default-image

২০১৯ সালে আবির্ভাবের পর থেকে এখন পর্যন্ত কোভিড–১৯ রোগটা নিয়ে সত্য–মিথ্যা অনেক কথাই শোনা গেছে। তার অনেকগুলোই আবার পরস্পরবিরোধী। করোনা বাতাসে ছড়ায় কি না, কোন টিকা কতটুকু কার্যকর, এসব নিয়েও বিশেষজ্ঞদের মধ্যে দ্বিমত আছে, কিন্তু একটা বিষয়ে সবাই একমত—প্রাণঘাতী এ রোগ প্রতিরোধে মাস্ক অত্যন্ত কার্যকর এক অস্ত্র।

অথচ এ মাস্ক বিষয়ে আমাদের উদাসীনতা বিস্ময়কর। এমন না যে পণ্যটি অনেক দামি। মাত্র ১০ টাকা খরচ করেই পাঁচটা মাস্ক কেনা যায়। এ সামর্থ্যও যার নেই, চাইলে সে পুরোনো কাপড় দিয়েও অনায়াসে বানিয়ে নিতে পারে পুনর্ব্যবহারযোগ্য একটা মাস্ক। তারপরও মাস্ক পরায় আমাদের হেলাফেলার অন্ত নেই। আর যারাও–বা পরে, তাদেরটা নাক-মুখের চেয়ে থুতনিতেই থাকে বেশি। বাজারঘাটে–বাসে–ট্রেনে দিব্যি খোলা মুখে ঘুরে বেড়াই আমরা। সবচেয়ে বেপরোয়া গ্রামাঞ্চলের মানুষজন, পুরো ব্যাপারটাই কপালের ওপর ছেড়ে দিয়েছে তারা।

বিজ্ঞাপন

এই যখন অবস্থা, তখন সাতআনীর হাটুরেরা আমাদের অবাকই করেছেন। গাজীপুরের শ্রীপুর উপজেলার ধনুয়া গ্রামের এ হাটের সবাই মাস্ক পরেন। বিশাল বটগাছের নিচে শনি ও মঙ্গলবার বসে এ হাট। আমাদের প্রতিনিধিও প্রথমে বিশ্বাস করতে চাননি, এই শনিবার তাই সরেজমিনে দেখতে গিয়েছিলেন প্রকৃত চিত্র। গিয়ে চমকেই উঠেছেন, আসলেই হাটের শতভাগ মানুষের মুখেই মাস্ক। অধিকাংশ হাটুরে মাস্ক পরেই হাটে আসেন, তারপরও যদি কেউ ভুলে যান, ইজারাদারদের পক্ষ থেকে বিনা মূল্যে তাঁকে দেওয়া হয় মাস্ক। আছে হ্যান্ড স্যানিটাইজারেরও ব্যবস্থা। অথচ একসময় আর দশটা গাঁয়ের মতো এ গ্রামের লোকজনও মাস্ক পরায় চরম অনীহ ছিলেন। কিন্তু দ্বিতীয় ঢেউ শুরু হওয়ার পর গ্রামের লোকজন বুঝে যান, সহজে যাবে না এ রোগ, এটাকে নিয়েই চলতে হবে। আস্তে আস্তে সবাই তাই মাস্ক পরা শুরু করেন। আসলে তঁারা বুঝতে পেরেছেন নিজেদের ব্যবস্থা তাঁদের নিজেদেরই করতে হবে। রোগের কারণে লম্বা সময় ঘরে আটকা থাকলেও তাঁদের চলবে না। আবার করোনাকে অবহেলাও করা যাবে না। নিজেরাই তাই উদ্যোগী হয়েছেন তঁারা।

ধনুয়া গ্রামের মানুষের এ উপলব্ধি সারা দেশের মানুষের কবে হবে? কবে আমরা বুঝব সহসা আমাদের মাঝ থেকে বিদায় হবে না এ রোগ, যেমনটা প্রথম ঢেউ নেমে যাওয়ার পর আমরা ভাবতে শুরু করেছিলাম। এটাকে নিয়েই আমাদের চলতে হবে। আর তার জন্য মাস্ক পরার মতো কিছু নিয়মকে আমাদের জীবনযাপনের অংশ করে নিতে হবে। সবার মধ্যে এ উপলব্ধি যত তাড়াতাড়ি হবে, ততই মঙ্গল।

সম্পাদকীয় থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন