন এভাবে, ‘আজ ছ’টা-দুটো হরতাল। শেখ মুজিব হরতালের দিনগুলোতে বেতন পাওয়ার সুবিধের জন্য এবং অতি জরুরি কাজকর্ম চালানোর জন্য সরকারি-বেসরকারি সব অফিস দুপুর আড়াইটে থেকে চারটে পর্যন্ত খোলা রাখার নির্দেশ দিয়েছেন। রেশন দোকানও ওই একই সময়ে খোলা। ব্যাংকও তাই। আড়াইটে-চারটের মধ্যে টাকা তোলা যাবে।...শেখের একেকটা নির্দেশে সব কেমন ওলটপালট খেয়ে যাচ্ছে। জরুরি সার্ভিস হিসেবে হাসপাতাল, ওষুধের দোকান, অ্যাম্বুলেস, ডাক্তারের গাড়ি, সংবাদপত্র ও তাদের গাড়ি, পানি, বিদ্যুৎ, টেলিফোন, দমকল, মেথর ও আবর্জনা ফেলা ট্রাক এগুলোকে হরতাল থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে।’

বঙ্গবন্ধুর আলোচনা ও বিবৃতি: রাতে এক বিবৃতিতে বঙ্গবন্ধু বলেন, শেখ মুজিব ভুট্টোর সঙ্গে ক্ষমতা ভাগ-বাঁটোয়ারা করতে রাজি আছেন বলে বিদেশি বেতারে যে খবর বেরিয়েছে, সেটা ‘অসদুদ্দেশ্যমূলক’ ও ‘কল্পনার ফানুস’। তিনি বাংলাদেশে নির্যাতন-নিপীড়ন বন্ধের জন্য যুক্তরাষ্ট্র বা অন্য কোনো বিদেশি রাষ্ট্রের প্রতি পাকিস্তান সরকারের ওপর চাপ সৃষ্টির অনুরোধ জানানোর কথাও সরাসরি অস্বীকার করেন।

এয়ার মার্শাল (অব.) আসগর খান বিকেলে করাচি থেকে এদিন ঢাকায় পৌঁছান। রাতে তিনি বঙ্গবন্ধুর সঙ্গে তাঁর ধানমন্ডির বাসভবনে সাক্ষাৎ করেন।

গণহত্যা বন্ধে তাজউদ্দীনের আহ্বান: আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক তাজউদ্দীন আহমদ এদিন এক বিবৃতিতে বলেন, ঢাকা, চট্টগ্রাম, রাজশাহী, খুলনা, রংপুর, সিলেটসহ বাংলাদেশের অন্যান্য স্থানে মিলিটারির বুলেটে নিরীহ-নিরস্ত্র মানুষ—শ্রমিক, কৃষক ও ছাত্রদের হত্যা করা হচ্ছে। অবিলম্বে এই নরহত্যা বন্ধ করতে হবে। যারা এ ঘটনার জন্য দায়ী, তাদের জানা উচিত যে নির্বিচার নিরীহ-নিরস্ত্র মানুষকে এভাবে হত্যা করা মানবতার বিরুদ্ধে অপরাধ ছাড়া আর কিছুই নয়। তিনি বলেন, বাংলাদেশের মানুষের ওপর আজ যে নির্যাতন নেমে এসেছে, তাঁরা বীরের মতো তা প্রতিরোধ করছেন। আজ আবালবৃদ্ধবনিতা-নির্বিশেষে প্রত্যেক মানুষ মুক্তি অর্জন এবং এক স্বাধীন দেশের স্বাধীন নাগরিক হিসেবে বেঁচে থাকার জন্য দৃঢ়প্রতিজ্ঞ।

পিপিপির বক্তব্য: পাকিস্তান পিপলস পার্টির (পিপিপি) চেয়ারম্যান জুলফিকার আলী ভুট্টো রাওয়ালপিন্ডির প্রেসিডেন্ট ভবনে প্রেসিডেন্ট ইয়াহিয়ার সঙ্গে পাঁচ ঘণ্টার বেশি সময় আলোচনা করেন। তাঁদের আলোচনা শেষে পার্টির মুখপাত্র আবদুল হাফিজ পীরজাদা বলেন, জাতীয় পরিষদের অধিবেশন স্থগিত রাখা নিয়ে আওয়ামী লীগের প্রতিক্রিয়া অত্যন্ত অবাঞ্ছিত ও অযৌক্তিক। অধিবেশন স্থগিত রাখার জন্য পিপলস পার্টিকে দায়ী করা সংগত নয়।

পীরজাদা বলেন, আওয়ামী লীগের সঙ্গে আলোচনার জন্যই পিপিপি জাতীয় পরিষদের উদ্বোধনী অধিবেশন কিছুদিনের জন্য স্থগিত রাখার অনুরোধ জানিয়েছিল। তার অর্থ এই নয় যে জাতীয় পরিষদ ভেঙে দেওয়া হয়েছে। পূর্ব পাকিস্তানে যেসব ঘটনা ঘটেছে, সে জন্য পিপিপি দায়ী নয়। আওয়ামী লীগের শাসনতান্ত্রিক প্রস্তাব পাকিস্তানের সংহতি রক্ষা করতে পারবে কি না, তা নিয়ে পিপিপি সন্দিহান। এ জন্যই ভুট্টো অধিবেশন স্থগিত রাখার দাবি জানিয়েছিলেন।

সূত্র: ইত্তেফাক, দৈনিক পাকিস্তান ও মর্নিং নিউজ, ৬ মার্চ ১৯৭১।

বিজ্ঞাপন
মুক্তিযুদ্ধের দিনলিপি থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন