বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

ইতিমধ্যে বিভিন্ন পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় খোলার দিন–তারিখ ঘোষণা করেছে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় মাস্টার্স ও চতুর্থ বর্ষের শিক্ষার্থীদের প্রথমে ক্যাম্পাসে আনার পরিকল্পনা করেছে। পর্যায়ক্রমে অন্যান্য বর্ষের শিক্ষার্থীরা ক্যাম্পাসে আসবেন নির্দিষ্ট সময়ে। সবকিছু নির্ভর করছে শিক্ষার্থীদের ভ্যাকসিন দেওয়ার ওপর। অন্তত প্রথম ডোজ দেওয়া হলেই শিক্ষার্থীরা তাঁদের প্রাণের ক্যাম্পাসে ঢুকতে পারবেন, এটা এখন নিশ্চিন্ত।

ইউজিসি ও সংশ্লিষ্ট বিশ্ববিদ্যালয়গুলো ইতিমধ্যেই শিক্ষার্থীদের ভ্যাকসিন দেওয়ার হালনাগাদ তালিকা প্রস্তুত করেছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের নিজস্ব অফিস, বিভাগ, আঙিনা, বারান্দা, রাস্তাঘাট ইত্যাদি পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন করে রেখেছে। ক্যাম্পাস এখন শিক্ষার্থীদের আগমনে অপেক্ষারত। প্রতিটি বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থী প্রবেশে যার যার মতো প্রস্তুতি নিলেও আবাসিক বিশ্ববিদ্যালয় হিসেবে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের হিসাব একটু আলাদা। একমাত্র আবাসিক বিশ্ববিদ্যালয় হওয়ায় এখানে প্রত্যেক শিক্ষার্থীর জন্য আবাসিক হলে সিট থাকা বাধ্যতামূলক। তা সত্ত্বেও দীর্ঘদিন ধরে এর বাইরের সংস্কৃতির এখানে চলছে। প্রতিবছর ভর্তির আসনসংখ্যা বাড়লেও এখানে আবাসনসংখ্যা বেড়েনি। ফলে বাধ্য হয়েই শিক্ষার্থীদেরকে গণরুমে থাকতে হচ্ছে, যেখানে নেই লেখাপড়ার ন্যূনতম পরিবেশ।

বর্তমান উপাচার্য শিক্ষার্থীদের এই দুর্ভোগ দূরীকরণে অঙ্গীকারবদ্ধ ছিলেন এবং সরকারের উচ্চ মহলের সঙ্গে দেনদরবার করে প্রায় সাড়ে ১৪ শ কোটি টাকার অনুদান এনেছেন। যথাসময়ে কাজও শুরু করেছেন। এক হাজার আসনবিশিষ্ট ছেলেদের তিনটি ও মেয়েদের তিনটি হল এখন নির্মাণের শেষ পথে। দশতলাবিশিষ্ট অত্যাধুনিক হলগুলো এখন ঢাকা-আরিচা মহাসড়কের পাশে দৃশ্যমান। দেখলে মনে হবে এ যেন ইউরোপ-আমেরিকার কোনো ক্যাম্পাস। নির্মাণকাজ শেষ হলে বিশ্ববিদ্যালয়টি দীর্ঘদিনের গণরুমের অভিশাপ থেকে মুক্তি পাবে।

এখনো করোনা একেবারে নির্মূল হয়নি, আছে ডেঙ্গুর প্রাদুর্ভাবও। উপরন্তু, বিশ্ববিদ্যালয়টি সবুজ গাছগাছরায় আচ্ছাদিত এবং সে কারণে মশা ও কীটপতঙ্গের আধিক্য এখানে বেশি। তাহলে গণরুমের শিক্ষার্থীরা এই মুহূর্তে কোথায়, কীভাবে থাকবে? উল্লেখ্য, বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ জুলাই মাস থেকে অনলাইনে চূড়ান্ত পরীক্ষাপদ্ধতি প্রচলন করেছে, যা প্রশংসিত হয়েছিল সব মহলে। পরবর্তী সময় এই পদ্ধতি বাংলাদেশের অন্যান্য পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ও গ্রহণ করেছে।

যা হোক, অনলাইনে পরীক্ষা নেওয়ার ফলে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় অন্যান্য বিশ্ববিদ্যালয়ের তুলনায় অনেক সুবিধাজনক অবস্থানে রয়েছে। যাঁদের পরীক্ষা ইতিমধ্যে শেষ হয়েছে, তাঁদের এ মুহূর্তে ক্যাম্পাসে প্রবেশ না করিয়ে, যাঁদের পরীক্ষায় এখনো বাকি, তাঁদের কথা প্রথমে বিবেচনা করা যেতে পারে। তবে এ–সংক্রান্ত সুস্পষ্ট বিজ্ঞাপন বিভিন্ন পত্রপত্রিকা ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ায় ফলাও করে প্রচার করতে হবে। পর্যায়ক্রমে সবার ভ্যাকসিন দেওয়া শেষ হবে, দশতলা হলগুলোর নির্মাণকাজ শেষ হবে ও সবার আবাসনের ব্যবস্থা করতে হবে। বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনের পাশাপাশি অভিভাবকদের এখানে অনেক দায়িত্ব। সন্তানকে আপনি এখন না পরে বিশ্ববিদ্যালয়ে পাঠাবেন, তা ভালোভাবে জেনে নেবেন।

ছাত্র-শিক্ষক-অভিভাবক সবার মনে রাখতে হবে, যেকোনো একজনের জন্যই পুরো ক্যাম্পাস সংক্রমিত হতে পারে, যেমনটি হয়েছে ঠাকুরগাঁয়ের স্কুলে। তাই সবকিছু জেনেশুনে, প্রয়োজনে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন ও ক্যাম্পাসে অবস্থানরত শিক্ষার্থীদের সঙ্গে যোগাযোগ করে আপনার সন্তানকে বিশ্ববিদ্যালয়ে পাঠাবেন।

অপূরণীয় ক্ষতি পুষিয়ে নেওয়ার জন্য শিক্ষার্থীদের আগের চেয়ে বেশি লেখাপড়ায় মনোযোগী হতে হবে। সেজন্য আপাতত সব ধরনের রাজনীতি, সভা-মিছিল-মিটিং ও ঠিকাদারের পেছনে দৌড়াদৌড়ি কমাতে হবে। দ্রুততম সময়ে লেখাপড়া শেষ করে কর্মক্ষেত্রে প্রবেশ করতে হবে, বৃদ্ধ মা–বাবার মুখে হাসি ফোটাতে হবে, নিজের সংসারও শুরু করতে হবে।

কর্তৃপক্ষকেও প্রস্তুত রাখতে হবে প্রয়োজনীয়সংখ্যক অক্সিমিটার, অ্যাম্বুলেন্স, মাস্ক, হ্যান্ড স্যানিটাইজার ও আইসোলেশন সেন্টার। নিয়মিত মনিটর করতে হবে এগুলো সচল থাকে কি না। শিক্ষার্থীরা যাতে হলের ভেতরেই অবস্থান করেন সেজন্য স্বল্প মূল্যে মানসম্মত খাবার, অভ্যন্তরীণ ব্যায়ামাগার ও খেলাধুলার আধুনিক সরঞ্জাম, বিতর্ক প্রতিযোগিতা ইত্যাদি আয়োজন করা যেতে পারে। যে ১৮ মাস চলে গেছে, তা কখনোই ফিরে আসবে না। এই অপূরণীয় ক্ষতি পুষিয়ে নেওয়ার জন্য শিক্ষার্থীদের আগের চেয়ে বেশি লেখাপড়ায় মনোযোগী হতে হবে। সেজন্য আপাতত সব ধরনের রাজনীতি, সভা-মিছিল-মিটিং ও ঠিকাদারের পেছনে দৌড়াদৌড়ি কমাতে হবে। দ্রুততম সময়ে লেখাপড়া শেষ করে কর্মক্ষেত্রে প্রবেশ করতে হবে, বৃদ্ধ মা–বাবার মুখে হাসি ফোটাতে হবে, নিজের সংসারও শুরু করতে হবে।

বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ ইতিমধ্যে ঘোষণা করেছে, অন্তত দুই সপ্তাহ শিক্ষার্থীরা হলে অবস্থান করবেন এবং হলে থেকেই অনলাইনে ক্লাস/পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করবেন। প্রয়োজনে লেখাপড়া চলবে ব্লেন্ডেড পদ্ধতিতে। করোনায় এত ভোগান্তির পর যে ক্লাসের দরজা খুলেছে, আমাদের কোনো ভুলের কারণে যেন আবার তা বন্ধ না হয়, হলের গেটে তালা না ঝুলে এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের মূল ফটকে ‘প্রবেশ নিষেধ’ লেখা না থাকে।

সামনেই ভর্তি পরীক্ষা, যা চলবে দুই সপ্তাহব্যাপী। একই শিক্ষার্থীর এক ইউনিটের পরীক্ষা আজ তো অন্য ইউনিটের পরীক্ষা অন্যদিন। তাই অনিচ্ছা সত্ত্বেও ভর্তি–ইচ্ছুক শিক্ষার্থীরা পরিচিত কারও সঙ্গে হলে থাকবেন। কোনোভাবেই যাতে একটি সিটে একের অধিক শিক্ষার্থী না থাকেন, সেদিকে সতর্ক নজর রাখতে হবে। অনলাইন পরীক্ষাপদ্ধতি প্রচলন করে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় যেমন সবার প্রশংসা ও সুনাম অর্জন করেছে, তেমনি করোনা–পরবর্তী সময়েও সব বিধিনিষেধ ও শৃঙ্খলা মেনে সবার সহযোগিতায় বিশ্ববিদ্যালয়কে সচল রাখার নতুন দৃষ্টান্ত স্থাপন করবে—এমনটাই দেশবাসীর প্রত্যাশা।

ড. এম মেসবাহউদ্দিন সরকার অধ্যাপক ও পরিচালক, আইআইটি, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়

কলাম থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন