লেলিহান

আগুন জ্বলে, ফের আগুন জ্বলে!

জ্বলে ওঠে আগুনের লেলিহান শিখা দাউ দাউ;

আবার পোড়ে! আবারও পুড়ে অঙ্গার সুঠাম–সুন্দর দেহগুলি—

হয় পোড়া কাঠ! আধেক পোড়া কাঠকয়লা যেন!

বুঝি তারা কোনো ঝলসানো পাখি, অথবা বুনো খরগোশ,

নিষ্ঠুর পিশাচের দল আগুনে পোড়ায় জীবন্ত মানুষ

বারবার হয় আগ্নেয়গিরির অগ্ন্যুৎপাত; ছুটে আসে লাভা। পোড়ায় জনপদ

পোড়ায় মানুষ—

লাভা ছুটে আসে নিমতলীর ঘিঞ্জি গলিতে—সে লাভার আগুন আজও জ্বলে

ধিকিধিকি জ্বলে আজও—রুনা, রত্না কিংবা শান্তার বুকে

দিন যায়। লাভাস্রোত ধেয়ে আসে পুনরায়

রুদ্ধ গৃহকোণে

আবারও লাভা উদ্‌গিরণ করে নারায়ণগঞ্জে, চট্টগ্রামে, মগবাজারে বা সীতাকুণ্ডে

রচিত হয় নতুন শোকগাথা;

বাতাসে পোড়া গন্ধ, পোড়া মানুষের শব ও শব্দ

ওঠে গগনবিদারী চিৎকার, স্বজনহারা প্রিয় মানুষের হৃদয় নিংড়ানো বিলাপ—

আহ আকাশ–বাতাস মন্থন করি!

সে বিলাপে কেঁপে ওঠে বন–বনানী, পর্বতমালা!

সীমাহীন লোভের অনলে পুড়ে গেছে যে হৃদয়

তাকে কেন শুধতে হবে তুচ্ছ শ্রমিকের জীবনের দাম?

আগ্নেয়গিরির জ্বলন্ত লাভা, আগুন জ্বলে, ফের আগুন জ্বলে!