বৃহস্পতিবার সপ্তাহের শেষের দিন অফিস শেষ করে মনে হলো, যাক বাবা, বাঁচলাম। অন্তত এ সপ্তাহটা তো নিরাপদ থাকলাম। আমি ভালো আছি অন্তত কাজে আসা-যাওয়ার পথে ওদের মতো আমাকে দগ্ধ হতে হয়নি। স্বার্থপর আমি নিজের নিরাপত্তা নিয়েই শুধু চিন্তিত।
একজন সাধারণ নাগরিক হিসেবে আমাদের প্রতিদিনের কাজে যাওয়ার ক্ষেত্রে যে প্রচণ্ড নিরাপত্তাহীনতা তৈরি হয়েছে, সেটি অনুধাবন করবেন বাংলাদেশের প্রত্যেক মানুষ। আজ নিরাপত্তাহীন কখন কার গায়ে এসে পড়ে ককটেল পেট্রলবোমা, কখন কে ঝলসে যায়—এসব ভাবতে ভাবতে আমাদের দম বন্ধ হয়ে আসে।
প্রতিদিন খবরের কাগজের লেখায়, ছবিতে, টেলিভিশনের আলোচনায় মানুষের আকুতিতে কান পাতা দায়। দোহাই, এ খেলা আপনারা বন্ধ করুন। আমাদের জীবন আমাদের যাপন করতে দিন। নিজেদের স্বার্থে আমাদের গিনিপিগ বানাবেন না। আমাদের আপনাদের মতো পরিবার আছে, সন্তান আছে, বাবা-মা আছেন। কেন এই নিষ্ঠুরতা, কে জিতছে এ খেলায়, কী পাচ্ছেন আমাদের রাজনীতিবিদেরা বীভৎস মৃত্যুর এই মিছিল বানিয়ে?
সপ্তাহ শেষে আগামীকাল আবার কাজের দিন শুরু হয়ে যাবে। এ সপ্তাহটা কি আমি অনাক্রান্ত থাকতে পারব? এই প্রশ্নের উত্তর কি কেউ জানেন? §
আবদুল হালীম
মোহাম্মদপুর, ঢাকা।

বিজ্ঞাপন
চিঠি থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন