বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

যে গল্প শোনার জন্য এই মফস্বল শহরের স্টেশনে নেমে গিয়াস সাহেবের বাসায় যাচ্ছি, সেটার চাক্ষুষ প্রমাণ পেলে আমার কষ্ট সার্থক।’

ওই তো একতলা বাড়িটা। চারপাশ ফাঁকা। সামনের বাগানে ঝোপ-জঙ্গল।

‘সুমনাকে আমি ভালোবাসতাম না। তার বাবার টাকার জন্যই প্রেমের অভিনয় করে বিয়েটা করা। ব্যবসা দাঁড়া করানোর জন্য টাকার দরকার ছিল...’ বাগানে পা দিয়ে ঘড়ঘড়ে গলায় বললেন গিয়াস সাহেব।

নাড়ি ওলটানো একটা বিদঘুটে গন্ধে নাক কোঁচকালাম। শুনছি চুপচাপ।

বাসার বারান্দায় উঠে তালাটা খুলে কাঁপা গলায় গিয়াস সাহেব বললেন, ‘সুমনা আমাকে ভালোবাসত। মনেপ্রাণে। কিন্তু ওর বাবা যখন মারা যাবার সময় আমাকে কোনো টাকা দিয়ে গেলেন না...ব্যবসাটাও ভালো চলছিল না...ঝগড়া করতে গিয়ে একদিন ফুলদানিটা দিয়ে ওর মাথায় মেরে বসলাম...স্পট ডেড।’

ঘরের ভেতরে পা দিতেই তীব্র পচা গন্ধে গা গুলিয়ে উঠল।

‘লাশটা পুঁতে ফেললাম বাগানে। কিন্তু পরের দিন আবার হাজির হলো সুমনা। আবার মেরে ফেললাম ওকে। বাড়ির পেছনে পুঁতলাম। তার পরের দিন আবার এল ও...আবার মারলাম...আবার এল ও...প্রতিদিন আসছে...প্রতিদিন খুন করছি...লাশ রাখার আর জায়গা নেই...’ প্রলাপ বকার মতো বলে চলছেন গিয়াস সাহেব।

ঘরের ভেতরে তৃতীয় একটা ছায়া নড়ে উঠল। ঘুরে দৌড় মেরেছি আমি, পা পিছলে পড়লাম বাগানের একটা নিচু গর্তে। বজ্রপাতের আলোয় দেখলাম, পচা একটা মেয়েলি হাত উঠে এসেছে মাটি ফুঁড়ে।

ওদিকে অন্ধকার বাড়িটায় ফিসফিসিয়ে উঠল একটা নারীকণ্ঠ, ‘গিয়াস, বৃষ্টিতে ঠিকঠাক আসতে পেরেছ তো?’

অন্য আলো থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন