রাজাপক্ষে প্রশাসনের দুর্নীতি, জাতীয়তাবাদ এবং কর্তৃত্ববাদের কথা সুবিদিত ও প্রমাণিত। দেশটির আড়াই দশকের বেসামরিক শাসনামলে তামিল জনগোষ্ঠীর ওপর রাজাপক্ষের যুদ্ধাপরাধের বিশ্বাসযোগ্য অভিযোগের তদন্ত ক্রমাগত খারিজ করা হয়েছে। আর এখন সাধারণ শ্রীলঙ্কানরা যখন অনাহারে কাতরাচ্ছে, যখন অভিজাতরা মোটা হচ্ছে। এ কারণে সাধারণ মানুষের মনে হচ্ছে, অনেক হয়েছে। এই শাসনের পতন ঘটাতে হবে।

এটি ঠিক, উপরিউক্ত বিষয়গুলো আমাদের নিয়ন্ত্রণের বাইরে। কিন্তু আসল বিষয় হলো, এই দুর্দশার মূল উৎস হলো অপশাসন। ট্যাক্স কমানো, অযৌক্তিক সরকারি ব্যয়, অস্বাভাবিক ব্যাংক নোট ছাপানো, গুরুত্বপূর্ণ পদে ক্ষমতাসীনদের স্বজনদের বসানো আজকের এই পরিণতির মূলে আছে। এ কারণেই দেশটির কোমর ভেঙে গেছে। আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলের (আইএমএফ) কাছ থেকে সহায়তা পেতে যেসব শর্ত পূরণ করতে বলা হয়েছিল, সেসব শর্ত শেষ মুহূর্ত পর্যন্ত প্রত্যাখ্যান করে গোতাবায়া মূল্যবান সময় নষ্ট করেছেন। ফল হিসেবে শ্রীলঙ্কা এখন ৫ হাজার ১০০ কোটি ডলারের বৈদেশিক ঋণ খেলাপি।

তবে এ অবস্থা এক দিনে নয়, বরং গত কয়েক বছরে তলেতলে তৈরি হয়েছে। রাজাপক্ষে প্রশাসনের দুর্নীতি, জাতীয়তাবাদ এবং কর্তৃত্ববাদের কথা সুবিদিত ও প্রমাণিত। দেশটির আড়াই দশকের বেসামরিক শাসনামলে তামিল জনগোষ্ঠীর ওপর রাজাপক্ষের যুদ্ধাপরাধের বিশ্বাসযোগ্য অভিযোগের তদন্ত ক্রমাগত খারিজ করা হয়েছে। আর এখন সাধারণ শ্রীলঙ্কানরা যখন অনাহারে কাতরাচ্ছে, যখন অভিজাতরা মোটা হচ্ছে। এ কারণে সাধারণ মানুষের মনে হচ্ছে, অনেক হয়েছে। এই শাসনের পতন ঘটাতে হবে। প্রশ্ন হলো, সেই পতন কীভাবে ঘটাতে হবে।

শ্রীলঙ্কার নবনিযুক্ত অর্থমন্ত্রী আলি সাবরি (যিনি প্রেসিডেন্ট গোতাবায়া রাজাপক্ষে ও সদ্য পদত্যাগ করা প্রধানমন্ত্রী মাহিন্দা রাজাপক্ষের ভাই বাসিল রাজাপক্ষের স্থলাভিষিক্ত হয়েছেন) সম্প্রতি ওয়াশিংটনে এসেছিলেন। তিনি আইএমএফের সঙ্গে আর্থিক ঝামেলা মিটিয়ে পুনরায় একটি মোটা অঙ্কের ঋণ নেওয়া নিয়ে আলোচনা করেছেন। আইএমএফ আলি সাবরিকে সাফ জানিয়ে দিয়েছে, শ্রীলঙ্কা নতুন করে ঋণ পেতে চাইলে দেশটিতে অবশ্যই একটি স্থিতিশীল সরকার থাকতে হবে, যা এই মুহূর্তে সেখানে নেই। যদি বিরোধী দলগুলো বা প্রতিবাদকারীরা সরকারকে বিশ্বাস না করে, তাহলে বিক্ষোভ কেবলই ফুলেফেঁপে উঠতে থাকবে। সে পরিস্থিতিতে আইএমএফ ঋণ দিতে পারে না।

আইএমএফ প্রকাশ্যে রাজাপক্ষের শাসনের নিন্দা করতে পারে না। তারা সৃজনশীলভাবে তাদের উদ্বেগের কথা জানাতে পারে। যেকোনো উচ্চাকাঙ্ক্ষী গণতন্ত্রের জন্য শক্তিশালী প্রতিষ্ঠান, সুশাসন ও স্বাধীন কমিশন এবং তদারকি কমিটির মতো ভারসাম্য নিশ্চিত করা কর্তৃপক্ষ থাকা অনস্বীকার্য—এটি আইএমএফ জানিয়ে দিয়েছে। আইএমএফ যখন অর্থমন্ত্রী সাবরিকে এই গুরুত্বপূর্ণ নীতিগুলোর কথা মনে করিয়ে দেয়, তখন শ্রীলঙ্কার বিক্ষোভরত হাজার হাজার মানুষ সে বার্তার অর্থ বুঝতে পারে। তারা বুঝতে পারে আইএমএফ সরকার পরিবর্তন করে সেখানে একটি স্বচ্ছ সরকার দেখতে চায়।

শ্রীলঙ্কায় গোতাবায়া রাজাপক্ষের বিরোধিতার এই ব্যাপকতা অস্বাভাবিক। কারণ দুই বছরের কম সময় আগে তিনি পার্লামেন্টে দুই-তৃতীয়াংশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জন করেছিলেন। কিন্তু এখন প্রতিবাদকারীদের মধ্যে তৃণমূল থেকে সমাজের উচ্চ স্তরের মানুষকে দেখা যাচ্ছে। সিংহলি, তামিল এবং মুসলমান সম্প্রদায়ের মানুষকে বিক্ষোভে শামিল হতে দেখা যাচ্ছে।

সংবিধান অনুসারে রাজাপক্ষে পদত্যাগ না করলে ২০২৩ সালের নির্বাচন পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে। এর আগে তাঁকে অভিশংসনের মাধ্যমে অপসারণ করা যেতে পারে। কিন্তু সেটি সময়সাপেক্ষ। সে কারণে শান্তিপূর্ণ বিক্ষোভের মাধ্যমে রাজাপক্ষেকে পদত্যাগ করতে বাধ্য করতে হবে। এটি করা গেলে পার্লামেন্ট দ্রুত তার অন্তর্বর্তী উত্তরসূরি নিয়োগ করতে পারবে, আইএমএফ চুক্তিতে আবদ্ধ হতে পারবে এবং দ্রুত নির্বাচন দেওয়া সম্ভব হবে। এ অবস্থায় আমরা শুধু আশা করতে পারি, বিরোধীরা তাদের ব্যক্তিগত উচ্চাকাঙ্ক্ষা সরিয়ে রেখে লাগাতার আন্দোলনের মাধ্যমে একটি নতুন সরকার আনবে এবং আইএমএফ ও অন্য প্রতিষ্ঠানগুলোকে সহযোগিতা করার সুযোগ তৈরি করে দেবে।

নিউজ উইক থেকে নেওয়া, ইংরেজি থেকে অনূদিত

ড. পাকিয়াসোথি সারাভানামুত্তু সেন্টার ফর পলিসি অল্টারনেটিভস-এর নির্বাহী পরিচালক

কলাম থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন