বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
সরকার বড় অবকাঠামো নির্মাণ করছে। এসব মেগা প্রকল্পের মাধ্যমে দেশের অর্থনৈতিক উন্নতি হবে বলে মনে করা হচ্ছে। কিন্তু আমাদের ভবিষ্যৎ প্রজন্মকে সুন্দরভাবে গড়ে তোলা ও প্রবীণদের সুস্থভাবে বেঁচে থাকার জন্য মাঠের বিকল্প নেই। মাঠে বিনিয়োগ করা হলে শত শত বড় অবকাঠামোর চেয়ে দেশ গঠনে তা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে। মানবসম্পদ হচ্ছে এখন পৃথিবীতে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ। জনগোষ্ঠী যদি অসুস্থই থেকে যায়, তাহলে এত বড় বড় অবকাঠামো দিয়ে আমরা কী করব

পুরান ঢাকা এবং ঢাকার অন্য আবাসিক এলাকাগুলোর ক্ষেত্রে কী পরিস্থিতি দেখছেন?

আদিল মুহাম্মদ: পুরান ঢাকা, মোহাম্মদপুর, কলাবাগান, মিরপুর, বাসাবোসহ অন্য যেসব আবাসিক এলাকা, সেখানকার মাঠের জায়গায় কোথাও কোথাও সরাসরি ওয়ার্ড কাউন্সিলরের কার্যালয় গড়ে তোলা হয়েছে। মাঠে সারা বছর নানা ধরনের মেলার জন্য ভাড়া দেওয়া হয়। আর পাড়াভিত্তিক ছোট মাঠগুলোয় নির্মাণসামগ্রী, স্থানীয় প্রভাবশালী ব্যবসায়ীদের পণ্য রাখার স্থান হিসেবে ব্যবহৃত হতে দেখি। কোথাও কোথাও মাঠ দখল করে বিপণিবিতান ও ভবন নির্মিত হচ্ছে। কলাবাগানে তেঁতুলতলার মাঠ নিয়ে আন্দোলন হওয়ার পর আন্দোলনকারীদের গ্রেপ্তারসহ অন্যান্য কারণে তা জাতীয় গুরুত্ব পেয়েছে। গণমাধ্যম এবং নাগরিক সংগঠনগুলো একযোগে ওই মাঠ রক্ষায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছে। এটা একটা বড় অর্জন। এই আন্দোলনের বিজয় থেকে অনুপ্রেরণা নিয়ে ঢাকার অন্য মাঠগুলো দখলমুক্ত করতে হবে।

রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ পূর্বাচল, ঝিলমিলসহ নতুন অনেক আবাসিক এলাকা গড়ে তুলছে। সেখানে কি পর্যাপ্তসংখ্যক মাঠ রাখা হয়েছে?

আদিল মুহাম্মদ: পূর্বাচলে শুরুতে প্রয়োজনের তুলনায় এক-তৃতীয়াংশ মাঠ রাখা হয়েছিল। রাজউক থেকে বলা হয়েছিল ১০ লাখ মানুষ থাকবে। পরবর্তীকালে সেখানকার পরিধি বাড়িয়ে ১৫ লাখ মানুষের জন্য প্লট বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। পূর্বাচলকে কেন্দ্র করে আরও শতাধিক আবাসন প্রকল্প গড়ে উঠেছে। সেগুলোয় মাঠ নেই বললেই চলে। তার মানে সব কটি আবাসিক এলাকার চাপ পূর্বাচলের মাঠের ওপরে পড়বে। মূল ঢাকায় মাঠ নিয়ে যে সমস্যা তৈরি হয়েছে, তা পূর্বাচলেও থেকে যাবে।

বুড়িগঙ্গার তীরে কেরানীগঞ্জ এবং সাভারের মতো এলাকাগুলোয়ও ঢাকা শহর অপরিকল্পিতভাবে সম্প্রসারিত হচ্ছে। সেখানকার কী অবস্থা?

আদিল মুহাম্মদ: গত দুই যুগে কেরানীগঞ্জ ও সাভারে অপরিকল্পিতভাবে শিল্পকারখানা গড়ে ওঠার পাশাপাশি আবাসিক এলাকাগুলো বড় হয়েছে। সরু অলিগলি আর নোংরা পরিবেশের মধ্যে গড়ে ওঠা এসব এলাকায় কোনো মাঠ খুঁজে পাওয়া যাবে না। অপরিকল্পিত আবাসিক এলাকাতেও মাঠ গড়ে তোলা সরকারের দায়িত্ব। বিশ্বের অন্যান্য দেশেও দ্রুত ও অপরিকল্পিত নগরায়ণ হলে সরকার সেখানে মাঠ ও পার্কের জন্য জায়গা অধিগ্রহণ করে রাখে।

মাঠ নিয়ে আমাদের পরিকল্পনাবিদ ও নীতিনির্ধারকদের এ অবহেলার কারণ কী বলে মনে করেন?

আদিল মুহাম্মদ: ঢাকা শহরের জনসংখ্যা বৃদ্ধির ধরন যদি আমরা লক্ষ করি, তাহলে দেখব, এখানে মানুষ বেড়েছে জ্যামিতিক হারে। এ শহরের জনসংখ্যা অনুপাতে যত মাঠ ছিল, তা সত্তরের দশক পর্যন্ত ঠিক ছিল। আশির দশক থেকে জনসংখ্যা দ্রুত বাড়লেও মাঠ সেই অনুপাতে বাড়ানোর কোনো উদ্যোগ আমরা দেখিনি। ঢাকার অধিবাসীদের মধ্যে নানা ধরনের মানসিক ও শারীরিক সমস্যা, বিষণ্নতা এবং কিশোরদের মধ্যে অপরাধপ্রবণতা বাড়ছে। এর বড় কারণ মাঠ ও সামাজিক যোগাযোগের জন্য উন্মুক্ত স্থান আর উন্মুক্ত নেই। ঢাকায় এখন একটি ভবনের বিভিন্ন ফ্ল্যাটের অধিবাসীদের একে অপরের সঙ্গে চেনাপরিচয় পর্যন্ত নেই। বড়দের জন্য মাঠ থাকলে, পার্ক থাকলে ও শিশুদের জন্য খেলার ছোট মাঠ থাকলে যোগাযোগটা এমনিতেই বাড়ত। শহরে যে অপরাধপ্রবণতা, কিশোর গ্যাংসহ নানা ধরনের বৈকল্য তৈরি হচ্ছে, তা–ও কমে আসত। মাঠ না করে শত শত থানা করে লাভ নেই।

গ্রাম-মফস্বলের কী অবস্থা?

আদিল মুহাম্মদ: এখন মফস্বল শহরেও মাঠ খুঁজে পাওয়া যাবে না। সেখানকার শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোয় কিছু মাঠ আছে, তবে তা সবাই ব্যবহার করতে পারে না। আর গ্রামে যে মাঠ আছে, তার বড় অংশ মৌসুমি, অর্থাৎ ফসল কাটার পর কিছুদিনের জন্য তা ব্যবহার করা যায়। বাকি সময় গ্রামের কিশোর-শিশু-তরুণদের মাঠ ছাড়া কাটাতে হয়।

তাহলে কি এখন মাঠ রক্ষা এবং নতুন করে মাঠ গড়ে তোলার ক্ষেত্রে কিছু করার নেই?

আদিল মুহাম্মদ: সরকার বড় অবকাঠামো নির্মাণ করছে। এসব মেগা প্রকল্পের মাধ্যমে দেশের অর্থনৈতিক উন্নতি হবে বলে মনে করা হচ্ছে। কিন্তু আমাদের ভবিষ্যৎ প্রজন্মকে সুন্দরভাবে গড়ে তোলা ও প্রবীণদের সুস্থভাবে বেঁচে থাকার জন্য মাঠের বিকল্প নেই। মাঠে বিনিয়োগ করা হলে শত শত বড় অবকাঠামোর চেয়ে দেশ গঠনে তা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে। মানবসম্পদ হচ্ছে এখন পৃথিবীতে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ। জনগোষ্ঠী যদি অসুস্থই থেকে যায়, তাহলে এত বড় বড় অবকাঠামো দিয়ে আমরা কী করব।

প্রথম আলো: আপনাকে ধন্যবাদ।

আদিল মুহাম্মদ: আপনাকেও ধন্যবাদ।

সাক্ষাৎকার থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন