ইসলাম মানবিক ধর্ম, মানবাধিকারের ধর্ম। ইসলাম শ্রম ও শ্রমিকের মর্যাদা ও অধিকার সম্পর্কে যথাযথ নির্দেশনা দিয়েছে। শ্রমের প্রতি উৎসাহ দিয়ে পবিত্র কোরআনে বলা হয়েছে, ‘অতঃপর যখন নামাজ পূর্ণ করা হবে, তখন জমিনে ছড়িয়ে পড়ো; আর আল্লাহকে অধিক মাত্রায় স্মরণ করো, আশা করা যায় তোমরা সফল হবে।’ (সুরা-৬২ জুমুআহ, আয়াত: ১০)।

হাদিস শরিফে এসেছে, ‘ফরজ ইবাদতসমূহের পরেই হালাল উপার্জন ফরজ দায়িত্ব।’ (তিরমিজি)। ‘হালাল উপার্জনসমূহের মধ্যে তা সর্বোত্তম, যা কায়িক শ্রমে অর্জন করা হয়।’ (মুসলিম)।

শ্রমিকের অধিকার ও শ্রমগ্রহীতার কর্তব্য সম্পর্কে হাদিস শরিফে আছে, ‘শ্রমিকেরা তোমাদেরই ভাই, আল্লাহ তাদের তোমাদের দায়িত্বে অর্পণ করেছেন। আল্লাহ তাআলা যার ভাইকে তার দায়িত্বে রেখেছেন; সে যা খাবে তাকেও তা খাওয়াবে, সে যা পরিধান করবে তাকেও তা পরিধান করাবে; তাকে এমন কষ্টের কাজ দেবে না যা তার সাধ্যের বাইরে, কোনো কাজ কঠিন হলে সে কাজে তাকে সাহায্য করবে।’ (মুসলিম, মিশকাত)।

হজরত শোয়াইব (আ.) হজরত মুসা (আ.)–কে কাজে নিয়োগ দেওয়ার সময় বলেছিলেন, ‘আর আমি আপনাকে কষ্টে ফেলতে চাই না; ইনশা আল্লাহ! আপনি আমাকে কল্যাণকামী রূপে পাবেন।’ (সুরা-২৮ কছাছ, আয়াত: ২৭)।

হাদিস শরিফে রয়েছে: এক লোক এসে নবীজি (সা.)–এর কাছে ভিক্ষা চাইলে তিনি জিজ্ঞেস করলেন, ‘তোমার কি কিছুই নেই?’ সে বলল, ‘আমার একটি কম্বল আছে।’ নবীজি বললেন, ‘যাও কম্বলটি নিয়ে এসো।’ কম্বল নিয়ে এলে নবীজি (সা.) তা নিলামে দুই দিরহামে বিক্রি করলেন। এক দিরহাম তঁাকে দিয়ে দিলেন পরিবারের খাবারের ব্যবস্থা করতে আর এক দিরহাম দিয়ে কুড়াল কিনে নবীজি (সা.) নিজ হাতে তাতে হাতল লাগিয়ে দিলেন; আর ওই লোকটাকে কাঠ কেটে উপার্জন করার নির্দেশ দিলেন। (বুখারি ও মুসলিম)।

বিজ্ঞাপন

নবী–রাসুল কায়িক পরিশ্রম করেই জীবিকা উপার্জন করেছেন। হজরত নুহ (আ.) কাঠমিস্ত্রি বা ছুতারের কাজ করেছেন। হজরত ইদ্রিস (আ.) সেলাইয়ের কাজ করতেন। হজরত সুলাইমান (আ.)–এর পিতা নবী ও সম্রাট হজরত দাউদ (আ.) কামারের কাজ করে জীবিকা নির্বাহ করতেন। এমনকি নবী হজরত শোয়াইব (আ.)–এর খামারে হজরত মুসা (আ.) ৮ থেকে ১০ বছর কাজ করেছেন। আমাদের প্রিয় নবী হজরত মুহাম্মদ (সা.)–ও মা খাদিজা (রা.)–এর ব্যবসায় সহযোগী হিসেবে চাকরি করেছেন।

রহমত, মাগফিরাত ও নাজাতের মাস রমজান ইবাদতের জন্য বিশেষায়িত। এ মাসে মালিক বা কর্তৃপক্ষের দায়িত্ব ও কর্তব্য হলো শ্রমিকের প্রতি রহম করা, তার কাজের চাপ কমিয়ে দিয়ে তাকে ইবাদতে সহায়তা করা। প্রিয় নবী হজরত মুহাম্মদ (সা.) বলেছেন, যে ব্যক্তি রমজান মাসে তার কাজের লোকের কাজ কমিয়ে সহজ করে দিল, কিয়ামতের দিন আল্লাহ তার হিসাব সহজ করে দেবেন। (বুখারি)। পারিশ্রমিকের ব্যাপারে হাদিস শরিফে আছে, ‘তোমরা শ্রমিকের মজুরি পরিশোধ করো তার ঘাম শুকানোর আগেই।’ (বায়হাকি, মিশকাত)। যারা শ্রমিকের মজুরি আদায়ে টালবাহানা করে, তাদের ব্যাপারে মহানবী হজরত মুহাম্মদ (সা.) বলেছেন, ‘সামর্থ্যবান পাওনা পরিশোধে গড়িমসি করা জুলুম বা অবিচার।’ (বুখারি)। ‘হাশরের দিনে জুলুম অন্ধকার রূপে আবির্ভূত হবে।’ (মুসলিম)। হাদিসে কুদসিতে আছে: আল্লাহ তাআলা বলেন, ‘কিয়ামতের দিন আমি তাদের বিরুদ্ধে থাকব, যারা বিশ্বাসঘাতকতা করে, মানুষকে বিক্রি করে এবং ওই ব্যক্তি যে কাউকে কাজে নিয়োগ করল, অতঃপর সে তার কাজ পূরণ করল; কিন্তু সে তার ন্যায্য মজুরি দিল না।’ (বুখারি)। হাদিস শরিফে আছে: যদি কেউ কারও ন্যায্য পাওনা অস্বীকার করে, আল্লাহ তাআলা তার জন্য বেহেশত হারাম করে দেন। (মুসলিম)।

মুসলিম হিসেবে মালিকের দায়িত্ব হলো শ্রমিকের স্বাস্থ্য সুরক্ষা, নিরাপত্তাসহ তাঁর যাবতীয় মৌলিক অধিকার ও চাহিদাগুলো পূরণ করা। তাঁর ইবাদত ও আমলের সুযোগ দেওয়া। বিশেষত রমজানে রোজা, তারাবিহ, ইফতার ও সাহ্‌রির সুযোগ করে দেওয়া। রমজান শেষে পরিবার–পরিজনসহ ঈদের আনন্দে শামিল হওয়ার ব্যবস্থা করা

শরিয়তি বিধানমতে, শ্রমিকের নিম্নতম মজুরি হলো তঁার মৌলিক অধিকার তথা খোরপোষ-বাসস্থান এবং শিক্ষা ও চিকিৎসা। (বুখারি ও মুসলিম)। ক্ষতিগ্রস্ত বা অক্ষম শ্রমিক ও তাঁর পরিবারের ব্যাপারে রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, ‘যারা সম্পদ রেখে যাবে, তা তাদের উত্তরাধিকারীগণ পাবে; আর যারা অসহায় পরিবার-পরিজন রেখে যাবে, তা আমাদের (সরকার ও মালিকপক্ষের) দায়িত্বে।’ (বুখারি, মুসলিম ও বায়হাকি)।

মুসলিম হিসেবে মালিকের দায়িত্ব হলো শ্রমিকের স্বাস্থ্য সুরক্ষা, নিরাপত্তাসহ তাঁর যাবতীয় মৌলিক অধিকার ও চাহিদা পূরণ করা। তাঁর ইবাদত ও আমলের সুযোগ দেওয়া। বিশেষত রমজানে রোজা, তারাবিহ, ইফতার ও সাহ্‌রির সুযোগ করে দেওয়া। রমজান শেষে পরিবার–পরিজনসহ ঈদের আনন্দে শামিল হওয়ার ব্যবস্থা করা।

মুফতি মাওলানা শাঈখ মুহাম্মাদ উছমান গনী

যুগ্ম মহাসচিব, বাংলাদেশ জাতীয় ইমাম সমিতি; সহকারী অধ্যাপক, আহ্ছানিয়া ইনস্টিটিউট অব সুফিজম

[email protected]

বিজ্ঞাপন
কলাম থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন