দেশব্যাপী চরম উদ্বেগ-উৎকণ্ঠার মধ্যে প্রায় ১৫ লাখ এসএসসি পরীক্ষার্থীর প্রথম দুটি পত্রের পরীক্ষা গত শুক্র ও শনিবার কোনো অঘটন ছাড়াই শেষ হয়েছে, এ জন্য সংশ্লিষ্ট সবাই ধন্যবাদ পেতে পারেন। বিশেষ করে যেসব শিক্ষক-কর্মকর্তা-কর্মচারী জীবনের ঝুঁকি নিয়ে পরীক্ষা নিয়েছেন, তাঁদের আমরা সাধুবাদ জানাই। কিন্তু বিরোধী দলের অব্যাহত অবরোধ-হরতালের কারণে বাকি পরীক্ষাগুলো অনিশ্চিতই রয়ে গেল। সরকার আগামী শুক্রবার ও শনিবার দুটি পরীক্ষার তারিখ পুনর্নির্ধারণ করেছে।
কিন্তু যে হারে বিভিন্ন স্থানে পরিবহনে ও স্থাপনায় বোমা হামলা বেড়ে চলেছে, তাতে পরিবর্তিত তারিখেও পরীক্ষা হবে কি না, হলেও সবাই নিরাপদে পরীক্ষার হলে যেতে পারবে কি না, সেসব নিয়ে পরীক্ষার্থী ও অভিভাবকেরা চরম উদ্বেগে আছেন। আমাদের প্রত্যাশা, প্রথম দুই দিনের মতো আগামী শুক্র ও শনিবারের পরীক্ষাও নির্বিঘ্নে শেষ হবে। কিন্তু বাকিগুলোর কী হবে? শিক্ষার্থীরা কি এই অনিশ্চয়তার মধ্যেই নিপতিত থাকবে?
রাজনীতি যখন মানুষকে নিয়েই তখন কর্মসূচির নামে তাদের কেন জিম্মি করা হবে? দুর্ভাগ্যজনক যে, আমাদের রাজনীতিকেরা তাঁদের স্বার্থসিদ্ধির জন্য এতটাই অন্ধ যে কোমলমতি শিক্ষার্থীদের জিম্মি করতেও দ্বিধা করেন না। এই অসুস্থ রাজনীতি আর কত দিন? এর শেষ কোথায়?
যাঁরা ক্ষমতায় আছেন, যাঁরা ক্ষমতায় যেতে চান, তাঁরা রাজনীতি করার অনেক সময় পাবেন। সময় পাবেন আন্দোলনের নতুন কর্মসূচি পালনেরও। কিন্তু দয়া করে এই এসএসসি পরীক্ষা ও পরীক্ষার্থীদের সেই কর্মসূচি থেকে রেহাই দিন।
ইতিমধ্যে অনেক ক্ষতি হয়েছে। গত এক মাসের হরতাল-অবরোধে অর্থনীতি ও ব্যবসা-বাণিজ্যের ক্ষতি ছাড়া শিক্ষার্থীদের ওপর যে মানসিক ও শারীরিক চাপ পড়েছে, তা অপূরণীয়। বারবার পরীক্ষা পেছানোয় শিক্ষার্থীদের পক্ষে প্রয়োজনীয় প্রস্তুতি নেওয়াও সম্ভব হচ্ছে না। এ অবস্থায় বিরোধী দলগুলোর প্রতি আমাদের আহ্বান, পরীক্ষার সময়টিতে কোনো হরতাল-অবরোধ দেবেন না।

বিজ্ঞাপন
সম্পাদকীয় থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন