বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

হাতে নষ্ট করার মতো সময় নেই। সবে দায়িত্ব নেওয়া অর্থমন্ত্রী আলী সাবরি বলেছেন, দেশের বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ এখন পাঁচ কোটি ডলারের নিচে নেমেছে। অন্যদিকে মাথার ওপর ৫ হাজার ১০০ কোটি ডলারের যে ঋণের বোঝা ঝুলছে, তার মধ্যে ৭০০ কোটি ডলার এ বছরের মধ্যে শোধ করার কথা। অন্য সব ঋণের কিস্তি দেওয়া স্থগিত হয়ে আছে। প্রয়োজনীয় খাদ্য আমদানির জন্য বিশ্বব্যাংক ৬০ কোটি ডলার দিলেও তা আর্থিক রক্তপাত বন্ধ করার জন্য খুবই অপ্রতুল।

জনসাধারণের কোষাগার খালি, ব্যাংকগুলোর অর্থ প্রদানের ভারসাম্যের চাপ বাড়তে থাকা এবং একটি বিশাল ঋণ ঝুলে থাকার বিষয়কে অগ্রাধিকার দিয়ে একটি কার্যকর বাস্তবায়ন ব্যবস্থা এগিয়ে নিতে হবে। এর জন্য একটি আর্থিক অবস্থা মোকাবিলার পরিকল্পনা তৈরি করতে হবে। এ-জাতীয় পরিকল্পনায় অবশ্যই অপচয় নির্মূল করা এবং বাজেট ব্যবস্থাপনাকে কঠোর করাসহ সব মানকে একত্রকরণের ব্যবস্থা অন্তর্ভুক্ত করতে হবে। শ্রীলঙ্কান রুপিকে জোরালো করতে হবে। তবে এ সবকিছু করতে হলে শ্রীলঙ্কাকে অবশ্যই একটি মুদ্রা বোর্ড স্থাপনে আরও জোর পদক্ষেপ নিতে হবে।

এ পর্যন্ত ৫০টির বেশি দেশে অর্থনৈতিক জরুরি অবস্থার মুখে এ ধরনের মুদ্রা বোর্ড গঠন করা হয়েছে এবং বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই সাফল্য এসেছে। হংকংয়ে ১৯৮৩ সালে এই বোর্ড কঠিন অবস্থা কাটিয়ে উঠতে সাহায্য করেছিল। ১৯৯২ সালে এস্তোনিয়ায় এই বোর্ড গঠন হয়েছিল এবং তাদের সাফল্য দেখে ১৯৯৪ সালে লিথুয়ানিয়া একইভাবে মুদ্রা বোর্ড গঠন করেছিল।

এ ধরনের ব্যবস্থার অধীনে মুদ্রা বিনিময় হার আইন দ্বারা নির্ধারণ করতে হবে এবং কেন্দ্রীয় ব্যাংককে বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভের ভিত্তিতে সমগ্র মুদ্রাব্যবস্থা চালাতে হবে। বড় ঘাটতি মেটানোর জন্য সরকার সাধারণত নিজস্ব যে বিবেচনার ক্ষমতা প্রয়োগ করে থাকে, সেই ক্ষমতা আপাতত রহিত করে তা মুদ্রা বোর্ডের হাতে দিতে হবে। দেশের প্রধান অর্থনীতিবিদদের নিয়ে এই বোর্ড গঠন করতে হবে। সেই বোর্ডই সরকারকে মুদ্রাব্যবস্থা পরিচালনাসংক্রান্ত যাবতীয় নির্দেশনা দেবে। এটি করা যেতে পারলে শ্রীলঙ্কার অর্থব্যবস্থায় তুলনামূলক দ্রুততায় বিশ্বাসযোগ্যতা ফিরে আসবে। বোর্ডটি প্রতিষ্ঠিত হলে সেটি প্রধানত অর্থনৈতিক সমস্যাগুলোর সমাধানে, বিশেষ করে রুপির পতন রোধে বিশেষ মনোযোগ দেবে।

একটি মুদ্রা বোর্ড হলো একধরনের শক থেরাপি। শ্রীলঙ্কার বর্তমান সংকট এটাই দাবি করছে। এটি অবিলম্বে গঠন করা যেতে পারে। এর জন্য বাজেট কিংবা রাষ্ট্রীয় সম্পদ বা বাণিজ্যকে প্রভাবিত করে, এমন কোনো তাৎক্ষণিক সংস্কারেরও প্রয়োজন নেই। এটিকে জরুরি কার্যকর ওষুধ হিসেবে গণ্য করে গঠন করতে হবে। এ পর্যন্ত ৫০টির বেশি দেশে অর্থনৈতিক জরুরি অবস্থার মুখে এ ধরনের মুদ্রা বোর্ড গঠন করা হয়েছে এবং বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই সাফল্য এসেছে। হংকংয়ে ১৯৮৩ সালে এই বোর্ড কঠিন অবস্থা কাটিয়ে উঠতে সাহায্য করেছিল। ১৯৯২ সালে এস্তোনিয়ায় এই বোর্ড গঠন হয়েছিল এবং তাদের সাফল্য দেখে ১৯৯৪ সালে লিথুয়ানিয়া একইভাবে মুদ্রা বোর্ড গঠন করেছিল।

এ কারণে সময়ক্ষেপণ না করে শ্রীলঙ্কায় জরুরি মুদ্রা বোর্ড গঠন করা দরকার।

ইংরেজি থেকে অনূদিত, স্বত্ব: প্রজেক্ট সিন্ডিকেট

আর এম মনিভানান শ্রীলঙ্কার প্রথম সারির একজন ব্যবসায়ী ও উদ্যোক্তা

কলাম থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন