default-image

তাঁর অমর সৃষ্টি হবিট। গত শতকের তিরিশের দশকে প্রকাশিত এই উপন্যাস তাঁকে রাতারাতি সুপরিচিত করে তোলে সারা দুনিয়ায়। ১৯৫৪ সালে প্রকাশ পায় ‘দ্য লর্ড অব দ্য রিংস’ সিরিজের প্রথম বই। এখন পর্যন্ত সবচেয়ে বিক্রি হওয়া বইয়ের তালিকায় একেবারে ওপরের দিকে আছে জে আর আর টলকিনের এই চারটি বই। তাঁর লেখা বইয়ের এই রকম অভাবনীয় সফলতার পরও নিজেকে মূলত স্কলার ভাবতেন তিনি, লেখক পরিচয় কম দিতেন। বেস্টসেলার বইগুলোর মাধ্যমে এই লেখক বস্তুত একধরনের নিরীক্ষা করেছেন। একটা আলাদা কাল্পনিক জগৎ সৃষ্টি এবং এর অভূতপূ্র্ব সফলতা নিয়ে কখনোই অতি উচ্ছ্বসিত ছিলেন না টলকিন। নিজেই নিজের লেখার সমালোচনা করতেন। কোন কোন জায়গা ভিন্নভাবে লেখার দরকার ছিল, তা বরং চোখে আঙুল দিয়ে নিজেকে বারবার দেখিয়ে দিতেন।

বিজ্ঞাপন

সবচেয়ে মজার ব্যাপার হলো, টলকিন মনে করতেন, তাঁর ভক্তরা আদতে ‘পাগল’। তাঁর ত্রুটিপূর্ণ লেখার এত প্রশংসা যারা করে, তারা আসলে ভালো কাজের মূল্যায়ন করতেই জানে না। কে জানে, তাঁর বই অবলম্বনে তৈরি ব্যাপক জনপ্রিয় চলচ্চিত্রগুলোর প্রতি দুনিয়াব্যাপী মানুষের উন্মাদনা দেখলে তিনি এখন কী বলতেন?

সূত্র: মেন্টাল ফ্লস


গ্রন্থনা: আব্দুল্লাহ আল মুক্তাদির

মন্তব্য পড়ুন 0