default-image

যে হাত তরল রং নিয়ে খেলা করে, সেই একই হাতে আবার বশ মানে ধাতব ও পাথর—এমন শিল্পী ও ভাস্কর হামিদুজ্জামান খান। একের পর এক চিত্র ও ভাস্কর্যের বেশ কয়েকটি প্রদর্শনী করেছেন তিনি। অবিন্তা গ্যালারি অব ফাইন আর্টসে বর্তমানে ‘নকচারনাল সেডস’ শিরোনামে চলছে তাঁর প্রদর্শনী।
প্রদর্শনীটি চিত্রকলা ও ভাস্কর্যের যুগলবন্দী। এ বছর চিত্রকলা নিয়ে বেশি কাজ করেছেন হামিদুজ্জামান খান, তাই বোধ হয় এ প্রদর্শনীতে ভাস্কর্যের সংখ্যা কম। তবে বড় ক্যানভাসে উঠে এসেছে ভাস্কর্যসুলভ অবয়বের নানান ফর্ম। উদহারণ হিসেবে ‘ইনফিনিটি’ বা ‘অনন্ত’ শীর্ষক ছবিটির কথা বলা যায়।

default-image

তাঁর ‘নকচারনাল সেডস’ নামের ছবিগুলোর মধ্যে পাওয়া যায় আলো-আঁধারির খেলা। গ্যালারিতে ঢুকে বাঁ দিকে এবং ডানের দেয়ালে ছোট ছোট ফ্রেমবন্দী হয়ে আছে এই ছবিগুলো; ভাব ও আবেদনের মধ্যে ঐক্য থাকায় মনে হয় যেন পুরো দেয়ালে একটিই ছবি। জল রঙের এসব ছবিতে প্রতিফলিত হয়েছে শিল্পীর চেতনার খেলা, রঙের মধ্যে আছে গতি, ধ্যান ও পূর্ণতার আবহ। রঙের অর্থ ধরে জ্ঞান, সম্মান, পুনর্জন্ম, মহত্ত্ব, সত্য, একাত্মতা, শোক, তারুণ্য, আশা, ভালোবাসা—এমন অনেক কিছুই বুঝে নেওয়া সম্ভব এসব ছবি থেকে। তদুপরি প্রতিটি ছবিতে তৈরি হয়েছে রং ও ফর্মের শরীরী ভাষা, আছে রেখার নানান চলন, ব্রাশের টানটোনের বৈচিত্র্য এবং এলিয়ে পড়া গড়িয়ে যাওয়া রঙের বিস্তরণ। ছবিগুলো মন ও চোখকে প্রশান্তি দেয়।
ভাস্কর্য বা চিত্রকলা—হামিদুজ্জামানের কাজে রয়েছে স্পেস নিরীক্ষা। ফর্মের অভিব্যক্তি বক্তব্যকে জানান দেয়। ফর্ম ও কম্পোজিশনের সরলীকরণ একধরনের আধ্যাত্মিক আবেগকেও জাগ্রত করে। সব মিলিয়ে মনে হয়, তাঁর চিত্রকলা ও ভাস্কর্যের ফর্মগুলো যেন ধ্যান করছে। ১৭ নভেম্বর শুরু হওয়া প্রদর্শনীটি চলবে ৩০ ডিসেম্বর পর্যন্ত।

কোথায় কোন প্রদর্শনী
 অরিট শাহের আলোকচিত্র প্রদর্শনী
সারফেস
লা গ্যালারি (আঁলিয়স ফ্রঁসেস, ধানমন্ডি, ঢাকা)
৩০ নভেম্বর থেকে ১৫ ডিসেম্বর

 ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কারুশিল্প বিভাগের
বার্ষিক শিল্পকর্ম প্রদর্শনী
জয়নুল গ্যালারি (চারুকলা অনুষদ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, শাহবাগ, ঢাকা)
২৯ নভেম্বর থেকে ৫ ডিসেম্বর

 সজীব সেনের প্রদর্শনী
এক্সাইল স্টোরি
কলাকেন্দ্র (১/১১ ইকবাল রোড, চতুর্থ তলা, মোহাম্মদপুর, ঢাকা)
১৭ নভেম্বর থেকে ১৫ ডিসেম্বর

 এম এ তাহেরের আলোকচিত্র প্রদর্শনী
বাংলাদেশের নৌকা
িচত্রশালা গ্যালারি–১, (বাংলাদেশ িশল্পকলা একাডেিম, ঢাকা)
১ েথকে ১৫ ডিসেম্বর

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0