default-image

প্রতিষ্ঠার পর থেকেই রংপুরের বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে নানা অনিয়ম-অঘটন ঘটে আসছিল। বর্তমান উপাচার্য নাজমুল আহ্সান কলিমুল্লাহ দায়িত্ব নেওয়ার পর যে এসব অনিয়ম ও অঘটন বেড়েছে, সে বিষয়ে সন্দেহ নেই। উপাচার্যের অনিয়ম ও দুর্নীতির বিরুদ্ধে আন্দোলন করে আসছিল বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-কর্মকর্তাদের সমন্বয়ে গঠিত অধিকার সুরক্ষা পরিষদ। শিক্ষকদের অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনও তদন্ত করেছে, যার প্রতিবেদন এখনো দেওয়া হয়নি।

আইন অনুযায়ী বিশ্ববিদ্যালয় উপাচার্যের সার্বক্ষণিক ক্যাম্পাসে থাকার কথা। কিন্তু তিনি ক্যাম্পাসে না গিয়ে ঢাকায় বসেই বিশ্ববিদ্যালয় পরিচালনা করছেন। অভিযোগ আছে, বর্তমান উপাচার্য ১ হাজার ৩০০ দিনের মধ্যে ১ হাজার ১০০ দিনই ক্যাম্পাসে অনুপস্থিত ছিলেন। উপাচার্যই বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান নির্বাহী ও অভিভাবক। তিনি ক্যাম্পাসে না থাকলে যে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক ও একাডেমি কাজ ব্যাহত হয়, সেটা ব্যাখ্যা করার প্রয়োজন নেই।

বিজ্ঞাপন

গত ৩১ জানুয়ারি সিন্ডিকেটের ৭৫তম বিশেষ সভায় প্রশাসনিক ভবন, উপাচার্যের বাসভবন, একাডেমিক ভবন ও শ্রেণিকক্ষের সামনে মিছিল, সভা-সমাবেশ, অবস্থান ধর্মঘট, বিক্ষোভ প্রদর্শন, স্লোগান, বক্তব্য দেওয়া, মৌন মিছিলসহ কোনো প্রতিবাদ কর্মসূচি করা যাবে না বলে সিদ্ধান্ত নিয়েছে। একই সঙ্গে উপাচার্যের ভবন ও প্রশাসনিক ভবনে শিক্ষক-কর্মকর্তা ও শিক্ষার্থীদের যাওয়ার ওপরও নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে। তাহলে উপাচার্য ভবন ও বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক ভবন কাদের জন্য?

গত ৩১ জানুয়ারির সিন্ডিকেট সভায় এ নিষেধাজ্ঞার সিদ্ধান্ত হয়েছে, অথচ সংশ্লিষ্টদের জানানো হয়েছে গত বৃহস্পতিবার। কারণ, কাজটি সম্ভবত এমনই অযৌক্তিক যে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষও তা প্রকাশ করতে সংকোচ বোধ করছিল। সিন্ডিকেট সভার সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে ক্যাম্পাসে ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকেরা অবিলম্বে নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারের দাবি জানিয়ে বলেছেন, অন্যথায় তাঁরা সর্বাত্মক আন্দোলনে যাবেন। শিক্ষকদের দাবির সঙ্গে সংহতি জানিয়ে বিবৃতি দিয়েছে সরকার সমর্থক ছাত্রসংগঠন ছাত্রলীগও। শিক্ষক সমিতির অভিযোগ, এ ধরনের স্বৈরতান্ত্রিক পদক্ষেপ বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিস্থিতিকে আরও অস্থিতিশীল করবে। প্রতিদিন শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের জরুরি প্রয়োজনে প্রশাসনিক ভবনে যেতে হয়। সেখানে এ নিষেধাজ্ঞা কেবল স্বৈরতান্ত্রিক নয়, মানবাধিকারেরও লঙ্ঘন।

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, বিশেষ করে শিক্ষার্থীদের পড়াশোনার স্বার্থে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন ও শিক্ষকদের মধ্যে সুস্থ কর্মসম্পর্ক থাকা জরুরি। গায়ের জোরে কিছু করলে তার ফল কারও জন্য ভালো হয় না।

আমরা আশা করব, রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য তথা প্রশাসনের সুমতি ফিরে আসবে এবং ক্যাম্পাসে শিক্ষার সুষ্ঠু পরিবেশ ফিরিয়ে আনতে অবিলম্বে নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার করা হবে।

বিজ্ঞাপন
সম্পাদকীয় থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন