কিন্তু সমস্যা হচ্ছে, এই মুদ্রাস্ফীতির দেশের মানচিত্র ছাড়িয়ে অন্য দেশকে প্রভাবিত করার আশঙ্কা রয়েছে। সাম্প্রতিক পরিসংখ্যান অনুযায়ী, যুক্তরাষ্ট্রে মুদ্রাস্ফীতি দ্রুতগতিতে বেড়ে চলেছে এবং এর কুফল ভোগ করছে দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া। ইতিমধ্যে এই অঞ্চলের অনেক দেশে মুদ্রাস্ফীতির হার নতুন রেকর্ড গড়েছে।

এপ্রিল মাসে লাওসে এই হার ৯ দশমিক ৯ শতাংশে পৌঁছায়, আর ইন্দোনেশিয়ায় পাঁচ বছরের সর্বোচ্চ মুদ্রাস্ফীতি ঘটে। মার্চ মাসে সিঙ্গাপুরের মুদ্রাস্ফীতির হার ৫ দশমিক ৪ শতাংশে পৌঁছায়, যা ১০ বছরে সর্বোচ্চ বৃদ্ধি এবং ১৪ বছরের সিপিআই রেকর্ডের সঙ্গে সাদৃশ্যপূর্ণ। আর থাইল্যান্ডে আগের বছরের তুলনায় মুদ্রাস্ফীতি প্রায় ৫ দশমিক ৭ শতাংশ বৃদ্ধি পায়।

এপ্রিল মাসে ৪ দশমিক ৯ শতাংশ বছর প্রতি সিপিআই বৃদ্ধির পরে ফিলিপাইন ২০১৮ সালের ডিসেম্বরের পর সবচেয়ে ভয়াবহ মুদ্রাস্ফীতির শিকার হয়েছে। বর্তমান পরিস্থিতি বিবেচনা করলে, দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার অন্য দেশগুলোর পরিস্থিতি তুলনামূলক ভালো মনে হতে পারে। তবে বিশেষজ্ঞরা সতর্ক করেছেন যে মালয়েশিয়া, কম্বোডিয়া ও ভিয়েতনামে অদূর ভবিষ্যতে মুদ্রাস্ফীতি নতুন রেকর্ড গড়বে। দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার দেশগুলো এই পরিস্থিতির সম্মুখীন হয়েছে। তথ্যসেবা প্রতিষ্ঠান ফোকাস ইকোনমিকসের মতে, এই অঞ্চলের মুদ্রাস্ফীতির হার ফেব্রুয়ারিতে ছিল ৩ শতাংশ, যা মার্চে বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৩ দশমিক ৫ শতাংশে।

দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার বেশির ভাগ দেশই হচ্ছে উন্নয়নশীল দেশ, যেখানে সামগ্রিক জাতীয় ব্যয়ের অপেক্ষাকৃত বড় অংশ জুড়ে রয়েছে খাদ্যের জন্য বরাদ্দকৃত ব্যয়। এ বিষয়ে ব্যাংক অব আমেরিকা সিকিউরিটিজের আসিয়ান অর্থনীতিবিদ মোহাম্মদ ফয়েজ নাগুথা উল্লেখ করেন, মানুষের জীবনযাত্রার ব্যয় বৃদ্ধির পাশাপাশি উচ্চ মুদ্রাস্ফীতি সামাজিক অস্থিরতা সৃষ্টির উচ্চ ঝুঁকি তৈরি করতে পারে।

দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার দেশগুলোতে উচ্চ মুদ্রাস্ফীতির হার স্বাভাবিকভাবেই দুঃসহ স্মৃতি মনে করিয়ে দিচ্ছে। ১৯৯৭ সালে যুক্তরাষ্ট্রে সুদের হার বৃদ্ধি এবং ডলারের মূল্যবৃদ্ধির পরে এশিয়ার আর্থিক সংকট দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার দেশগুলোর অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির ওপর ব্যাপক প্রভাব ফেলেছিল। বৈদেশিক মুদ্রা ও শেয়ারবাজারে ডমিনোদের মতো একের পর এক পতন ঘটতে থাকে। ইন্দোনেশিয়া ও থাইল্যান্ড সবচেয়ে মারাত্মক ক্ষতির সম্মুখীন হয়। দুই বছরের মধ্যে তাদের জিডিপি যথাক্রমে ৮৩ দশমিক ৪ শতাংশ ও ৪০ শতাংশ হ্রাস পায়।

২০০৮ সালে মার্কিন মুলুকের সাবপ্রাইম মর্টগেজ সংকট সারা বিশ্বে আর্থিক সংকট তৈরি করে। এটি দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার দেশগুলোর আর্থিক ব্যবস্থা আবারও নড়বড়ে করে দেয়। সিঙ্গাপুর স্ট্রেট সূচক ৪৫ শতাংশের বেশি কমে যায়। একটানা ভয়াবহ দরপতনের পর ইন্দোনেশিয়ার শেয়ারবাজারের কার্যক্রম অনির্দিষ্টকালের জন্য বাধাগ্রস্ত হয়। ফিলিপাইনের ৮০ লাখের বেশি বিদেশী কর্মী চাকরিচ্যুতি এবং আয় হ্রাসের ঝুঁকির সম্মুখীন হয়। আর থাইল্যান্ডের প্রায় ১০ লাখ শ্রমিক বেকারত্বের দ্বারপ্রান্তে অবস্থান করে।

এখন ফেডারেল রিজার্ভের সুদের হার বৃদ্ধির ক্ষেত্রে অদূরদর্শিতা বিভিন্ন দিক থেকে আবারও উন্নয়নশীল দেশের অর্থনীতির ওপর চাপ সৃষ্টি করবে। প্রথমত, এই হার বৃদ্ধির ফলে অর্থায়ন ব্যয় আরও বৃদ্ধি পাবে এবং ক্যাপিটাল ফ্লাইটের সম্ভাবনা তৈরি হবে। উভয়ই উন্নয়নশীল দেশগুলোর অর্থনীতির মৌলিক বিষয়গুলোকে প্রভাবিত করবে এবং এসব দেশের কোভিড-পরবর্তী অর্থনৈতিক পুনরুদ্ধারের পথ জটিল করে দেবে। দ্বিতীয়ত, মার্কিন ডলারের উচ্চমূল্য ঋণগ্রস্ত দেশগুলোর বোঝা আরও ভারী করবে, কারণ, অনুন্নত দেশের বৈদেশিক ঋণের অনুপাত সাধারণত বেশি থাকে। তৃতীয়ত, বৈদেশিক মুদ্রাবাজারে ডলার সূচকের ক্রমবৃদ্ধি অন্যান্য মুদ্রার ওপর অবমূল্যায়ন চাপ সৃষ্টি করতে পারে। এভাবে অন্যান্য দেশে আরও বেশি মুদ্রাস্ফীতি ঘটতে পারে।

যেহেতু চরম মুদ্রাস্ফীতি উন্নয়নশীল দেশগুলোর ভয়াবহ দুশ্চিন্তার কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে, বিশ্বের বৃহত্তম অর্থনীতি হিসেবে যুক্তরাষ্ট্রকে অবশ্যই এর দায় নিতে হবে এবং অর্থনৈতিক পুনরুদ্ধারের পথ সুগম করতে নেতৃত্ব দিতে হবে। একই সঙ্গে দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোকে এই অভূতপূর্ব পরিস্থিতি মোকাবিলা করতে এবং এর প্রভাব প্রশমিত করতে নিজেদের প্রস্তুত করার ব্যাপারে বিশেষভাবে সচেতন হতে হবে।

জিন পিং আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিষয়ের লেখক। গ্লোবাল টাইমসচায়না ডেইলির নিয়মিত লেখক। [email protected]

কলাম থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন