রাজনীতি কবে ও কীভাবে এতটা নীতিহীন ও নিষ্ঠুর হয়ে উঠল? নৈতিকতা, মানবিকতা, সুস্থ বোধ—সবকিছু উধাও! ১৫ লাখ কিশোর-কিশোরীর পরীক্ষার কী হবে, ৫০ লাখ পরিবহনশ্রমিক, ২৩ লাখ ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী, ২৬ লাখ নির্মাণশ্রমিকের রুটি-রুজির কী হবে, দেশের অর্থনীতি মুখ থুবড়ে পড়বে কি না, সেসব ব্যাপারে কোনো বিবেচনা নেই? সরকারপক্ষ ও বিরোধীপক্ষ যে যার ‘এজেন্ডা’ নিয়ে মশগুল, নিজস্ব রাজনৈতিক ‘এজেন্ডা’ বাস্তবায়ন করে ক্ষমতায় থাকা এবং ক্ষমতায় যাওয়াটাই মুখ্য এবং মোক্ষ, বাকি সবই ‘সেকেন্ডারি’। বাংলাদেশের রাষ্ট্রব্যবস্থায় এখন সুশাসন, পেশাদারত্ব, প্রাতিষ্ঠানিকতা ও গণতান্ত্রিক মূল্যবোধের বড্ড অভাব। সরকার এখন বিরোধী দলকে সমাবেশ করতে দিতেও রাজি নয়। আর বিরোধী রাজনীতি থেকে আদর্শ, নৈতিকতা, মানবিক বোধ—সবকিছু উধাও! এরই মধ্যে বিজিবি, র্যাব ও পুলিশ বাহিনীর প্রধানেরা যেসব বক্তব্য দিয়েছেন, তাতে যেমন সমালোচনার ঝড় বইল, তেমনি তা আমাদের রাষ্ট্রব্যবস্থায় পেশাদারত্ব ও প্রাতিষ্ঠানিকতার অভাবকে আবারও প্রকট করে তুলল।
বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের (বিজিবি) মহাপরিচালক মেজর জেনারেল আজিজ আহমেদ ১৫ জানুয়ারি এক সংবাদ সম্মেলনে বলেন, ‘বিজিবির সবই “লিথ্যাল” বা প্রাণঘাতী অস্ত্র... বিজিবি মানুষ হত্যা করতে চায় না... তবে মানুষ হত্যা করতে দেখলে এবং নিজে আক্রান্ত হলে জীবন বাঁচানোর তাগিদে যেকোনো আক্রমণ প্রতিহত করবে। আক্রান্ত হলে সে নিজের অস্ত্র ব্যবহার করতে পারবে...’ (প্রথম আলো, ১৬ জানুয়ারি, ২০১৫)
বাংলাদেশ পুলিশের আইজিপি এ কে এম শহীদুল হক ১৬ জানুয়ারি রংপুরের মিঠাপুকুরে এক মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে বলেন, ‘যারা হরতাল ও অবরোধের নামে মানুষ পুড়িয়ে মারছে এবং সম্পদ ধ্বংস করছে, তাদের রেহাই দেওয়া হবে না। তাদের হাত থেকে বাঁচার জন্য মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের সব শক্তিকে পুলিশের সঙ্গে একসঙ্গে কাজ করতে হবে।’ (দ্য ডেইলি স্টার, ২৯ জানুয়ারি, ২০১৫) ওই একই মতবিনিময় সভায় বিশেষ অতিথির বক্তব্যে র্যাবের মহাপরিচালক বেনজীর আহমেদ বলেন, ‘যারা গণতন্ত্রের নামে সহিংসতা করছে ও বোমা বিস্ফোরণ ঘটাচ্ছে, আমরা তাদের নির্মূল করব।’ (দ্য ডেইলি স্টার, ২৯ জানুয়ারি, ২০১৫)
প্রতিনিয়ত যেখানে পেট্রলবোমায় দগ্ধ হয়ে মানুষের নিষ্ঠুর মৃত্যু হচ্ছে, নাশকতা, হরতাল ও অবরোধে যখন শিক্ষা ও অর্থনীতি বিপর্যস্ত, তখন পুলিশপ্রধান, র্যাবের মহাপরিচালক ও বিজিবির প্রধানের উৎকণ্ঠিত হওয়ার যৌক্তিক কারণ রয়েছে। তবে প্রশ্ন হচ্ছে, রাষ্ট্রের তিনটি প্রধান শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর (পুলিশ, র্যাব ও বিজিবি) প্রধান হিসেবে তাঁরা এভাবে কথা বলতে পারেন কি না? তাঁদের কথার ধরন ও সারবস্তু যা-ই হোক না কেন, এতে শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর চাকরির শর্তাবলি লঙ্ঘন হয় কি না, ক্ষুণ্ন হয় কি না রাষ্ট্রীয় কর্মকর্তাদের পেশাদারত্ব?
বিজিবির মহাপরিচালক বলেছেন যে মানুষ হত্যা করতে দেখলে এবং নিজেরা আক্রান্ত হলে বিজিবির সদস্যরা তাঁদের ‘লিথ্যাল’ অস্ত্র ব্যবহার করতে পারবেন। প্রশ্ন হচ্ছে, ওই কথাগুলো প্রকাশ্যে এভাবে বলা ঠিক হয়েছে কি না? আমরা তো জানি যে সংবিধান, সাধারণ আইন ও আন্তর্জাতিক ‘ইনস্ট্রুমেন্টের’ (UN Code of Conduct for Law Enforcement Officials, 1979 এবং UN Basic Principles on the Use of Force and Firearms, 1990) ভাষ্য হচ্ছে, আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী জনগণের জান-মাল ও সম্পত্তির নিরাপত্তা দেবে এবং অপরাধ প্রতিরোধ ও নির্মূলে কাজ করবে। তাদের প্রশিক্ষণ, কর্তৃত্ব, শক্তি প্রয়োগের ক্ষমতা এ জন্য দেওয়া হয়েছে যে তারা যেন ওই কাজগুলো সুষ্ঠুভাবে ও দক্ষতার সঙ্গে সম্পন্ন করতে পারে। আইনশৃঙ্খলা রক্ষা করতে গিয়ে বাহিনীগুলোর সদস্যরা কোনোভাবেই শক্তি প্রয়োগ করবেন না, শান্তিপূর্ণভাবে পরিস্থিতি মোকাবিলার চেষ্টা করবেন এবং অবশ্য অবশ্যই সংবিধান প্রদত্ত মানবাধিকারের প্রতি শ্রদ্ধাশীল থাকবেন। কিন্তু বিশৃঙ্খলা, নৈরাজ্য, অথবা অপরাধী ও চরমপন্থীদের তাণ্ডবে যদি প্রাণহানির আশঙ্কা দেখা দেয় এবং সরকারি ও জনগণের সম্পত্তি ধ্বংস হতে থাকে, তাহলে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা শক্তি প্রয়োগ করতে পারবেন। এবং এতে যদি কোনো ‘ক্যাজুয়ালটি’ বা হতাহত হয় তা বৈধ এবং আইনসংগত। এ জন্য সংবিধানের ৪৬ অনুচ্ছেদে দায়মুক্তির ব্যবস্থাও রয়েছে।
২০০১ সালে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির চরম অবনতির পরিপ্রেক্ষিতে ‘অপারেশন ক্লিন হার্ট’-এর অধীনে সারা দেশে সেনাবাহিনী নামিয়ে দেওয়া হয়েছিল। ওই অপারেশনের সময় সেনাবাহিনীর সদস্যদের হাতে শতাধিক প্রাণহানির ঘটনা ঘটেছিল। পরে আইন করে তাঁদের দায়মুক্তি দেওয়া হয়েছিল। ওই সময় সেনাবাহিনীর সদস্যদের হাতে প্রাণহানির ঘটনাগুলোকে দেশি-বিদেশি নানা সংস্থা মানবাধিকারের চরম লঙ্ঘন বলে অভিহিত করেছিল। অনেকে দায়মুক্তির বৈধতা নিয়েও প্রশ্ন তুলেছিলেন। কিন্তু বিষয়টি নিয়ে কেউ শেষ পর্যন্ত আদালতে যাননি।
বিজিবির প্রধানের বক্তব্য, আইনশৃঙ্খলা রক্ষা বিষয়ে সীমাবদ্ধ থাকলেও পুলিশপ্রধান ও র্যাবের মহাপরিচালকের বক্তব্য সরকারি দলের নেতাদের বক্তব্যের মতো মনে হয়েছে, যা রাষ্ট্রীয় বাহিনীর প্রধানদের কাছ থেকে কাম্য নয়। বাহিনীর প্রধানরা কেন ভুলে যান যে তাঁরা রাষ্ট্রের সম্মানিত কর্মকর্তা। সরকার আসবে সরকার যাবে, তাঁরা তাঁদের চাকরির শর্ত অনুযায়ী নির্দিষ্ট মেয়াদ পর্যন্ত তাঁদের পদে বহাল থেকে তাঁদের ওপর অর্পিত দায়িত্ব পালন করবেন। কিন্তু তাঁরা যদি সরকারি দলের ‘সিপাহসালার’ হয়ে যান, তাহলে পেশাদারির জায়গাটি যেমন নড়বড়ে হয়ে যায়, তেমনি ওই বাহিনীগুলোর ইমেজও প্রশ্নবিদ্ধ হয়। রাষ্ট্রীয় বাহিনীর প্রধান হিসেবে তাঁরা শুধু সরকারের আদেশ-নির্দেশ পালন করতেই বাধ্য নন, সমগ্র রাষ্ট্রের এবং দলমত-নির্বিশেষে সবার নিরাপত্তা নিশ্চিত করার ব্যাপারে তাঁদের আইনসংগত বাধ্যবাধকতা রয়েছে। সেই রাষ্ট্রীয় কর্মকর্তারা, বাহিনীর প্রধানেরা যখন সরকারি দলের ‘যুযুধান’ হয়ে যান, তখন পেশাদারত্ব মারাত্মকভাবে ক্ষুণ্ন হয় বৈকি!
সরকারি দলের নেতাদের মতো বক্তব্য না দিয়ে পুলিশের আইজিপি শহীদুল হক যদি বলতেন, পেট্রলবোমা ও চোরাগোপ্তা হামলা এবং ট্রেনের ফিশপ্লেট খুলে ফেলার মতো নজিরবিহীন নাশকতামূলক কর্মকাণ্ড প্রতিরোধ করতে গিয়ে পুলিশ বাহিনীর কী ধরনের সমস্যা হচ্ছে, দু-তিন বছর ধরে মুক্তিযুদ্ধবিরোধী চরমপন্থীদের এসব নাশকতামূলক কর্মকাণ্ড প্রতিরোধে পুলিশ বাহিনীর সদস্যদের নতুন কোনো প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়েছে কি না, এসব ধ্বংসাত্মক ও জীবনসংহারী কর্মকাণ্ডের জন্য দায়ী ব্যক্তিদের আগেভাগে চিহ্নিত করে জননিরাপত্তা নিশ্চিত করার ব্যাপারে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী নতুন কোনো কৌশল আবিষ্কার করতে পেরেছে কি না এবং তা কতটা কার্যকরভাবে প্রয়োগ করা যাচ্ছে। তাহলে আমরা উপকৃত হতাম, পুলিশের প্রধান হিসেবে শহীদুল হকের ইমেজও উজ্জ্বল হতো।
র্যাবের মহাপরিচালক হিসেবে বেনজীর অহমেদ যদি বলতেন, নারায়ণগঞ্জে সাত হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে র্যাবের কর্মকর্তাদের জড়িত থাকার ঘটনায় র্যাবের ইমেজ যে তলানিতে এসে ঠেকেছিল, সেই ইমেজ কী করে পুনরুদ্ধার করবেন, র্যাবকে কীভাবে চরমপন্থী ও অপরাধী নির্মূলে পেশাদারত্বের সঙ্গে কাজে লাগাবেন, তাহলে নতুন মহাপরিচালক হিসেবে তাঁর কাছ থেকে আমরা দিকনির্দেশনা পেতাম।
বাংলাদেশে রাজনৈতিক নেতারা ‘গণতন্ত্র’ ‘গণতন্ত্র’ বলে গগন বিদীর্ণ করে ফেলছেন, কিন্তু গণতন্ত্রের জন্য প্রয়োজনীয় প্রতিষ্ঠানগুলো গড়ে তুলছেন না। ক্ষমতায় যাওয়ার পর প্রতিটি সরকার পুলিশ, র্যাবসহ সব রাষ্ট্রীয় প্রতিষ্ঠানকে এমনভাবে দলীয়করণ করেছে যে রাষ্ট্রীয় প্রতিষ্ঠানগুলোতে কোনো পেশাদারত্ব যেমন গড়ে উঠছে না, জনগণের সেবা পাওয়ার বিষয়টিও থেকে যাচ্ছে উপেক্ষিত।
শেখ হাফিজুর রহমান: ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের শিক্ষক, মানবাধিকার ও অপরাধবিজ্ঞান গবেষক।

বিজ্ঞাপন
কলাম থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন