বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

নিরুত্তর ভাসে শব। ওড়ে পোড়া ঘরবাড়িদের ছাই

একটি ক্রুদ্ধ বেয়নেট স্থির হয়ে গেঁথে থাকে

রক্তিম কুসুমদলে। ভীরু দোয়েলটি ধীরে

সুরের সবুজ আলো ফেলে আসে।

আজ এই পৌষের শান্ত অপরাহ্ন

ভরে আছে নিসর্গের মুঠোভরা ঘ্রাণে

মরণের দাগ আঁকে তৃণগুচ্ছ, শিশুদের

কোমল কোরাস থেকে থেকে বেজে ওঠে।

পৌষের শান্ত বেলা কামানের হুঙ্কারের পর

কত দিন পর আজ নীলাকাশ, শুভ্র মেঘের আসা–যাওয়া

রুপোলি জ্বলছে আলো, মিষ্টি নদীটি

জল ভেঙে চলে গেছে তবু তরু হাওয়াদের সাথে হেসে ওঠে।

নিরুদ্দেশে যাব আমি? দূর থেকে বাতিঘর

অ্যারোপ্লেন সোনালি গুঞ্জন ফেলে ডাকে।

তরুশ্রেণি ছেড়ে দিয়ে, নিসর্গের মতো শান্ত মানুষকে

যাব আমি?

আকাশে রুপোলি আলো, পাতায় রুপোলি রূপ

হেসে ওঠে অযুত মানুষ

একটি গম্ভীর গোল রুপোর ঘণ্টা যেন থেকে থেকে বাজে।

প্রেমিকার মতো এই বঙ্গ ছেড়ে কোন দিকে যাব।

কবিতা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন