বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

তবে উপজেলা চেয়ারম্যানের আসনে যে-ই আসীন থাকুন না কেন, স্থানীয় সরকার ব্যবস্থায় তাঁদের পদের আইন প্রদত্ত মর্যাদা ও ক্ষমতা অন্য কেউ হরণ করবে, সেটা কোনোভাবেই সমর্থনযোগ্য নয়। সে কারণেই হাইকোর্টের এই আদেশ দুটি নিয়ে আলোচনা প্রয়োজন। বিষয়টিতে সংবাদমাধ্যমের আগ্রহের ঘাটতি লক্ষ করে জেলা ও দায়রা আদালতের একজন বিচারক আমাকে লিখেছেন, এই আদেশ যে কতটা যুগান্তকারী, প্রকট অগণতন্ত্রের এই মহামারির মধ্যে জনপ্রতিনিধিদের (গণতন্ত্রের) এই অধিকার প্রতিষ্ঠা যে কতটা তাৎপর্যপূর্ণ, তা মনে হচ্ছে বাংলাদেশের গণমাধ্যম অনুধাবন করতে পারছে না।

১৬ সেপ্টেম্বর হাইকোর্টের একটি বেঞ্চ প্রতিটি উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যানকে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার মতো নিরাপত্তা দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন। একই সঙ্গে উপজেলা পরিষদ ভবনের সাইনবোর্ডে বিচারপতি ফারাহ মাহবুব ও বিচারপতি এস এম মনিরুজ্জামানের বেঞ্চ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কার্যালয়ের পরিবর্তে উপজেলা পরিষদ কার্যালয় লেখার নির্দেশ দিয়েছেন। উপজেলা চেয়ারম্যানদের ক্ষমতা খর্ব করে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাদের ক্ষমতা দেওয়ার বৈধতা নিয়ে তিনজন উপজেলা চেয়ারম্যানের এক রিট আবেদনের শুনানি নিয়ে আদালত এই অন্তর্বর্তী আদেশ দেন। একই সঙ্গে আদালত উপজেলা পরিষদ আইন, ১৯৯৮-এর ধারা ১৩(ক), ১৩(খ) ও ১৩(গ) কেন সংবিধানের সঙ্গে সাংঘর্ষিক হবে না, তা জানতে চেয়ে সরকারের প্রতি কারণ দর্শানোর নোটিশ জারি করেছেন। এই ধারাগুলো উপজেলা চেয়ারম্যানদের অপসারণ ও সাময়িক বরখাস্তকরণবিষয়ক। আদালতে বিচারাধীন এসব বিষয় নিয়ে আপাতত আমাদের আলোচনার কোনো অবকাশ নেই। আমরা শুধু আদালতের অন্তর্বর্তী আদেশের বিষয়েই আলোচনা করতে পারি।

এর আগে ১৪ সেপ্টেম্বর হাইকোর্টের আরেকটি বেঞ্চ উপজেলা পরিষদের অধীনে ন্যস্ত সব দপ্তরের কার্যক্রম পরিষদের চেয়ারম্যানের অনুমোদনক্রমে ও বিধি অনুসারে করার জন্য উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাদের প্রতি নির্দেশ দিয়েছেন। বিচারপতি মো. মজিবুর রহমান মিয়া ও বিচারপতি মো. কামরুল হোসেন মোল্লার বেঞ্চ এই আদেশ দেন। এই মামলার পটভূমি হচ্ছে ১৭টি বিভাগের কাজ উপজেলা পরিষদের ওপর অর্পিত হলেও সেগুলোর বেলায়ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তারাই ক্ষমতা প্রয়োগ করে চলেছেন। ওই সব বিভাগ যেসব মন্ত্রণালয়ের অধীন, সেসব মন্ত্রণালয়ের সচিবেরা চেয়ারম্যানদের পরামর্শক্রমে কাজ করার জন্য উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাদের উদ্দেশে পরিপত্র জারি করায় সংক্ষুব্ধ চেয়ারম্যানদের পক্ষ থেকে রিট আবেদন করা হলে আদালত এই নির্দেশ দিয়েছেন।

যে বিচারক আমার কাছে গণমাধ্যমের ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন করেছেন, তিনি অবশ্য একই সঙ্গে এমন আশঙ্কাও প্রকাশ করেছেন যে আদালতের নির্দেশনা আদৌ প্রতিপালিত হবে কি না। তাঁর আশঙ্কা মোটেও অমূলক নয়। জনপ্রতিনিধিদের যে আমলারা এখন খুব একটা পরোয়া করেন না, সেই অভিযোগ তো আমরা প্রবীণ সাংসদদের মুখ থেকেই শুনেছি। বরিশালে সিটি করপোরেশনের মেয়রের সমর্থকদের সঙ্গে স্থানীয় প্রশাসনের দ্বন্দ্ব-সংঘাতে পদমর্যাদায় মেয়রের বিপরীতে নিম্নপদস্থ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার পক্ষে জেলা প্রশাসকের যে দাপট প্রকাশ পেয়েছে, তাতে উপজেলা চেয়ারম্যানদের অবস্থান কোথায় দাঁড়ায়, তা অনুমান করা কঠিন নয়। আমলাদের উৎসাহ ও প্ররোচনায় সরকারের পক্ষ থেকে হাইকোর্টের আদেশের বিরুদ্ধে আপিল এবং আদেশের কার্যকারিতা স্থগিতের আবেদনের সম্ভাবনা তাই উড়িয়ে দেওয়া যায় না। ওই বিচারক আমাকে এ কথাও স্মরণ করিয়ে দিলেন যে আপিল দায়ের করে হাইকোর্টের আদেশের ওপর স্থগিতাদেশ না পেয়েও সরকার সেই আদেশের বাস্তবায়ন ঝুলিয়ে রেখেছে, এমন নজিরের অভাব নেই।

আওয়ামী লীগ উপজেলা পদ্ধতির পুনরুজ্জীবন ঘটালেও তার প্রকৃত ক্ষমতায়নে কতটা আন্তরিক, তা এখনো প্রমাণিত নয়। বস্তুত আইনে বিধান রাখা হয়েছে যে উপজেলা পরিষদের ওপর সরকারের নিয়ন্ত্রণ ও তদারকির ক্ষমতা থাকবে। সুতরাং সরকার যখন অতিমাত্রায় আমলানির্ভর হয়ে পড়ছে, তখন স্থানীয় সরকার কাঠামোর প্রতিষ্ঠানগুলো শক্তিশালী হবে মনে করার কোনো কারণ নেই।

আদালতের নির্দেশনা পালিত হলো কি না বা চেয়ারম্যানরা কেউ নিরাপত্তারক্ষী পেলেন কি না, সে রকম কোনো খবর গত এক সপ্তাহে আমার নজরে আসেনি। হতে পারে বিনা ভোটের বা বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতার চেয়ারম্যানদের জন্য করদাতাদের টাকা খরচ নৈতিকভাবে সমর্থনযোগ্য নয় বলে অনেকে ভাবতে পারেন। কিন্তু তেমন ভাবনা কি বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় অন্য যাঁরা নানা পদে আসীন হয়েছেন, তাঁদের বেলায় কেউ বলেছে? কিংবা প্রশ্নবিদ্ধ ভোট সম্ভব হয়েছে যে আমলাদের কারণে, তাঁদের বেতন-ভাতায় স্ফীতির বিষয়ে কি আমরা কিছু করেছি? এই আমলারাই হঠাৎ উপজেলা পরিষদের সাইনবোর্ড বদলে ফেলে নিজেদের উপস্থিতি জানান দিতে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কার্যালয়ের সাইনবোর্ড ঝুলিয়েছেন। স্থানীয় সরকারব্যবস্থার একটি গুরুত্বপূর্ণ প্রতিষ্ঠানের অস্তিত্ব নাকচ করে দিয়ে তাঁরা নিজেদের ক্ষমতা জাহির করেছেন। সম্ভবত এ কারণেই বরিশালের জেলা প্রশাসক উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে প্রধানমন্ত্রীর প্রতিনিধি বলে দাবি করতে পারেন।

উপজেলা পরিষদ অবশ্য সরকারের অন্য নীতির কারণেও কিছুটা দুর্বল হয়েছে। এর মধ্যে সবচেয়ে গুরুতর হচ্ছে সাংসদদের উপজেলা পরিষদে উপদেষ্টার ভূমিকা দেওয়ার আইন। উপজেলা চেয়ারম্যান এবং সাংসদের দ্বন্দ্বে কত উপজেলায় কত উন্নয়ন প্রকল্প দীর্ঘসূত্রতা ও অনিশ্চয়তার মুখে পড়েছে, তার কোনো নির্ভরযোগ্য হিসাব পাওয়া যায় না। তবে অভিযোগ ঠিকই শোনা যায়। আইনপ্রণেতাদের উন্নয়ন কার্যক্রমে আনুষ্ঠানিকভাবে যুক্ত করার বিরুদ্ধে সব যুক্তি প্রত্যাখ্যান করা হয়েছে। উপজেলা চেয়ারম্যানদের আন্দোলনেও সরকার অনড় থেকেছে। সাংসদদের তদারককারীর ভূমিকা দিয়ে এবং আইন লঙ্ঘন করে প্রশাসনকে বিভিন্নভাবে ক্ষমতায়িত করে গত এক দশকে উপজেলা পরিষদের জনপ্রতিনিধিদের ক্ষমতা অনেকটাই খর্ব করা হয়েছে।

উপজেলা ব্যবস্থার প্রচলন করেছিলেন সাবেক সেনাশাসক হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ এবং সে কারণে তখন সব রাজনৈতিক দল এর বিরোধিতায় এককাট্টা ছিল। ছাত্র আন্দোলন থেকেও উপজেলা বাতিলের দাবি জানানো হয়েছিল। সামরিক শাসনের বিরুদ্ধে গণ-আন্দোলন সফল হওয়ার পর বিএনপি প্রথমবার নির্বাচিত হলে উপজেলা ব্যবস্থার বিলোপ ঘটায়। আওয়ামী লীগ উপজেলা পদ্ধতির পুনরুজ্জীবন ঘটালেও তার প্রকৃত ক্ষমতায়নে কতটা আন্তরিক, তা এখনো প্রমাণিত নয়। বস্তুত আইনে বিধান রাখা হয়েছে যে উপজেলা পরিষদের ওপর সরকারের নিয়ন্ত্রণ ও তদারকির ক্ষমতা থাকবে। সুতরাং সরকার যখন অতিমাত্রায় আমলানির্ভর হয়ে পড়ছে, তখন স্থানীয় সরকার কাঠামোর প্রতিষ্ঠানগুলো শক্তিশালী হবে মনে করার কোনো কারণ নেই।

সন্দেহ নেই, আদালতের সাম্প্রতিকতম আদেশ দুটি বাস্তবায়িত হলে উপজেলা পরিষদের ক্ষমতা ও মর্যাদা হরণের কিছুটা প্রতিকার মিলবে। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার পরিষদকে যে সাচিবিক সহায়তা দেওয়ার কথা, তাঁরা তার বাইরে চেয়ারম্যানদের ক্ষমতায় যাতে অনাকাঙ্ক্ষিত ভাগ বসানোর চেষ্টা না করেন, তা নিশ্চিত করার পদক্ষেপ গ্রহণ জরুরি।

কামাল আহমেদ সাংবাদিক

কলাম থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন