রংপুরের প্রায় সব উন্নয়নমূলক কাজের বাস্তবায়ন খুব ধীরগতিতে হয়। অতীতেও এবং এখনো। ২০১২ সালের ২০ সেপ্টেম্বর রংপুরের গঙ্গাচড়া উপজেলা ও লালমনিরহাটের কালীগঞ্জ উপজেলার মধ্যবর্তী মহিপুর নামক স্থানে তিস্তা নদীর ওপর দ্বিতীয় তিস্তা সেতুর কাজের উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সেতুটি চালু হলে রংপুর থেকে লালমনিরহাট ও কুড়িগ্রামের কয়েকটি উপজেলার সঙ্গে রংপুরের দূরত্ব অর্ধেকে নেমে আসবে। বুড়িমারী-সোনাহাট স্থলবন্দরের সঙ্গেও দূরত্ব কমবে অনেকখানি। ২০১২ সালের সেপ্টেম্বরে উদ্বোধন করা এ কাজ শেষ হওয়ার কথা ছিল ২০১৪ সালের জুন মাসে। দুর্বল কারণ দেখিয়ে সেই কাজের মেয়াদ তিনবার বাড়িয়ে নেওয়া হয়। তৃতীয়বারে সেই মেয়াদ বাড়ানো হয়েছে ২০১৬ সালের ডিসেম্বর মাস পর্যন্ত। অনেকেই আশঙ্কা করছেন, আদৌ আগামী ডিসেম্বরে এ কাজ শেষ হবে কি না। এখনো অনেক কাজ বাকি।
সম্প্রতি গিয়েছিলাম দ্বিতীয় নির্মীয়মাণ তিস্তা সেতুস্থলে। নৌকায় উঠে সেতুর প্রসঙ্গ তুলতেই নৌকার মানুষ ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করলেন। একজন যাত্রী বলছিলেন, ‘ব্রিজ হইলে যামরা (যারা) ঘাট ডাকি নিছে তার ব্যবসা হবার নয়। সেই জন্যে কাজ লেট।’ আেরকজন যাত্রী বলছিলেন, ‘হাঁটি গেইলেও ঘাটোত টাকা দেওয়া নাগে। ঘাট ডাকি নিছে জন্যে নদীর মালিক হইচে ওমরা (ওরা)।’ এরই মধ্যে নৌকা ওপারের ঘাটে পৌঁছায়। ‘বাঁচি থাকতে ব্রিজ দেখি যাবার পারি কি না ঠিক নাই’ বলতে বলতে এক বৃদ্ধ নৌকা থেকে নেমে গেলেন। প্রধানমন্ত্রী নিজেই একটি কাজের উদ্বোধন করলে সেই কাজ যথাসময়ে শেষ করার জন্য সংশ্লিষ্ট সব দপ্তর একযোগে কাজ করার কথা। কিন্তু সেই কাজেও কোনো গতি নেই।
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দ্বিতীয় ধরলা সেতুর ঘোষণা দিয়েছেন চার বছর আগে। কাজ শুরু হয়েছে ঘোষণারও দুই বছর পর। সেই সেতুর কাজ এ বছর জুনে শেষ হওয়ার কথা থাকলেও এখনো কাজ প্রায় অর্ধেকই বাকি। অবশেষে মেয়াদ বাড়িয়ে নেওয়া হয়েছে এক বছর। এই এক বছরেও কাজ শেষ হবে, এমনটিও বলা যায় না।
কুড়িগ্রামের চিলমারীতে একটি সেতু হওয়ার কথা। রেল-নৌ যোগাযোগ ও পরিবেশ উন্নয়ন গণকমিটির সমন্বয়ক নাহিদ হাসান বলেন, ‘কুড়িগ্রাম থেকে ঢাকার দূরত্ব কমিয়ে আনার জন্য কুড়িগ্রামের চিলমারী থেকে সুন্দরগঞ্জ হয়ে তিস্তা নদীর ওপর চিলমারী-হরিপুর সেতুর কাজ এখন পর্যন্ত শুরুই হয়নি। তবে যখনই শুরু হোক, আমরা চাই, এই সেতুর নকশায় যেন রেলপথের পরিকল্পনা থাকে।’
তিস্তা রেল সেতুর পাশে সড়ক সেতুর কাজ শেষ করতে সময় লেগেছিল ১০ বছর। ২০০১ সালে বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তিস্তা নদীর ওপর দিয়ে একটি ব্রিজের কাজের উদ্বোধন করেন। এরপরই ক্ষমতার পালাবদল ঘটে। ক্ষমতায় আসে চারদলীয় জোট সরকার। সেই সেতুর কাজ আর এগোয় না। চারদলীয় জোট সরকারের পর তত্ত্বাবধায়ক সরকারের দুই বছরও কেটে যায় এভাবেই। ২০০৮ সালে আবার প্রধানমন্ত্রী হন শেখ হাসিনা। তাঁর ক্ষমতায়নেরও তিন বছর পর চালু হয় তিস্তা সেতু। এক সেতুতেই কত বিড়ম্বনা।
রংপুর বিভাগ হওয়ার পর রংপুরকে সিটি করপোরেশন ঘোষণা করা হয়। সেই সিটি করপোরেশনের নির্বাচন হয় প্রায় এক বছর পর। রংপুর শহরের মধ্য দিয়ে চার লেনের কাজ শেষ হতে প্রয়োজন হয়েছে প্রায় চার বছর। কাজ শেষ হতে না–হতেই সড়কের বিভিন্ন স্থানে ভেঙে গেছে।
রংপুর শহরের সড়কের মাঝখানে সড়কবাতি দেওয়ার কাজ শুরু হয়েছিল প্রায় পাঁচ বছর আগে। লালবাগ থেকে পার্কের মোড়ের অংশে সড়কবাতি দেওয়ার মধ্য দিয়ে সেই কাজ শেষ হলো দুই মাস আগে। সড়কের মাঝখানে এখনো বিদ্যুতের খুঁটি বিদ্যমান। সড়ক সম্প্রসারিত হওয়ার কারণে বিদ্যুতের খুঁটি রাস্তার ভেতরে পড়েছে। সেই বিদ্যুতের খুঁটি আজ অবধি তোলার কোনো ব্যবস্থা হয়নি।
উইমেন ক্রীড়া কমপ্লেক্সের জন্য সরকার অর্থ বরাদ্দ দিয়েছে। এখন পর্যন্ত তার কাজ শুরু হয়নি। এ প্রসঙ্গে বিভাগীয় মহিলা ক্রীড়া সংস্থার কোষাধ্যক্ষ মেরিনা লাভলী বলেন, ‘যথাসময়ে কাজ শুরু হলে এখন কাজ অনেক দূর এগিয়ে যেত। কিন্তু সেই কাজ এখন পর্যন্ত কাগজ-কলমেই থেকে গেছে, অগ্রগতি হয়নি। এতে করে নারী ক্রীড়া সংগঠকেরা ক্ষুব্ধ।’
পাঁচ-ছয় বছর ধরে রংপুরে একটি শিল্পকলা কমপ্লেক্স হওয়ার কথা চলছে। সেই কমপ্লেক্সের জন্য স্থান নির্ধারণ করতে এত দিন সময় চলে গেল। রংপুরে একটি আন্তর্জাতিক মানের স্টেডিয়াম হওয়ার কথা থাকলেও এখন পর্যন্ত তা আলোর মুখ দেখেনি।
রংপুরের আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির ক্রমাগত অবনতি হচ্ছেই। রংপুরকে মেট্রোপলিটন সিটি ঘোষণা করা হলেও তার সুবিধা এখন পর্যন্ত নগরবাসী পাননি। সিপিবির রংপুর জেলা শাখার সভাপতি শাহাদত হোসেন বলেন, ‘মেট্রোপলিটন সিটির বাস্তবায়ন না হওয়া খুবই হতাশাজনক। মেট্রোপলিটন সিটির বাস্তবায়ন হলে আইনশৃঙ্খলার উন্নয়ন সম্ভব হতো।’
উন্নয়ন প্রকল্পগুলো ঠিকমতো হচ্ছে কি না, এসব কাজ তদারকের জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ রয়েছে। কোনো কারণে কাজ বিলম্ব হলে সরকারদলীয় লোকেরা যে সরকারের উচ্চপর্যায়ে যোগাযোগ রেখে সরকারের ভাবমূর্তি উজ্জ্বল করার স্বার্থে কাজ ত্বরান্বিত করবেন, তারও কোনো সম্ভাবনা দেখা যায় না।
আমাদের সময় পত্রিকাসূত্রে জানতে পারলাম, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কুড়িগ্রামের চিলমারী থেকে ঢাকাগামী আন্তনগর ট্রেন সার্ভিস চালু করার জন্য একটি চিঠি দিয়েছেন। সেই চিঠি রেল ভবনে পৌঁছেছে। প্রধানমন্ত্রীর এই নির্দেশ বাস্তবায়িত হতে যে আরও কত সময় প্রয়োজন হবে, কে জানে।
রংপুর বিভাগের জনপ্রতিনিধিরা অভিভাবকের পরিচয় দিতে ব্যর্থ হয়েছেন। স্থানীয় সাংসদদের অনেকেই প্রকৃত অর্থে গণমানুষ থেকে বিচ্ছিন্ন। তাঁরা যতটা ব্যক্তিগত পর্যায়ের উন্নয়ন সাধনে ব্যস্ত, ততটা সাধারণ মানুষের কল্যাণ সাধনে নয়। সাধারণ মানুষও মুখ বুজে সবকিছু সহ্য করার এক অসামান্য ক্ষমতা অর্জন করেছে। জনপ্রতিনিধিরা যেহেতু সোচ্চার নন, তাই সাধারণ মানুষের মধ্য থেকেই এখন জোরালো দাবি উত্থাপন হওয়া জরুরি।
তুহিন ওয়াদুদ: শিক্ষক, বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়, রংপুর।
wadudtuhin@gmail.com

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য করুন